ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১

শৈশবের ঈদ একেবারেই আলাদা

সেলিনা হোসেন

প্রকাশিত: ২২:০৩, ১৪ জুন ২০২৪

শৈশবের ঈদ একেবারেই আলাদা

.

জগতে যত আনন্দ আছে ঈদ তার ব্যতিক্রম। ঈদের আনন্দ সব সময়ই একটু ভিন্ন। একটু অন্যরকম। ঈদ মানেই তো আনন্দ! ঈদ মানে খুশি! তাই নিয়ে বিশদ আলোচনা আর কী হবে! কিন্তু আলোচনা হয়। হবেও। কারণ আনন্দ সবসময় মানুষের কাক্সিক্ষত। সবসময় মানুষের চাওয়ার। মানুষ আনন্দ পেতে চায়। আনন্দে থাকতে চায়। একইভাবে আনন্দ দিতে এবং নিতেও চায়।

তবে আমার শৈশব-কৈশোরের আনন্দ এখনকার মতো ছিল না। আর এটা হয়ও না। কারণ এক একটা শৈশব এক এক রকম। একেকজনের একেক পরিবেশ। পারিবারিক, সামাজিক এবং পারিপার্শ্বিক পরিবেশ প্রত্যেকেরই আলাদা। ফলে সবার অনুভূতিও এক নয়। আনন্দ গ্রহণের ক্ষমতাও একরকম থাকে না। থাকবেও না। আমাদের কিশোরকালে এখনকার মতো এতো দালান-কোঠা এবং আলিশান ভবন তো ছিল না। আমাদের ছিল সরল মেঠোপথ। ধানক্ষেত। পাটক্ষেত এবং মশুরির ক্ষেত। গ্রাম আর সবুজে ঘেরা ছিল চারপাশ। মজার এক শৈশব কাটিয়েছি আমরা।

শৈশবের ঈদ ছিল একেবারেই আলাদা, আনন্দে ঘেরা। নতুন জামা পেলে কি যে আনন্দ পেতাম তা বলে বোঝাতে পারব না। একটি কথাই বলব, সুন্দর একটি সময় ফেলে এসেছি। চাইলেও সে সময়ে ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়। খুব মনে পড়ে আমার প্রিয় শৈশবকে, শৈশবের আনন্দকে। মনে হয় সব মানুষেরই মনে পড়ে ফেলে আসা পথগুলো!

×