ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

খেলা বিভাগের সব খবর

জিতেও হারলো মোহামেডান!

জিতেও হারলো মোহামেডান!

প্রিমিয়ার ডিভিশন হকি লিগে শুক্রবার ছিল ‘অঘোষিত ফাইনাল’ ম্যাচ, যাতে মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে পরস্পরের মুখোমুখি হয়েছিল দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী লিমিটেড এবং মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। খেলায় জিতেও হেরেছে মোহামেডান! ৩-২ গোলে এগিয়েছিল তারা। কিন্তু খেলার একপর্যায়ে সৃষ্টি হয় গন্ডগোল ও বির্তকের। মোহামেডানের দুই খেলোয়াড় লাল কার্ড পেলে তারা খেলতে অস্বীকৃতি জানায়। নিয়ম অনুযায়ী আধাঘণ্টা অপেক্ষার পর আম্পায়াররা বিজয়ী ঘোষণা করেন আবাহনীকে। ৩ পয়েন্ট দেন আবাহনীকে। প্রথম পর্বে দুই দলের ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছিল।  কার্ডের খাঁড়ায় অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি খেলতে পারবে না- এই ইস্যুতে মোহামেডান খেলবে কি না, তা নিয়ে ছিল সংশয়। ম্যাচের কয়েক ঘণ্টা আগে মোহামেডান প্রেস রিলিজের মাধ্যমে জানায় তারা খেলবে। দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর অসাধারণভাবে দুই গোলই শোধ করে তারা দারুণভাবে সমতায়ও ফিরে আসে। একপর্যায়ে আরেক গোল করে লিডও নিয়েছিল তারা। তারপরই ঘটে এই ঘটনা। মজার ব্যাপারÑ আবাহনীকে জয়ী ঘোষণা করার সময় মোহামেডানের খেলোয়াড়দের দেখা গেছে করতালি দিতে, পরে টার্ফের এক প্রান্তে গিয়ে পতাকা উঁচিয়ে উৎসব করতে! এর ফলে লিগে কোন দল শিরোপা জিতবে, এ নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হলো। ১৫ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট মেরিনার্স ও আবাহনীর। বাইলজ অনুযায়ী প্লে-অফে শিরোপা নিষ্পত্তি হওয়ার কথা। মোহামেডান ২০১৮ সালের পর লিগের শিরোপা পুনরুদ্ধার করার সুযোগ নষ্ট করেছে। এখন প্লে-অফ ম্যাচে আবাহনী-মেরিনার্স উভয় দলই যদি খেলতে অস্বীকার করে, তাহলে এই দুই দলকেই যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হতে পারে। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে পেনাল্টি কর্নার (পিসি) থেকে এগিয়ে যায় আবাহনী। শিশে গাওয়ারের হিট গোলরক্ষক ফেরানোর পর পোস্টের কাছাকাছি থেকে আফফান ইউসুফ হিটে লক্ষ্যভেদ করেন (১-০)। ২৫ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে আবাহনী। পিসি থেকে গাওয়ারের হিট গোলরক্ষক নুরুজ্জামান আটকালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি। সামনে থাকা পুস্কর ক্ষিসা মিমো গোল করেন (২-০)।  ৩২ মিনিটে সার্কেলের বাম দিক থেকে রিভার্স হিটে সজিবুর রহমানকে পরাস্ত করেন মালয়েশিয়ান ফায়সাল বিন সারি। ব্যবধান কমায় মোহামেডান (১-২)। ৩৬ মিনিটে সমতায় ফেরে সাদা-কালোরা। পিসি থেকেই ফায়সাল বিন সারি গোল করেন (২-২)। পরের মিনিটেই আবারও পিসি থেকে ফায়সাল হ্যাটট্রিক করলে এগিয়ে যায় মোহামেডান (৩-২)।  ৪৩ মিনিটে দুই পক্ষের মধ্যে গন্ডগোল বাধে। শুরু হয় হাতাহাতি, ধাক্কাধাক্কি। বাহাসের শুরু করা আবাহনীর আফফান ও মোহামেডানের জুল বিন মিজুনকে হলুদ কার্ড দেন আম্পায়ার। মোহামেডানের দ্বীন ইসলাম ইমন ও তানভির রহমান সিয়াম এবং আবাহনীর নাঈম উদ্দিনকে দেন লাল কার্ড। এই সিদ্ধান্তের পর খেলা বন্ধ থাকে। খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়ে মাঠ ছেড়ে ডাগআউটে অবস্থান নেয় মোহামেডানের খেলোয়াড়রা। আবাহনীর খেলোয়াড়রা ছিল মাঠের ভেতরে। ৩০ মিনিট অপেক্ষার পর মোহামেডানের খেলোয়াড়রা মাঠে না ফিরলে আম্পায়ররা আবাহনীকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। 

