শুক্রবার ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৯ মে ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

ঢাকার দিনরাম

  • মারুফ রায়হান

ছাব্বিশে মার্চ থেকে শুরু হয়েছে সরকার ঘোষিত ১০ দিনের ছুটি। ছাব্বিশে মার্চ স্বাধীনতা দিবসে জরুরী কাজে সংযুক্ত আরো অনেকের মতো সংবাদকর্মীদেরও ছুটি নেই। অফিস সিএনজি পাঠাচ্ছে কর্মীদের অফিসে আনা ও বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার জন্য। ঘর থেকে বেরুনোর আগে ব্যালকনি থেকে উঁকি দিয়ে দেখলাম ময়লা সংগ্রহকারী তরুণটি যথারীতি কাজ করছে তার ভ্যান নিয়ে। তার মুখে মাস্ক নেই, হাতে নেই দস্তানা। একটু পরই সবজিঅলার ভ্যান এলো, হাকডাক শুরু হলো। দু’একজন গৃহিণী দরদাম শুরু করলেন ওই ব্যালকনি থেকেই। সে যাক, বের হলাম অফিসের উদ্দেশে। রাস্তাঘাট একেবারেই সুনসান। কেবল পুলিশ আছে টহলরত। আর্মির একটা গাড়িও দেখা গেল। এই পুলিশ-আর্মি তো কাজে নেমে গেছে কোভিড-১৯-এর ভয় দূরে সরিয়ে রেখে। স্বাস্থ্যকর্মীরাও কি ঘর থেকে বের হননি! গ্যাস, পানি ও বিদ্যুত সরবরাহের সঙ্গে যারা নিয়োজিত, তারাও তো কাজে গেছেন। এদের কথা আমরা কয়জন ভাবি? পিএম অফিসের সামনে প্রায় গোসল হয়ে যাচ্ছিল। মোটা পাইপে ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত পানি ছিটানো হচ্ছে রাস্তায়। জেনেছি বহু জায়গায় গাড়ির মাধ্যমে ছিটানো হচ্ছে এই জীবাণুধ্বংসী তরল।

আমাদের ঢাকাবাসী এখন ঘরে বসে টিভি দেখছেন, ফেসবুকে রাজাউজির মারছেন। তবে গৃহিণীদের কথা আলাদা। তাদের বেশির ভাগই এখন বুয়াহারা, মানে গৃহকর্মী ও পাচিকাহীন। তাই সংসারের প্রতিটি কাজ তাকে করতে হচ্ছে। ছুটির কারণে যে পুরুষটি এখন ঘরবন্দী তিনি মাত্র ৩০ মিনিট তার ঘরনীর দিকে চোখ রাখুন। বুঝে যাবেন সংসারে কতশত ধরনের কাজ রয়েছে। আমি নিজে ঘরে থাকার সময়ে এটাসেটা কাজে গৃহিণীকে সাহায্য করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু তিনি নিরুৎসাহিত করেছেন। বলাবাহুল্য এটি প্রায় সব বাঙালী গৃহিণীরই মনমানসিকতা। তারা স্বামীকে দিয়ে পারতপক্ষে ঘরের কোন কাজ করাতে চান না, এক ধরনের সঙ্কোচ কাজ করে যাতে মেশানো থাকে মমতা ও মা-খালা-নানি-দাদির কাছ থেকে পাওয়া সংস্কার। অথচ বিদেশে গিয়ে দেখেছি বাঙালী নারীদের পরিবর্তন। পুরুষরাও বদলে গেছেন। বিদেশেই কেবল ঘরের কাজের সুষম বণ্টন রয়েছে।

