বৃহস্পতিবার ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচনী সহিংসতায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৪ জন

ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচনী সহিংসতায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৪ জন
  • অজ্ঞাত ৭শ’ জনের বিরুদ্ধে মামলা করায় গ্রেফতার আতঙ্কে পুরুষশূন্য তিনটি গ্রাম

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঠাকুরগাঁও ॥ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জের খনগা ইউনিয়নে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় বিজিবির গুলিতে আহত চারজনের মধ্যে রহিমা বেগম (৩৫) নামের আরো একজন মারা যাওয়ায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ছাত্র ও মহিলাসহ চারজনে। সোমবার রাতে দিনাজপুর ম্যাডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় রহিমার। তিনি পীরগঞ্জ উপজেলার খনগাঁও ইউনিয়নের ঘিডোবপুরের আব্দুল বাকির স্ত্রী। এরফলে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এদিকে স্বজন হারানোর শোক সামলে ওঠার আগেই পুলিশ অজ্ঞাতনামা ছয়-সাতশ’ জনের বিরুদ্ধে মামলা করায় গ্রেফতার আতংকে ওই ইউনিয়নের ঘিডব, হাবিব পুর, সিটঘিডব গ্রাম পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে দেখা যায়, ঘিডোব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দেওয়ালে গুলি ও রক্তের চিহ্ন লেগে আছে। সে স্কুলটি এবার তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল। কেন্দ্রের আশপাশের এলাকায় বর্তমানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। নেই কোন মানুষের জটলা। স্থানীয় দোকানপাট গুলোও বন্ধ। অপরিচিত মানুষ দেখলেই ভয়ে সরে যাচ্ছেন ওই এলাকার মহিলাসহ বৃদ্ধগন। গ্রাম ঘুরে কিছু ষাটোর্ধ বৃদ্ধ ও বয়স্ক ছাড়া আর কোনো পুরুষের দেখা পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন নারী জানান, ঘিডোব শান্ত প্রকৃতির একটি গ্রাম। কিন্তু ভোটের সঠিক ফলাফলের দাবি করাই আমাদের হয়তো ভুল হয়েছে। আমরা সংঘাত চাইনি। তবুও এ নির্বাচনটি আমাদের জন্যে দুঃস্বপ্নের মত এসেছে। আমরা নারীরাও ভয় পাচ্ছি। আমরাও নিজেদের নিয়ে আটকের শঙ্কায় আছি। তবে ভিটার মায়ায় যেতে পারিনি।

তারা আরও বলেন, আমরাই মরলাম আবার আমরাই মামলার শিকার হলাম। মামলাটি করা হয়েছে হয়রানী করার জন্য। স্বজন হারানোর ব্যাথা আবার গ্রেফতারের ভয়ে আমাদেরই থাকতে হচ্ছে। আহত স্বজনের চিকিৎসার খরচ আমাদের নিম্ন আয়ে সম্ভব না। উপরন্তু পালিয়ে থাকার কারণে খাবারের জন্য অর্থ উপার্জন বন্ধ হয়ে গেছে। তারা এই মামলা প্রত্যাহার দাবি করেছেন।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, নির্বাচনের রাতে সরকারি কাজে বাঁধা প্রদান ও সহিংসতার অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। তবে এখনও কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি এবং সুনিদিষ্ট অভিযোগ ছাড়া কাউকে গ্রেফতার করা হবে না।

শীর্ষ সংবাদ:
অবশেষে অনশন ভঙ্গ ॥ শাহজালালের ঘটনায় কিছুটা স্বস্তি         শিক্ষার্থীদের সব দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস শিক্ষামন্ত্রীর         দেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে         বিএনপি ৮ লবিস্ট নিয়োগ দিয়েছিল         ওমিক্রন মোকাবেলায় আসছে নতুন গাইডলাইন         রাজধানীসহ কোন কোন এলাকায় ভারি বৃষ্টি, জনদুর্ভোগ         অপরাধ দমনে কাজের স্বীকৃতি পেল পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট         অর্থ পাচার রোধে দক্ষিণ কোরিয়ার মতো কঠোর আইন প্রয়োজন         এগিয়ে চলাকে স্তব্ধ করতে নানা ষড়যন্ত্র চলছে         অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে আরও তিন বছর লাগবে         তদন্ত এগোনোর পর এখনও এজাহার জটিলতার নেপথ্যে -         বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিক্সার ৫ যাত্রী নিহত         আসছে নতুন শিক্ষাক্রম, সময়মতো চালুর বিষয়ে শঙ্কা         নগ্ন ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে টাকা দাবি         বাংলাদেশের গ্রামীণ হাসপাতাল পেল বিশ্ব সেরার স্বীকৃতি         ওমিক্রনরোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নতুন গাইডলাইন         শাবিপ্রবি সংকট : শিক্ষার্থীদের সব দাবি বাস্তবায়ন হবে ॥ শিক্ষামন্ত্রী         জামিন পেলেন শাবিপ্রবির সাবেক ৫ শিক্ষার্থী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৭, শনাক্ত ১৫৫২৭         ‘শাবির ঘটনায় পুলিশের দায় থাকলে ব্যবস্থা’