ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯

শেষ হলো বিবিআইএন প্রথম বিজনেস এক্সপো ও কনফারেন্স

প্রকাশিত: ০৪:২২, ১৮ জুলাই ২০১৬

শেষ হলো বিবিআইএন প্রথম বিজনেস এক্সপো ও কনফারেন্স

এ রহমান মুকুল, শিলিগুড়ি (ভারত) থেকে ॥ শুল্ক ছাড়াই বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের ব্যবসায়ীদের পণ্য আমদানি-রফতানির সুবিধার প্রস্তাব ও পঞ্চগড়ে বিবিআইএন হেড কোয়ার্টার ঘোষণার মধ্য দিয়ে ভারতের শিলিগুড়িতে শেষ হলো বিবিআইএন প্রথম বিজনেস এক্সপো ও কনফারেন্স। ইউরোপীয় ইউনিয়েনের মডেলে বিবিআইএনকে কার্যকর করার পরিকল্পনা নেন চার দেশের ব্যবসায়ীরা। রবিবার বিকেলে শিলিগুড়িতে ৩ দিনব্যাপী বিবিআইএন এক্সপোর সমাপনী দিনে ৪ দেশের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা এ ঘোষণা দেন। গত ১৫ জুলাই বিবিআইএন ভুক্ত চার দেশ, বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণে ভারতের শিলিগুড়িতে শুরু হয় ৩ দিনের বিজনেস এক্সপো ও কনফারেন্স। বিবিআইএনভুক্ত চার দেশের ব্যবসায়ীদের মিলনমেলায় পরিণত হয় ভারতের শিলিগুড়ি। এই বিজনেস এক্সপোর মাধ্যমে চার দেশের ব্যবসায়ীরা বাছাই করে নেন কারা কোন দেশে কি ধরনের পণ্য আমদানি ও রফতানি করবেন। বিবিআইএন এক্সপো ও কনফারেন্স সফল হয়েছে বলে এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট আব্দুল মাতলুব আহমদ এ কথা জানিয়ে বলেন, বিবিআইনের পরবর্তী কনফারেন্স ও এক্সিবিশন হবে বাংলাদেশের সিলেট, নেপালের বিরাটনগড় এবং ভুটানের ফুয়েন্ট সিলিংয়ে। তিনি আরও বলেন, বিবিআইএনভুক্ত ৪ দেশের ব্যবসায়ীরা যাতে করে বিনা ভিসায় যাতায়াতসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটাতে পারে সে ব্যাপারে এসব দেশের সরকার পর্যায়ে আলোচনা করা হবে। এর আগে গত বছরের জুনে ৪ দেশের রোড কানেক্টিভিটি চুক্তি স্বাক্ষর করা হয় বলে তিনি জানান। বিজনেজ এক্সপোতে অংশগ্রহণ করতে আসা পঞ্চগড় চেম্বারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট এটিএম কামরুজ্জামান শাহানশাহ বলেন, বিবিআইএনের প্রধান কার্যালয় পঞ্চগড়ের হওয়ার ঘোষণায় উচ্ছ্বসিত ব্যবসায়ী সমাজ। এটি বাস্তবায়ন হলে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, রংপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রামসহ উত্তরবঙ্গেও কয়েকটি জেলার ব্যবসায়ীরা যেমনি উপকৃত হবে তেমনি বদলে যাবে এসব এলাকার অর্থনৈতিক চিত্র। পঞ্চগড় সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট রেজাউল করিম রেজা বলেন, বিবিআইএনভুক্ত দেশগুলোর ব্যবসায়ীদের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের নতুন সম্ভাবনা তৈরি হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশের ২য় বৃহত্তম স্থলবন্দর বাংলাবান্ধা ও ভারতের ফুলবাড়ি স্থলবন্দরের কর্মচাঞ্চল্যতা বাড়বে।