ঢাকার দিনরাত এখন একাকার হয়ে গেছে। সব জায়গার ছবিই এক। তবে মীরপুরের তোলার বাগ, মোহাম্মদপুরের একটি এলাকা এবং আরও দু’এক জায়গার খবর বিশেষভাবে উল্লেখ করার মতো। তবে সে কথায় যাবার আগে সংবাদপত্র নিয়েই দু’একটা কথা বলতে চাই। এখন অফিস-আদালত বন্ধ, তাই সেসব স্থানে পত্রিকা বিলি হবে না। কিন্তু আবাসিক এলাকার ফ্ল্যাটবাড়িগুলোর পরিস্থিতি কি? আমি যেটায় ভাড়া থাকি সেই বহুতল ভবনে একমাত্র আমিই সংবাদপত্র রেখে আসছিলাম। অন্যরা মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে পত্রিকা রাখা বন্ধ করে দিয়েছেন। আমারটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে গেল হকার দেশের বাড়ি চলে যাওয়ায়। দু’একজন বন্ধুর প্রাসঙ্গিক অনুভব না বললেই নয়। আমার প্রাক্তন সহকর্মী যুগান্তরের সম্পাদকীয় বিভাগের প্রধান আসিফ রশীদ বললেনÑ বাসায় বিলি-বণ্টনের ব্যবস্থা নেই, রাস্তায় হকার নেই, স্টলগুলো বন্ধ। তবু আমরা পত্রিকা বের করে চলেছি। এর চেয়ে আহাম্মকি আর কী হতে পারে! আরেক স্নেহভাজন, দৈনিক দেশরূপান্তরের দায়িত্বশীল পদে কর্মরত মাহবুব মোরশেদ লিখলেন, পত্রিকাগুলো হাতে নিয়ে সকাল বেলা মন খারাপ হয়ে গেল। ২৪ পৃষ্ঠার পত্রিকা ১২ পৃষ্ঠা হয়ে গেছে। ২০ পৃষ্ঠার পত্রিকা ১২ কিংবা ১০ পৃষ্ঠা হয়ে গেছে। ১২ পৃষ্ঠার পত্রিকা ৮ পৃষ্ঠা হয়ে গেছে। একটা পত্রিকা প্রিন্ট বন্ধ করে শুধু অনলাইনে চলে গেছে। সামনে হয়ত আরও সঙ্কুচিত হবে পরিসর। সন্দেহ, দূরত্ব, অস্পৃশ্যতা, অবিশ্বাসের নতুন যুগে ঢুকে পড়লাম আমরা। এ অবস্থা দীর্ঘায়িত হলে কুড়ি বছর পর যে বাস্তবতা দেখার কথা ছিল সে বাস্তবতা হয়ত এ বছরই দেখতে পাব।

যা হোক, ঢাকার ছবি বদলে গেছে। আরেক স্নেহভাজন, নামকরা পত্রিকার উঁচুপদে কর্মরত একজন লিখলেন, ‘পান্থপথে দেখলাম, র‌্যাবের গাড়ি। সামনে শ’ খানেক মানুষ গায়ে গা লাগিয়ে বোঝার চেষ্টা করছে, ঘটনা কী। কারওয়ান বাজারে ন্যায্যমূল্যের ট্রাক। গায়ে গা লাগিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে মানুষ কেনাকাটা করছে। আমার ভয় হচ্ছে, এই যুদ্ধ ভয়ঙ্কর রূপ নিতে যাচ্ছে। আমরা সংক্রমণ ঠেকাতে পারব না। কেউ কথা শোনে না। কালকে টিভিতে দেখাল, সন্ধ্যার পর বাড়ি থেকে মানুষ বেরিয়েছে বাসায় থাকতে ভাললাগে না বলে। যাদের বাড়ি নাই, তাদের কথা আলাদা। গ্রামের বাড়িতে সকালে উঠে গরুগুলোকে খাওয়াতে হবে, মুরগিগুলোকে খেতে দিতে হবে, তাদের জীবনপ্রণালি আইসোলেশন, সামাজিক দূরত্ব মানবে না।