স্টুয়ার্ট ল এখন যুক্তরাষ্ট্রের কোচ

স্টুয়ার্ট ল এখন যুক্তরাষ্ট্রের কোচ

কয়েকদিন আগেও বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্বে ছিলেন স্টুয়ার্ট ল। তার নেতৃত্বেই যুব এশিয়া কাপের শিরোপা ঘরে তুলেছিল বাংলাদেশ। এর আগে টাইগারদের জাতীয় দলের কোচও ছিলেন তিনি। মাত্র এক বছরের দায়িত্বেই বাংলাদেশকে দিয়েছিলেন মনে রাখার মতো স্মৃতি। সেই স্টুয়ার্ট ল এবার যাচ্ছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটির জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেলেন ৫৫ বছর বয়সী সাবেক এই অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কোচ হিসেবে লয়ের নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন।  বাংলাদেশের এই সাবেক কোচের প্রথম প্রতিপক্ষও টাইগাররাই। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজ খেলবে যুক্তরাষ্ট্র। সেটিই যুক্তরাষ্ট্রের কোচ হিসেবে স্টুয়ার্ট ল’য়ের প্রথম পরীক্ষা। যুক্তরাষ্ট্রের কোচের দায়িত্ব পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত স্টুয়ার্ট ল। নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘এই সময়ে যুক্তরাষ্ট্র ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত হতে পারাটা দারুণ  রোমাঞ্চকর এক সুযোগ। সহযোগী দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে শক্তিশালী দলগুলোর একটি। আমার বিশ্বাস ভবিষ্যতের জন্য একটি শক্তিশালী দল গঠন করতে পারব।’ আগামী ২১ মে শুরু হবে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজ। পরের দুটি ম্যাচ হবে ২৩ ও ২৫ মে। সিরিজের সব ম্যাচই হবে টেক্সাসের হিউস্টনের প্রেইরি ভিউ ক্রিকেট কমপ্লেক্সে। সেখানেই স্টুয়ার্ট ল দেখা পাবেন বাংলাদেশ দলের। আর টাইগারদের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে দল তৈরি করাই মূল লক্ষ্য বলে জানালেন ল। তিনি বলেন, ‘প্রথম কাজ হলো বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের জন্য প্রস্তুত হওয়া এবং এরপর ঘরের মাঠের বিশ্বকাপ নিয়ে লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে, যা বিশাল এক ব্যাপার।’

