সোমবার ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ নভেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯ পাটকলে বকেয়া ৭৫ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলে শ্রমিক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বকেয়া মজুরি এবং বেতন ৭৫ কোটি ১৪ লাখ ৭০০ টাকা। আর এসব পাটকলে প্রায় ৩২৫ কোটি টাকা মূল্যের পাটজাত পণ্য মজুদ রয়েছে। বিদেশে বাজার মন্দা হওয়ার কারণে এসব পণ্য বিক্রি হচ্ছে না।

এদিকে শ্রমিকদের অব্যাহত কর্মবিরতি আর অবরোধের কারণে ৮ দিনে খুলনা-যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলে পণ্য উৎপাদন বন্ধ থাকায় ৮ কোটি টাকার লোকসান হয়েছে।

বকেয়া মজুরি প্রদান ও মজুরি কমিশন বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি না মানায় খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি জুট মিলের শ্রমিকরা কারখানার উৎপাদন বন্ধ রেখে গত ৫ মে থেকে কর্মবিরতি এবং রাজপথ ও রেলপথ অবরোধ কর্মসূচী পালন করছেন।

বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন (বিজেএমসি) সূত্র জানায়, খুলনা ও যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি জুট মিলের শ্রমিকদের ১২ সপ্তাহের মজুরি এবং কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের ৩-৪ মাসের বেতনসহ ৭৫ কোটি টাকার বেশি বকেয়া পড়েছে। এরমধ্যে শুধু শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি রয়েছে ৫৮ কোটি ৭০ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এছাড়া, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গত চার মাসে ১৬ কোটি ৪৪ লাখ ১৭ হাজার টাকা বকেয়া বেতন রয়েছে। মজুরি ও বেতন না পেয়ে পাটকলগুলোর শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। মিল সূত্রে জানা গেছে, ৯টি জুট মিলের প্রতিদিনের উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২৭২ টন। সেখানে প্রতিদিন উৎপাদন হচ্ছে ১০০.২৯ টন। এ পরিমাণ পাটজাত পণ্যের বাজার মূল্য ৮০-৮৫ লাখ টাকা। সেই হিসেবে ৮ দিনে প্রায় ৮ কোটি টাকার পাটপণ্য উৎপাদন বঞ্চিত হয়েছে। বর্তমানে পাটকলগুলোয় মাত্র ৪৭ হাজার ৭৪৭ কুইন্টাল কাঁচাপাট মজুদ রয়েছে, যা দিয়ে মাত্র ১৫ দিন পাটকলগুলোর উৎপাদন চলতে পারে। এছাড়া, মিলগুলোতে ৩২ হাজার ৬৬০ টন হেসিয়ান, সেকিং, সিবিসি ও ইয়ার্ন পাটজাতপণ্য মজুদ আছে। সূত্র আরও জানায়, ৯টি পাটকলে প্রায় ৩২৫ কোটি টাকার পাটজাত পণ্য মজুদ রয়েছে। বাংলাদেশের পাটজাত পণ্যের মূল বাজার হচ্ছে সুদান, ঘানা, সিরিয়া, ইরান ও ভারত। কিন্তু গত এক বছরে ওই দেশগুলোতে বাংলাদেশের পাটজাত পণ্য রফতানি বন্ধ রয়েছে। ফলে পাটকলগুলো চরম আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে।

বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন খুলনা অঞ্চলের সমন্বয়কারী (লিয়াজোঁ কর্মকর্তা) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের মজুরি-বেতন বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এ কারণে তাদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ করার চেষ্টা করছে। আশা করি, খুব দ্রুতই এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’

প্রসঙ্গত, বর্তমানে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলে ১৪ হাজার ৫২৫ স্থায়ী, ১৮ হাজার অস্থায়ী এবং ৫২২ বদলি শ্রমিকসহ ৩৩ হাজার ৪৭ শ্রমিক এবং ১ হাজার ১৮৭ কর্মচারী কর্মরত রয়েছেন।

শীর্ষ সংবাদ:
দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে         ব্যাটিং ব্যর্থতায় ম্লান বোলিং সাফল্য         মিল্কি ওয়ের প্রথম ‘পালক’         সরকারী কাস্টডিতে নেই খালেদা, তিনি মুক্ত         ঢাকায় বিশ্ব শান্তি সম্মেলন ৪ ডিসেম্বর শুরু         ওমিক্রন প্রতিরোধে সতর্ক অবস্থায় সারাদেশ         সাদা পোশাকে দেশে সবার ওপরে মুশফিক         সাগরে জলদস্যুতায় যাবজ্জীবন দন্ড         গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন, ৪১ বছর পূর্তির আয়োজন         কুয়েতে পাপুলের সাত বছরের কারাদন্ড         পাকি প্রেম দূরে রাখুন         বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ         ‘মোকাবেলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে ’         তৃতীয় ধাপের সহিংসতাহীন নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে দাবি ইসির         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩         করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সতর্কবার্তা         পরিবহন সেক্টর কার নিয়ন্ত্রণে : জি এম কাদের         সংসদে নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন আনা হচ্ছে শিগগিরই ॥ আইনমন্ত্রী         বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদির ৩০ কোম্পানি         আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে নগর পরিবহন চালু সম্ভব নয় : মেয়র তাপস