মোহাম্মদপুর ও টোলারবাগে ভবন কোয়ারেন্টাইন

টোলারবাগে একটি ভবনের একজন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার পর ভবনের বাসিন্দাদের হোম কোয়ারেন্টাইন করা হয়। পরে টোলারবাগের ৪০টি বাড়ি পুলিশি নজরদারিতে আনা হয়। কারণ যে ব্যক্তি মারা গেছেন, তিনি কার কাছ থেকে ভাইরাস বহন করেছিলেন, সেটি চিহ্নিত করা যায়নি। আইইডিসিআর জানিয়েছে, সেখানে আরও আক্রান্ত থাকতে পারেন।

অন্যদিকে মোহাম্মদপুরের কাদেরাবাদ হাউজিংসহ ওই এলাকার ৫৪টি ভবন একইভাবে পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে। বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতেই এই ব্যবস্থা। মোহাম্মদপুর থানার ওসি গণমাধ্যমেকে বলেন, আইইডিসিআরের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই এলাকায় করোনায় আক্রান্ত রোগী থাকতে পারে কিংবা আছে পুরো মোহাম্মদপুর এলাকার এ রকম ৫৪টি বাসার তালিকা আমরা পেয়েছি। ৫৪টি ভবনে লাল কালিতে মার্ক করেছে পুলিশ।

সুসংবাদ : দুটি নতুন করোনা হাসপাতাল

এই ক্রান্তিকালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য দুটি শিল্পগ্রুপ হাসপাতাল নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এটি বাঙালী সমাজের জন্য বিরাট সুসংবাদ। অথচ এর একটি নির্মাণের আগেই বাধার সম্মুখীন হয়। বাঙালী চরিত্র বোঝা দুষ্কর। তেজগাঁওয়ে আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল হলে এলাকার লোকের মধ্যে সংক্রমণ হবে এমন একটা ভাবনা থেকে বিরোধিতা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত ৩০১ শয্যার হাসপাতাল তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। রাজধানীর তেজগাঁওয়ে আকিজের নিজস্ব দুই বিঘা জমিতে হাসপাতালটি হচ্ছে। এটি তৈরি হচ্ছে তেজগাঁও-গুলশান লিংক রোডের শান্তা টাওয়ারের পেছনে। আকিজ সেখানে বিনামূল্যে রোগীদের চিকিৎসা দেবে। বসুন্ধরা গ্রুপের নিজেদের জায়গায় যে হাসপাতাল করার সিদ্ধান্ত নেয় রোববারে সেটি কমপক্ষে ৫০০০ শয্যার হবে। এসব উদ্যোগ অন্য শিল্পগ্রুপদেরও অনুপ্রাণিত করুক।

