ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১

অর্থনীতি বিভাগের সব খবর

শেয়ারবাজারে দরপতন চলছেই

শেয়ারবাজারে দরপতন চলছেই

ঈদের আগে দেশের শেয়ারবাজার টানা দরপতন থেকে বেরিয়ে আসার আভাস দিলেও ঈদের পর পতনের মধ্যেই রয়েছে। মঙ্গলবার সব মূল্যসূচক কমার মাধ্যমে ঈদের পর লেনদেন হওয়া দুই কার্যদিবসেই সূচক কমল। তবে তিনশ’ কোটি টাকার ঘরে নেমে যাওয়া লেনদেন বেড়ে পাঁচশ’ কোটি টাকার ঘরে উঠে এসেছে। মঙ্গলবার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সব মূল্যসূচক কমলেও দাম কমার থেকে দাম বাড়ার তালিকায় বেশি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তবে অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) দাম বাড়ার থেকে দাম কমার তালিকায় বেশি প্রতিষ্ঠান। এর আগে দেশের শেয়ারবাজার অব্যাহত দরপতনের মধ্যে পড়লে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বাজার মূলধন এক লাখ কোটি টাকার ওপরে কমে যায়। তবে ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার আগে টানা চার কার্যদিবস শেয়ারবাজার ঊর্ধ্বমুখী থাকে।

সুদ বাড়ায় ব্যাংক আমানত বাড়ছে

সুদ বাড়ায় ব্যাংক আমানত বাড়ছে

প্রতি মাসেই প্রায় সঞ্চয়পত্র কেনার চেয়ে ভাঙানোর প্রবণতা বেশি হচ্ছে। এতে নিট বিক্রি ঋণাত্মক হয়ে পড়ছে। সর্বশেষ ফেব্রুয়ারিতে নিট বিক্রি ঋণাত্মক হয়েছে দেড় হাজার কোটি টাকারও বেশি। সব মিলে চলতি অর্থবছরের প্রথম আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) নিট বিক্রি ঋণাত্মকের পরিমাণ ৮ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, নানা কুড়াকড়ির কারণে সঞ্চয়পত্র থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে মানুষ। সম্প্রতি ব্যাংকগুলোতে আমানতের সুদ বাড়ানোও এর অন্যতম কারণ। এ ছাড়া উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণেও সঞ্চয়পত্র ভেঙে ফেলছেন। ব্যাংকঋণের সুদের হার বাড়ছে। কোনো কোনো ব্যাংকে ঋণের সুদের হার ১৩ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। এর প্রভাবে ব্যাংকগুলো আমানতের সুদহারও বাড়াতে শুরু করেছে। চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের নিট ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের প্রতিবেদন বলছে, সর্বশেষ ফেব্রুয়ারিতে নিট বিক্রি ঋণাত্মক হয়েছে ১ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। আগের মাসে নিট বিক্রি ঋণাত্মকের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ২৮৭ কোটি টাকা। সবমিলিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথম আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) নিট বিক্রি ঋণাত্মক হওয়ার পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৮ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়েও নিট বিক্রি ঋণাত্মক ধারায় ছিল। তবে ঐ সময় এর পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৫০৯ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে নিট ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৩৫ হাজার কোটি টাকা। তবে বিক্রি কমতে থাকায় সংশোধিত বাজেটে এ লক্ষ্যমাত্রা কমিয়ে ধরা হয় ৩২ হাজার কোটি টাকা। অর্থবছর শেষে নিট বিক্রি দাঁড়ায় ঋণাত্মক প্রায় ৩ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত অর্থবছরের পুরো সময়ে সঞ্চয়পত্রের মোট বিক্রি হয় ৮০ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানি কমেছে ১৯.২৪ শতাংশ

বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানি কমেছে ১৯.২৪ শতাংশ

একক বাজার হিসেবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের সবচেয়ে বড় গন্তব্য যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি চলতি বছরের প্রথম দুই মাস জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ থেকে ১১৮ কোটি ৬২ লাখ ডলারেরও বেশি পোশাক আমদানি করেছে, যা ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসের তুলনায় ১৯ দশমিক ২৪ শতাংশ কম। গত ৪ এপ্রিল প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগের অধীন অফিস অব টেক্সটাইলস অ্যান্ড অ্যাপারেলসের (ওটিইএক্সএ) পরিসংখ্যানে এ তথ্য উঠে এসেছে। ওটিইএক্সএর দেশভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, আলোচ্য দুই মাসে প্রতিযোগী দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ পিছিয়েছে। পোশাক রপ্তানিকারকরা বলছেন, ব্যবসার খরচ বেড়ে যাওয়া, পোশাকের বৈচিত্র্যহীনতাসহ একাধিক অভ্যন্তরীণ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানিতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ কমছে। উদ্বেগ প্রকাশ করে তারা বলছেন, যদিও যুক্তরাষ্ট্রে পোশাকের চাহিদা বেড়েছে, কিন্তু চীন ও ভিয়েতনামের চেয়ে তুলনামূলক পিছিয়েছে বাংলাদেশ। ওটিইএক্সএর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্যে বেড়েছে দশমিক ৪৮ শতাংশ আর পরিমাণে বেড়েছে ১৪ দশমিক ৯৪ শতাংশ। একই সময়ে ভিয়েতনাম থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্যে বেড়েছে দশমিক ১৪ শতাংশ আর পরিমাণে বেড়েছে ৪ দশমিক ৮১ শতাংশ। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০২৩ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্য ছিল ১৪৭ কোটি ডলার। ২০২৪ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে আমদানি হয়েছে ১১৮ কোটি ৬২ লাখ ডলারের কিছু বেশি। চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির পরিমাণ ছিল ৩৯ কোটি ৫৬ লাখ ৯০ হাজার বর্গমিটার। ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসে আমদানির পরিমাণ ছিল ৪৫ কোটি ৩৭ লাখ ৩০ হাজার বর্গমিটার। চলতি বছরের প্রথম দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক আমদানির অর্থমূল্য ছিল ২৫৪ কোটি ডলার। ২০২৩ সালের প্রথম দুই মাসে চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্র আমদানি করে ২৫৩ কোটি ডলারের পোশাক।