সোমবার ৩ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বইয়ের সঙ্গে সখ্য তার

  • সাগর জামান

বাবলু বিশ্বাস পেশায় একজন নরসুন্দর। মাগুরা শহরের কলেজ রোডে তার সেলুন। বই পড়া তার প্রিয় শখ। বলা যায় বইয়ের সঙ্গে তার অটুট সখ্য। শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় বাবলুর প্রিয় লেখক। প্রচুর বই পড়েছেন তিনি। অব্যাহতভাবে এখনও পড়ে যাচ্ছেন। শরৎচন্দ্রের সব প্রকাশিত গ্রন্থ তিনি পাঠ করেছেন। ক্ষৌরকর্মের ব্যস্ততার ভেতর কখনও অবসর মিললে বাবলু বইয়ে নিমগ্ন হন। বই কিনে পড়েন। পড়া শেষ হলে অন্যকে পড়তে দেন। স্বল্প আয়ের এই বই অনুরাগী মানুষটি অর্থের অভাবে অনেক সময় বাকিতে বই কেনেন। বই ব্যবসায়ীর সঙ্গে যুক্তি করে বই ব্যবসায়ীর চুল ছেঁটে গোঁফদাড়ি কামিয়ে বইয়ের টাকা পরিশোধ করেন। এভাবে তিনি বই কেনেন কখন বাকিতে কখনও নগদে। শুধু এই নয়, অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তিনি বই উপহার দেন। তিনি বই জমিয়ে রাখেন না, ছড়িয়ে দেন অনেকের মাঝে। কেবল চিত্তবিনোদনের জন্য নয়, তিনি বই পড়েন জ্ঞানসাধনার জন্য। অজ্ঞতা দূর করার জন্য। পাশাপাশি সাহিত্যের সুমিষ্ট শিল্প স্বাদের নির্মল আনন্দলাভের জন্য। তিনি বই পড়েন উন্নত জীবনদর্শনের বোধে উদ্দীপ্ত হতে।

বই মানুষের ন্যায়-অন্যায় বোধকে জাগ্রত করে। তিনি প্রচুর বই পড়েছেন। এ থেকে তিনি এই ধারণা লাভ করেছেন। আর মানুষকে চিনতে শিখেছেন বই পড়ে। বই পড়ার মাধ্যমে গল্প উপন্যাসের অনেক চরিত্রের সঙ্গে পরিচিত হয়েছেন। বাস্তবে সে রকম চরিত্রের সন্ধান পেয়েছেন। ন্যায়-অন্যায়ের পার্থক্য বই পড়ে উপলব্ধি করতে পেরেছেন তিনি। তার যাপিত জীবনের নানা সঙ্কট অর্থাভাবের কষ্ট অসহায়ত্ব এই সবকিছুর মধ্য দিয়ে তিনি বই পড়েন। বই তাকে উদ্দীপিত করে। সাহস যোগায়। উজ্জীবিত করে । বই পড়ে বাবলু বুঝতে পেরেছেন মানুষকে শিক্ষা অর্জন করতে হবে অপরিহার্যভাবে। তার এই বোধ থেকে তিনি ছেলে শাওন বিশ্বাস ও কন্যা সোমা বিশ্বাসকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। প্রাণান্ত পরিশ্রম করছেন ওদের লেখাপড়ার ব্যয়ভার বহন করতে।

বই পড়ুয়া বাবলু বিশ্বাসের মতো মানুষেরা এখন হারিয়ে যাচ্ছে। প্রযুক্তি নির্ভর সভ্যতার প্রভাবে বই পড়ার অভ্যাস কমে যাচ্ছে। সব প্রযুক্তিকে স্বাগত জানিয়ে তার সুফল গ্রহণ করাটা যেমন জরুরী। তেমনি বাবলুর মতো বই পড়ার উদার উৎকৃষ্ট অভ্যাস ধরে রাখাটাও প্রয়োজন। কারণ ভাবনার জগতকে জ্ঞানের আলোয় উদ্ভাসিত করতে পারে একমাত্র বই-ই। বইয়ের কোন বিকল্প নেই।

মানুষ ক্রমাগত হিংস্র হয়ে যাচ্ছে। নৈতিক চরিত্রের গুণাবলী হারিয়ে ফেলছে। হিংসা-বিদ্বেষ মানুষের ভেতর বাসা বেঁধেছে। কেবল প্রতিহিংসায় জড়িয়ে পড়ছে সবাই। বিনোদন মানে টেলিভিশন আর ফেসবুকের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। এই অবস্থার জন্য অনেকাংশে মানুষের বই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়াকে দায়ী করা যায়। মানুষের অভ্যাসগত পরিবর্তন মানুষের ভেতর ককপটতা এনে দিয়েছে, প্রযুক্তির ভুল ব্যবহার মানুষের ক্ষতি বৃদ্ধি করছে। মানুষ ভোগ-বিলাসীতায় মশগুল হয়ে পড়েছে। অর্থ আর ক্ষমতার মোহে ছুটছে সবাই। চেতনা ও চিন্তার বদল ঘটেছে। সুস্থ ভাবনা থেকে বিচ্যুত হয়ে যাচ্ছে। বই মানুষকে উচ্চতর ভাবনায় ভুবনে নিয়ে যেতে সাহায্য করে। বই বোধের উৎকর্ষ সাধন করে। বই প্রণয়ী বাবলুর জন্য নিরন্তর শুভেচ্ছা জানাই।

শীর্ষ সংবাদ:
শেখ রাসেল দিবস আজ, পালিত হবে জাতীয়ভাবে         কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শীঘ্রই গ্রেফতার করা হবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         যারা সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করে তারাই কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে ॥ তথ্যমন্ত্রী         রাঙ্গামাটিতে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীকে গুলি করে হত্যা         শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখর ঢাবি ক্যাম্পাস         অবশেষে সেই ‘আস্তিনের সাপ’ গ্রেফতার ॥ জামিন নাকচ         চট্টগ্রামে বাসায় বিস্ফোরণ, দেয়াল ভেঙ্গে নিহত ১         বিএনপি সাম্প্রদায়িক অপশক্তির নাম্বার ওয়ান পৃষ্ঠপোষক         রোহিঙ্গা ও আটকেপড়া পাকিস্তানিরা দেশের বোঝা : প্রধানমন্ত্রী         গ্লোব-জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের বিপুল অর্থ লোপাটকারী সেই তোফায়েল আহমদ গ্রেফতার ॥ জামিন নামঞ্জুর         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৬         পিইসি ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা হচ্ছে না         প্লাস্টিক ম্যানেজমেন্ট প্ল্যান চূড়ান্ত         জলবায়ু ইস্যুতে লক্ষ্য অর্জনে ইইউকে পাশে চায় বাংলাদেশ         আগামী ২১ অক্টোবর থেকে সাত কলেজের ক্লাস শুরু         পিপিপিতে হচ্ছে না ঢাকা-চট্টগ্রাম এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ         ৯০ হাজার টন সার কিনবে সরকার         আগামী ২০ অক্টোবর ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি         এবার হচ্ছে না লালন মেলা         বৈরী আবহাওয়ায় সেন্টমার্টিনে আটকা পড়েছেন ২৫০ পর্যটক