ঘরে বসে মানসিক চাপ

দমবন্ধকর একটা পরিস্থিতি। এর ভেতর সারাক্ষণ ঘরবন্দী। স্বাভাবিক কারণেই মনের ওপর চাপ বাড়বে। খুঁজছিলাম এমন কোন মনোবিদের বক্তব্য যার ওপর ভরসা করতে পারি, পেয়েও গেলাম। জনকণ্ঠে যোগ দেয়ার আগে ডেইলি স্টার ভবনে বসতাম, সাপ্তাহিক ২০০০ অফিসে। সে সময়ে মেখলা সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে অনুরোধ করেছিলাম পাঠকের মানসিক সমস্যার উত্তর দিতে। তিনি সানন্দে সম্মত হয়েছিলেন। সেই থেকে গড়ে ওঠে ব্যক্তিগত সম্পর্ক।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মেখলা সরকার মনে করেন, করোনাভাইরাস নিয়ে যে বাস্তবতা, সেটা মেনে নিতে হবে। করোনাভাইরাস সম্পর্কে আমাদের তেমন কোন ধারণা নেই। যে জিনিসটা আমরা আসলে জানি না, সেই জিনিসটা আমাদের মধ্যে এক ধরনের অনিশ্চয়তা তৈরি করে। অনিশ্চয়তা থেকে আমাদের মধ্যে এক ধরনের ভয় হয়। ভয়টা আতঙ্কে রূপ নিতে পারে। যখন মানুষের করার কিছু থাকে না, তখন কিন্তু মানুষের মধ্যে এক ধরনের অসহায়ত্ব তৈরি করে। অসহায়ত্ব মানুষের মধ্যে এক ধরনের মানসিক চাপ তৈরি করে। ব্যক্তি বিশেষে একেকজনের মানসিক চাপ একেক রকমের। কারও হয়ত বা সামান্য ভয় লাগছে, কেউ হয়ত বা শঙ্কার মধ্যে আছে, অনেকে সাংঘাতিক আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে যাচ্ছেন। যখনই উদ্বেগ, ভয় মাত্রা ছাড়িয়ে যাবে, তখন আমাদের মস্তিষ্ক বডি (শরীর) থেকে কিছু নিউরো কেমিক্যাল মোবিলাইজড করে। এটা যদি ক্রনিক হয়ে যায়, তখন আমাদের মধ্যে কিছু উপসর্গ তৈরি হয়। আমাদের যে ইন্টারনাল অর্গান সিস্টেম আছে, যেমন- ফুসফুস, লিভার, কিডনি, সেটাকে কিন্তু ইফেক্ট করবে। অনেকের মাথাব্যথা হতে পারে। কারও মাথা ঘোরাচ্ছে। কারও ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, ঘুম হচ্ছে না। অনেকের শ্বাসকষ্ট হতে পারে। এই শারীরিক সমস্যাগুলো তাঁদেরই বেশি হবে, যাঁরা আগে থেকে উদ্বেগপ্রবণ। অনেকে খিটখিটে হয়ে যাবে। অল্পতে রেগে যাবে। করোনাভাইরাসের এই কঠিন সময়টা আমাকে মেনে নিতে হবে। আমি যদি এটা মেনে না নিই, তাহলে কিন্তু আমি এটা ফেস করতে পারব না। এই পরিস্থিতি নতুন ধরনের একটা চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ আমাকে মোকাবেলা করতে হবে। জীবনের কোন কিছুই কিন্তু স্থায়ী না। যত দুঃসময় আসুক, এগুলো স্থায়ী না। এই পরিস্থিতি কিন্তু শেষ হবে। আমরা যদি খুব আতঙ্কগ্রস্ত হই, উদ্বিগ্ন হই, তাতে আমাদের কোন লাভ নেই। বরং ক্ষতিই হবে।

করোনাকাল : অনিবার্য বাইরে যাওয়াও

এক অভূতপূর্ব সময় এসেছে জাতির সামনে। স্পষ্ট করে বললে সমগ্র পৃথিবীতেই আজ ক্রান্তিকাল। রানীর মুকুটসদৃশ একটি ভাইরাস রক্তচক্ষু দেখাচ্ছে। মানছে না কোন নিয়ম। মানবদেহই তার আরাধ্য। যে কোন মানবদেহ। আক্রান্ত দেশগুলো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে, তারপরও যেন মনে হচ্ছে আরও কিছু প্রয়োজন। বাংলাদেশ সরকার ২৬ মার্চ থেকে দশ দিনের জন্য দেশবাসীকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে। কেননা ঘরের বাইরে গেলে এই রোগের বিস্তার ঘটতে পারে। ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে তাই ছিল না কোন আনুষ্ঠানিক আয়োজন। মানুষ ঘরে বসেই স্মরণ করেছে একাত্তরে পূর্বপুরুষদের আত্মত্যাগের কথা। নিজেকে বাঁচাতে হলে আমাদেরও কিছু কিছু ত্যাগ করতে হবে, সতর্ক ও সচেতন হতে হবে- এই বার্তা যেন সবার সামনে চলে এসেছে। এ মুহূর্তে গণমাধ্যমের দায়িত্ব বিরাট। একইসঙ্গে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরও করণীয় রয়েছে।

