ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১

পঞ্চম শিরোপায় উদ্ভাসিত ধোনি

শাকিল আহমেদ মিরাজ

প্রকাশিত: ০০:১৫, ৩১ মে ২০২৩

পঞ্চম শিরোপায় উদ্ভাসিত ধোনি

আইপিএল শিরোপা হাতে চেন্নাই সুপার কিংসের ক্রিকেটাররা

মহেন্দ্র সিং ধোনির জন্মটাই যেন শিরোপার জন্য! ২০০৭ প্রথম টি২০ বিশ্বকাপেই বাজিমাত, ২০১১ সালে দীর্ঘ ২৮ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ভারতকে এনে দেন ওয়ানডে বিশ্বকাপের ট্রফি। এরপর ২০১৩ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। দুই ফরম্যাটেই দেশকে তুলেছেন র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে। আইপিএলের শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে গুজরাট টাইটান্সকে হারিয়ে এবার চেন্নাই সুপার কিংসকে উপহার দিলেন রেকর্ড পঞ্চম শিরোপা। আসরটির ইতিহাসে পাঁচ শিরোপা আছে আর কেবল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের। এত অর্জনের মাঝেও ধোনির জন্য এবারের শিরোপা বিশেষ কিছু। ২০২১-এ চতুর্থ শিরোপাজয়ের পর ২০২২-এ যখন ৯ নম্বরে থেকে শেষ করেন, অনেকে বলছিলেন ধোনির কারিকুরি শেষ! চ্যালেঞ্জ নিয়ে পরের মৌসুমেই দেখিয়ে দিলেন ‘ক্যাপ্টেন কুল’। তাও প্রায় ৪২ বছর বয়সে!

আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামটি প্রতিপক্ষ গুজরাটের হোম ভেন্যু। কিন্তু গ্যালারিতে ছিল চেন্নাইর হলুদের উন্মাদনা। ধোনি ধোনি বলে চিৎকার করছিলেন দর্শক। ‘ক্যারিয়ারের এই শেষ ভাগে এসে আবেগ স্পর্শ করাটা স্বাভাবিক। মাঠে নামার পর থেকেই পুরো গ্যালারি আমার নামে গর্জন করছিল। আমার চোখ ভরে উঠেছিল (অশ্রুতে)। তারা আমাকে এতটা ভালোবাসে আমি এরকম বলেই। আমি কখনোই নিজেকে বদলাতে চাই না।’ বলেন আবেগাক্রান্ত ধোনি। ব্যানারে লেখা ছিল আরও একবার তোমাকে দেখতে চাই। আগামী মৌসুমে বয়স ৪৩ হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি যদি দেখেন, তাহলে আমার জন্য অবসর ঘোষণা করে দেওয়ার সেরা সময় এটিই। এই বছর যেখানেই গেছি, যে পরিমাণ ভালোবাসা ও অনুরাগের ছোঁয়া পেয়েছি, তাতে খুব সহজেই বলে দিতে পারি যে, ‘ধন্যবাদ, অনেক হয়েছে। এটা (আরেক মৌসুম খেলা) আমার তরফ থেকে হবে উপহার (ভক্তদের জন্য)। কাজটি যদিও আমার জন্য সহজ হবে না।’ তবে ধোনির কাছে হেরেও গর্বিত পান্ডিয়া, ‘আসলে তার (ধোনি) জন্য আমি খুশি। ভাগ্যবিধাতা আসলে এমনটাই লিখে রেখেছিলেন। আসলে আমার যদি হারতেই হয়, তাহলে ধোনির কাছেই হারব। কারণ তার কাছে হারতে লজ্জা নেই। খেলা গড়ায় প্লেয়িং কন্ডিশনাল রিজাভ-ডে সোমবারে।

ঋদ্ধিমান সাহা (৩৯ বলে ৫৪) ও সাই সুদর্শনের (৪৭ বলে ৯৬) দারুণ ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ২১৪ রান করে গুজরাট। আইপিএলের ইতিহাসে ফাইনালে যা দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। বৃষ্টি ও ভেজা আউটফিল্ডের কারণে প্রায় আড়াই ঘণ্টা খেলা বন্ধ থাকলে ১৫ ওভারে জয়ের জন্য চেন্নাইর সামনে ১৭১ রানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়। ২৫ বলে ৪৭ রান করেন ডেভন কনওয়ে। শেষ ২ বলে প্রয়োজন ছিল ১০ রান। ছক্কা ও চারে সেই সমীকরণ মিলিয়ে নায়ক বনে যান রবীন্দ্র জাদেজা (৬ বলে ১৫*)।
কে কত টাকা পেল ॥ আইপিএলের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এবার ২৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকা প্রাইজমানি পেয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। রানার্সআপ গুজরাট টাইটান্সের আয় ১৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। তৃতীয় হওয়া মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ৯ কোটি ৭ লাখ টাকা। চতুর্থ লক্ষেèৗ সুপার জায়ান্টসের অর্জন ৮ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। এছাড়া টুর্নামেন্টসেরা, সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক, সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি, সেরা উদীয়মান ক্রিকেটার, মৌসুমসেরা গেম চেঞ্জার, সুপার স্ট্রাইকার, সবচেয়ে বেশি চার, সবচেয়ে বেশি ছক্কা, লম্বা ছক্কা ও মৌসুমসেরা ক্যাচের জন্য দেওয়া হয়েছে সমান ১২ লাখ ৯৬ হাজার টাকা।

শুধু ফাইনাল ম্যাচের জন্য আলাদা করে পুরস্কারের ব্যবস্থা রাখে বিসিসিআই। যেখানে ম্যাচসেরা ডেভন কনওয়ের প্রাপ্তি ৬ লাখ ৪৮ হাজার টাকা। গেম চেঞ্জার ও মূল্যবান খেলোয়াড় সাই সুদর্শন পেয়েছেন মোট ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা। সেরা ক্যাচ নেওয়া মহেন্দ্র সিং ধোনি ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা। অজিঙ্কা রাহানে ইলেকট্রিক স্ট্রাইকার ও সাই সুদর্শন লম্বা ছক্কা ক্যাটাগরিতে পুরস্কার জিতে সমান টাকা পান। সর্বোচ্চ চারটি বিভাগের পুরস্কার বাবদ মোট প্রায় ৬০ লাখ টাকা গেছে শুভামান গিলের পকেটে। ফাইনালের ম্যাচসেরা ডেভন কনওয়ে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ, ফাইনাল ম্যাচের মূল্যবান ক্রিকেটার সাই সুদর্শন ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা পেয়েছেন। ফেয়ার প্লে ট্রফি (দিল্লি ক্যাপিটালস) এবং সেরা পিচ (ইডেন গার্ডেন্স) ও মাঠ (ওয়াংখেড়ে) পেয়েছে সমান ৬৪ লাখ টাকা করে। 
এক নজরে টুর্নামেন্টের সেরা : শুভমান গিল (৮৯০ রান), সর্বাধিক রান : শুভমান গিল (৮৯০ রান), সর্বাধিক উইকেট : মোহাম্মদ সামি (২৮টি), সেরা উদীয়মান : যশস্বী জসওয়াল (৬২৫ রান), সর্বাধিক ছক্কা : ফ্যাফ ডুপ্লেসিস (৩৬টি), সর্বাধিক চার : শুভমান গিল (৮৫টি), গেম চেঞ্জার : শুভমান গিল, সেরা ক্যাচ : রাশিদ খান (বনাম লক্ষেèৗ), সর্বোচ্চ স্ট্রাইকরেট : গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (১৮৩)।

×