ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০

কানাডার ভিজিট ভিসা পেতে যা জানা দরকার

প্রকাশিত: ১৭:২৬, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩; আপডেট: ১৮:১১, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩

কানাডার ভিজিট ভিসা পেতে যা জানা দরকার

কানাডা

জীবন মানের বিবেচনায় কানাডা অবস্থান শীর্ষ তিনে। কানাডা বিশ্বের অভিবাসীদের এক নম্বর পছন্দনীয় দেশ হিসেবে এরই মধ্যে ব্যাপক পরিচিতি। উন্নত জীবনযাপন, চাকরি বা পড়াশোনার জন্য কানাডা বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় দেশ। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর প্রায় সব দেশের শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রথম পছন্দ কানাডা। এছাড়া অনেকে ভ্রমণের জন্য কানাডায় যেতে চায়।

ভ্রমণ প্রিয় মানুষদের পছন্দের একটি দেশ হচ্ছে ম্যাপেল পাতার দেশ কানাডা। নায়াগ্রা জলপ্রপাত কিংবা ব্যানফ ন্যাশনাল পার্কের মতো পপুলার ট্যুরিস্ট স্পটগুলোর জন্য এটি সর্বদাই ভ্রমণ প্রিয় মানুষদের পছন্দের শীর্ষে থাকে। অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধার কেন্দ্রস্থল হিসেবে কানাডার শহরগুলোর রয়েছে আলাদা আবেদন, বিশেষ করে টরন্টো, কুইবেক, ভ্যানকুভার ইত্যাদি শহরের পপুলারিটি প্রায় সবারই চোখে পড়ে। 

কী কী ধরনের ভিসা দেয় কানাডা? 
কানাডার সরকারের বিভিন্ন ধরনের অভিবাসন কর্মসূচি রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে-
* ভ্রমণ ভিসা
* শিক্ষার্থী ভিসা
* কর্ম ভিসা
* স্থায়ী বসবাসের ভিসা

ভ্রমণ ভিসা
ভিজিটর ভিসা অস্থায়ী আবাসিক ভিসা নামেও পরিচিত। ভ্রমণ ভিসায় কানাডা যাওয়া সহজ। কানাডায় ইন্টারভিউ হয় নাহ। পেপার জমা দিতে হয় VFS এ। যাচাই বাছাই করে তার পর ভ্রমণ ভিসা দেয়।

কানাডার ভ্রমণ ভিসা পাবেন যেভাবে
১.অনলাইনে ভিসা ফরমে আপনার নিজের পেশাগত, ভ্রমণ সংক্রান্ত, পরিবারের তথ্যসমূহ সঠিকভাবে দিতে হবে।

২. আপনি যদি প্রথমবারের মতো কানাডার ভিসার জন্য আবেদন করেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই বায়োমেট্রিক জমা দিতে হবে। কানাডা ভিসা-র জন্য বায়োমেট্রিক দেয়া বাধ্যতামূলক। বাংলাদেশে কানাডা-র বায়োমেট্রিক পার্টনার ভিএফএস গ্লোবালের ঢাকা, সিলেট এবং চট্টগ্রামের অফিসের গিয়ে আপনাকে ছবি তোলা ও আঙ্গুলের ছাপ দিতে হবে।

৩. আবেদনের পর সাধারণত ভ্রমণ ভিসার জন্য ১ থেকে ২ মাস এবং অভিবাসী ভিসার জন্য ৬ মাস থেকে ২ বছর পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। তবে অভিবাসী ভিসার অনেক রিকোয়ারমেন্ট রয়েছে, সেগুলো অবশ‍্যই আপনাকে পূরণ করতে হবে। ভ্রমণ ভিসার জন্য কঠিন কোন শর্ত সাধারণত নেই।

কানাডায় স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে চাইলে
৪. ভিসা এপ্রুভ হলে আপনি ইমেইলেই নোটিফিকেশন পাবেন। এরপর ভিসা অ্যাপ্রুভাল লেটারসহ ভিএফএস গ্লোবালে পাসপোর্ট জমা দিতে হবে। ১০ দিন পর ভিসা সহ পাসপোর্ট ফেরৎ পাবেন। ভ্রমণ ভিসা সাধারণত ১০ বছরের জন্য ইস্যু করা হয়।

অন্যান্য দেশের বেশিরভাগ বিদেশিকে কানাডার সরকারের ওয়েবসাইট থেকে অবশ্যই একটি ইলেক্ট্রনিক ট্রাভেল অথরাইজেশন (ইটিএ) সংগ্রহ করতে হবে। যা আপনি অনলাইনে আবেদন করার পর কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে পেতে পারেন।কানাডা ভ্রমণে যাওয়ার জন্য আপনার ভিসার প্রয়োজন আছে কিনা তা জানতে ক্লিক করুন 

কানাডার ভ্রমণ ভিসা পাওয়ার জন্য আপনাকে যা দেখাতে হবে
* ভ্রমণের পুরো সময়জুড়ে আপনার ব্যয় নির্বাহ করার সক্ষমতা
* ভ্রমণ শেষে কানাডা ত্যাগ করার নিশ্চয়তা

কানাডায় ভ্রমণ ভিসার জন্য কী কী যোগ্যতা লাগে?
কানাডা ভ্রমণ ভিসার প্রার্থীর ইতিপূর্বে বেশ কয়েকটি দেশে ভ্রমণ থাকলে ভালো। পাশাপাশি আপনার পেশাগত, সামাজিক এবং পারিবারিক টাই থাকতে হবে। এ ছাড়াও একজন আবেদনকারীকে তার অর্থনৈতিক সক্ষমতাও প্রমাণ করতে হয়, তাই আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে নিয়মিত লেনদেন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কানাডায় স্থায়ী বসবাসের সুযোগ পাওয়ার উপায় কী?
আপনি যদি কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাস করতে চান, তাহলে কানাডিয়ান কর্তৃপক্ষকে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার মাধ্যমে কীভাবে তারা উপকৃত হবে, সেটি উপস্থাপন করতে হবে। তাছাড়া  আপনার পরিবারের কোনও সদস্য যদি আগে থেকেই কানাডায় বসবাস করে থাকে, তাহলে তা স্থায়ী বসবাসের অনুমতির আবেদন করতে পারেন। আপনি যদি কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসের যোগ্য হন, তাহলে দেশটির সরকার আপনাকে একটি কার্ড দেবে। যা পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট বা পিআর কার্ড নামে পরিচিত। আর এই কার্ড পাওয়ার পর আপনি যখন কানাডায় যাবেন, তখন সেখানকার কর্মকর্তাদের কাছে আপনাকে এই কার্ড ও পাসপোর্ট প্রদর্শন করতে হবে।

 

এসআর

×