মানুষ ঘরে অবস্থান করছে। কিন্তু ঘরের বাইরেও যেতে হচ্ছে অনেককে জরুরী প্রয়োজনে। সার্বক্ষণিকভাবে ঘরে থাকার জন্য মানুষের ওপর বন্দিত্বের অনুভূতিসহ নানা মনোস্তাত্ত্বিক চাপ আসাটা স্বাভাবিক। এ সময়ে তার করণীয় সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকা চাই। একইসঙ্গে একান্ত জরুরী প্রয়োজনে পরিবারের কাউকে না কাউকে নিয়মিত বা অনিয়মিতভাবে ঘরের বাইরে যেতে হচ্ছে। ঘরের বাইরে বেরুনো ওই ব্যক্তিই যখন আবার ঘরে ফিরে আসছেন তখন তার নিজের ও পরিবারের সুরক্ষার জন্য নির্দিষ্ট করণীয় রয়েছে। এসব তথ্য ও বার্তা ঘরে ঘরে পৌঁছানোর জন্য গণমাধ্যমের ভূমিকাই প্রধান। তবে স্থানীয়ভাবে জনপ্রতিনিধিরও দায়িত্ব রয়েছে। তিনি কি সার্বক্ষণিকভাবে ঘরেই অবস্থান করবেন? এটি বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে। অনলাইনে বার্তা প্রেরণের সুবিধা এনে দিয়েছে ডিজিটাল বাংলাদেশ। তাই শুধু কম্পিউটার নয়, একইসঙ্গে টেলিভিশনের মাধ্যমে ভিডিও বার্তা দেয়া যায়। টেলিফোনেও তথ্যসহায়তা দেয়া সম্ভব। এসব বিষয়ে মানুষের ভোটে নির্বাচিত মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী হিসেবে স্থানীয় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির ভূমিকা গ্রহণের বিরাট সুযোগ রয়েছে। এমনকি শুধুমাত্র জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণের বিশেষ বিশেষ অংশ বার বার প্রচার করা যেতে পারে।

দিন এনে দিন খাওয়া শ্রমজীবী মানুষেরই কষ্ট বেশি। তাদের পাশে এসে দাঁড়াানোর আহ্বান জানাচ্ছেন কোন কোন মন্ত্রী। যিনি আহ্বান জানাচ্ছেন, তিনি মন্ত্রী হোন বা যে কোন মানুষ, তার নিজেকেও নিয়োজিত করতে হবে দরিদ্রের প্রত্যক্ষ উপকারে। প্রতিবেলায় খাদ্য নিশ্চিতই সবচেয়ে জরুরী বিষয়। এটি কিভাবে সম্ভব সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা থাকা চাই। কেননা এখন ঘরে থাকার সময় এবং ভিড় এড়ানোর সময়। একমাত্র স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সামাজিক সংগঠনের কর্তাব্যক্তিরাই জানেন তাদের এলাকায় কোন কোন ঘরে অভাবি মানুুষ রয়েছে। শহরাঞ্চলে বস্তিবাসীরা আছেন। তাদের প্রতিদিনের খাদ্যের যোগান কিভাবে আসবে, এটির সুরাহা যদি আমরা না করতে পারি তাহলে মানুষ হিসেবে আমরা নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব দাবি করব কিভাবে। তাই চাই উদ্যোগ, সঠিক ব্যবস্থাপনা।

করোনাকাল কেটে যাবে। কিন্তু যে দাগ রেখে যাবে সমাজে অর্থনীতিতে, তার প্রভাব কতদূর পর্যন্ত বিস্তৃতি পাবে সেটাই বড় ভাবনা।

২৯ মার্চ ২০২০

marufraihan71@gmail.com

শীর্ষ সংবাদ:
//--BID Records