ম্যানসিটিকে কাঁদিয়ে সেমিতে রিয়াল মাদ্রিদ

ম্যানসিটিকে কাঁদিয়ে সেমিতে রিয়াল মাদ্রিদ

এর চেয়ে মধুর প্রতিশোধ বুঝি আর হয় না। গত বছর এই ম্যানচেস্টার সিটির কাছে নাকানিচুবানি খেয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। এবার দল দুটির সাক্ষাৎ হয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালে। গত ৯ এপ্রিল সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে প্রথম লেগের ম্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়েছিল।  পরশু রাতে ম্যানচেস্টারের ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শেষ আটের দ্বিতীয় লেগে মুখোমুখি হয় রিয়াল ও ম্যানসিটি। এই ম্যাচটিকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসের অন্যতম সেরা বলা হচ্ছে। কেননা পুরো ম্যাচে দুদলের লড়াই ছিল দেখার মতো। বল পজিশনে গ্যালাক্টিকোদের চেয়ে ঢের এগিয়ে থাকলেও ইতিহাসের সেরা দলের কৌশলের সঙ্গে পেরে উঠেনি সিটি।

আড়ালে থাকা লুনিনই রিয়ালের নায়ক

আড়ালে থাকা লুনিনই রিয়ালের নায়ক

রিয়াল মাদ্রিদে বরাবরই তারকা গোলরক্ষকের ছড়াছড়ি। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্রধান ম্যাচগুলোতে দলটির গোলবার সামলেছেন বেলজিয়ামের থিবো কোর্তোয়া। কিন্তু এবার তার ইনজুরির কারণে কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ পড়ে রিয়ালের। যে কারণে বাধ্য হয়ে রিয়াল তাদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় পছন্দের গোলরক্ষকদের খেলাতে থাকে। যে কারণে সুযোগ পান তৃতীয় পছন্দের আন্দ্রি লুনিনও। যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের ২৫ বছর বয়সী এই তরুণই এখন রিয়াল মাদ্রিদের আলোচিত তারকা।  চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটিকে হারিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের সেমিফাইনালে ওঠার মূল কারিগর এতদিন আড়ালে থাকা লুনিন। এই ম্যাচের ম্যান অব দা ম্যাচের পুরস্কার পেয়েছেন রিয়ালের উরুগুয়েন মিডফিল্ডার ফেডে ভালভের্ডে। ম্যাচজুড়ে মাঠময় ছুটে বেরিয়েছেন তিনি বরাবরের মতোই। তবে ম্যাচ সেরার ট্রফিটি অনায়াসে উঠতে পারত লুনিনের হাতেও। ১২০ মিনিট ধরে রিয়াল মাদ্রিদের দেয়াল হয়ে ছিলেন তিনি গোলবারের নিচে।  পরে টাইব্রেকারের রোমাঞ্চেও তিনিই দলের জয়ের ত্রাতা। মৌসুমজুড়েই অসাধারণ পারফর্ম করে চলেছেন তিনি। তবে সিটির বিরুদ্ধে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কোয়ার্টার-ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে তিনি যেন মেলে ধরেন ক্যারিয়ারের সেরা পারফরম্যান্স। এই মৌসুমে অবশ্য বারবারই নিজেকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন লুনিন। তার ক্যারিয়ারের মোড় বদলের মৌসুম বলা যায় এটিকে। মূলত রিয়ালের রিজার্ভ গোলকিপার ছিলেন লুনিন।

ডিপিএলে ধরাছোঁয়ার বাইরে আবাহনী

ডিপিএলে ধরাছোঁয়ার বাইরে আবাহনী

এবার ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) কোনোভাবেই আটকানো যাচ্ছে না আবাহনী লিমিটেডকে।  চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও শক্তিশালী প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব পেরে ওঠেনি দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলা দলটিকে। এবার গত আসরের চ্যাম্পিয়ন শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকেও বিধ্বস্ত করেছে তারা। বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাত্র ৩৩ ওভার স্থায়ী ম্যাচে ১০ উইকেটে জিতেছে আবাহনী।  ফলে রাউন্ড রবিন লিগের ১১ ম্যাচেই জিতে ২২ পয়েন্ট নিয়ে সুপার লিগে উঠল তারা। সমান ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা শেখ জামালেরও ধরাছোঁয়ার বাইরে এখন আবাহনী। এ ছাড়া শেখ জামাল, শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব ও প্রাইম ব্যাংক নিশ্চিত করেছে ৬ দলের সুপার লিগ। এদিন ফতুল্লায় প্রাইম ব্যাংক ১৪১ রানে গাজী টায়ার্স ক্রিকেট একাডেমিকে ও বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে শাইনপুকুর ৬৭ রানে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে হারিয়েছে। মিরপুরে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে বাঁহাতি শরিফুল ইসলাম ও ডানহাতি তাসকিন আহমেদের পেস তোপে ২২.৪ ওভারে মাত্র ৮৮ রানে গুটিয়ে যায় শেখ জামাল। সৈকত আলী করেন সর্বোচ্চ ২৩ রান। শরিফুল ৭ ওভারে ১ মেডেন দিয়ে ৩৫ রানে ৪টি, তাসকিন ও তানভীর ইসলাম ২টি করে উইকেট নেন। জবাবে ১০.২ ওভারে বিনা উইকেটে ৯১ রান তুলে ১০ উইকেটের বিশাল জয় তুলে নেয় আবাহনী। নাইম শেখ ৪০ বলে ৮ চার, ২ ছক্কায় ৫৩ ও এনামুল হক বিজয় ২২ বলে ৩ চার, ৩ ছক্কায় ৩৭ রানে অপরাজিত থাকেন।

বার্সিলোনাকে বিদায় করে সেমিতে পিএসজি

বার্সিলোনাকে বিদায় করে সেমিতে পিএসজি

কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে হার মানে দল দুটি। কিন্তু দ্বিতীয় লেগে ঘুরে দাঁড়ানোর অসাধারণ গল্প লিখে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে উঠে গেছে ফরাসি জায়ান্ট প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইন (পিএসজি) ও জার্মান ক্লাব বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। মঙ্গলবার রাতে দল দুটির কাছে হেরে বিদায় নিয়েছে যথাক্রমে স্পেনের দুই ক্লাব বার্সিলোনা ও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। দুই স্প্যানিশ ক্লাবকে তল্পিতল্পা ধরিয়ে দেওয়া পিএসজি ও ডর্টমুন্ড ফাইনালের টিকেট পাওয়ার মিশনে সেমিফাইনালে একে অপরের মুখোমুখি হবে। গত ১০ এপ্রিল শেষ আটের প্রথম লেগের ম্যাচে প্যারিসের পার্ক দ্য প্রিন্সেস স্টেডিয়ামে স্বাগতিক পিএসজিকে ৩-২ গোলে হারিয়েছিল বার্সিলোনা। ওই জয়ের পর সেমিতে খেলার দৌড়ে এগিয়ে ছিল কাতালানরা। পরশু রাতে তারা আবার খেলেছে নিজেদের মাঠ ন্যূক্যাম্পে।

মুশতাকের অধীনে লেগস্পিনে উন্নতি সম্ভব?

মুশতাকের অধীনে লেগস্পিনে উন্নতি সম্ভব?

পাকিস্তানের বিশ্বকাপজয়ী লেগস্পিনার মুশতাক আহমেদ এখন বাংলাদেশ ক্রিকেটের একজন। আগামী টি২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত তার সঙ্গে চুক্তি করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এই সময়ে তিনি জাতীয় দলের সঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ততায় থাকবেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আসন্ন টি২০ সিরিজের আগে মূলত জাতীয় দলের ক্যাম্প দিয়ে তার কাজ শুরু হবে। সেই ক্যাম্পে স্পিনারদের নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করবেন কোচ হিসেবে দারুণ অভিজ্ঞ মুশতাক। সেখানে আপাতত রিশাদ হোসেন ব্যতীত বলার মতো উল্লেখযোগ্য কোনো লেগস্পিনার নেই বাংলাদেশের। তাই মুশতাকের অধীনে লেগস্পিনে সমৃদ্ধি লাভের সুযোগ একেবারেই কম এই স্বল্প সময়ে।