সোমবার ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

কৃষকের ১০ টাকার হিসাবে ২২৩ কোটি টাকা

  • এ্যাকাউন্টের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯০ লাখ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণ কর্মসূচীর আওতায় কৃষকদের জন্য ব্যাংকগুলো দশ টাকার হিসাব খেলে। এতে ডিসেম্বর ’১৬ শেষে ব্যাংক হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯০ লাখ ৪৩ হাজার ৫৮৯টি। এসব বিশেষ হিসাবে জমা হয়েছে ২২৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে। তথ্যে দেখা যায়, দশ টাকার কৃষকের হিসাবের মধ্যে ২০ হাজার ৭০১টির মাধ্যমে উপকারভোগীদের মাঝে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিজস্ব ২০০ কোটি টাকার তহবিল থেকে ৪৪ কোটি ২৫ লাখ টাকা পুনঃঅর্থায়ন করা হয়েছে। ব্যাংকিং সুবিধাবঞ্চিতদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় ১০, ৫০ ও ১০০ টাকার বিনিময়ে এ্যাকাউন্ট খোলার সুযোগ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ২০১০ সাল থেকে একের পর এক নির্দেশনার মাধ্যমে কৃষকসহ আর্থিক সেবা প্রত্যাশী জনগোষ্ঠীর জন্য এ ধরনের এ্যাকাউন্ট খোলা হচ্ছে। এসব হিসাব সচল রাখতে ২০১৫ সালে ২০০ কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন তহবিল করা হয়েছে। যেখান থেকে মাত্র ৯ শতাংশ সুদে ঋণ নেয়ার সুযোগ রয়েছে।

সমাজের সুবিধাবঞ্চিত ও আর্থিক সেবাবহির্ভূত জনগোষ্ঠীকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় নিয়ে আসতে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এতে কৃষক, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর ভাতাভোগী, মুক্তিযোদ্ধা, ক্ষুদ্র জীবন বীমা পলিসি গ্রহীতা, অতিদরিদ্র উপকারভোগী, অতিদরিদ্র মহিলা উপকারভোগী, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচীর সুবিধাভোগী, তৈরি পোশাক শিল্পে কর্মরত শ্রমিক, চামড়া ও পাদুকা শিল্পজাত কারখানায় কর্মরত শ্রমিক, স্কুলের শিক্ষার্থী, কর্মজীবী পথশিশু-কিশোর, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর ন্যূনতম ১০, ৫০ এবং ১০০ টাকা জমাকরণের মাধ্যমে তফসিলী ব্যাংকগুলো হিসাব খোলার বিশেষ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। এসব হিসাব হতে গ্রাহক পর্যায়ে ব্যাংককে কোন চার্জ বা ফি প্রদান করতে হয় না।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ডিসেম্বর ’১৬ পর্যন্ত আর্থিক অন্তর্ভুক্তিমূলক কর্মসূচীর আওতায় কৃষকের হিসাব ছাড়াও অন্যান্য বিশেষ হিসাবের সংখ্যা ১ কোটি ৬৭ লাখ ৫৫ হাজার ২৫৮টি। এর মধ্যে পথশিশু ও কর্মজীবী শিশু-কিশোরদের খোলা এ্যাকাউন্টে জমা রয়েছে ২৪ লাখ ৪২ হাজার টাকা। এ্যাকাউন্টের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৭২৫টি। ২০১৪ সালের মার্চে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে দেওয়া নির্দেশনার আলোকে ব্যাংকগুলো পথশিশুদের জন্য এ্যাকাউন্ট খুলছে। এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি এ্যাকাউন্ট খুলেছে রাষ্ট্রীয় মালিকানার রূপালী ব্যাংক। ব্যাংকটিতে খোলা হিসাবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৭টি। যেখানে জমা রয়েছে ১০ লাখ ১৯ হাজার টাকা। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা পূবালীর ৫৪৬ হিসাবে জমা পড়েছে ৪ লাখ টাকা। আর তৃতীয় অবস্থানে থাকা অগ্রণী ব্যাংকের ৩১৯টি হিসাবে মধ্যে রয়েছে ৪০ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে গত ডিসেম্বর পর্যন্ত এ ধরনের এ্যাকাউন্টের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৬৭ লাখ ৫৫ হাজার। যেখানে জমা রয়েছে ১ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি হিসাব রয়েছে কৃষকদের। কৃষকদের নামে খোলা ৯০ লাখ ৪৩ হাজার এ্যাকাউন্টে জমা রয়েছে ২২৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। সামাজিক নিরাপত্তাসূচীর আওতায় খোলা ৪২ লাখ ৪২ হাজার এ্যাকাউন্টে রয়েছে ৩৬০ কোটি টাকা। আর অতি দরিদ্রদের ২২ লাখ ১২ হাজার অ্যাকাউন্টে রয়েছে ২৭৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা, পোশাক শ্রমিক, দুস্থ, পরিচ্ছন্ন কর্মী, ক্ষুদ্র জীবন বীমার পলিসি গ্রহীতা, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীসহ অন্যদের হিসাবে জমা রয়েছে বাকি অর্থ।

শীর্ষ সংবাদ:
প্রস্তুত স্বপ্নের পদ্মা সেতু         পাম তেল রপ্তানিতে ইন্দোনেশিয়ার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার         বাংলাদেশের কাছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল বিক্রি করতে চায় রাশিয়া         রাজধানীতে ট্রাকে পণ্য বিক্রি করবে না টিসিবি         মাঙ্কিপক্স মোকাবেলায় বিমানবন্দরে পরীক্ষা হবে         করোনায় দুই জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩১         পি কে হালদারকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে : আইজিপি         আঞ্চলিক সংকট মোকাবিলায় ৫ প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর         হাজী সেলিমকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি         নর্থ সাউথের ৪ ট্রাস্টিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ         মাঙ্কিপক্স: বেনাপোল বন্দরে সতর্কতা জারি         টাকার মান কমল আরও ৪০ পয়সা         শ্রমিকদের ৪০০ কোটি টাকা দিলেন ড. ইউনূস, মামলা প্রত্যাহার         ‘বিদেশ থেকে পাঠানো টাকার উৎস জানা হবে না’         আত্মসমর্পণের পর কারাগারে প্রদীপের স্ত্রী চুমকি         আট দিন পর বড় উত্থানে পুঁজিবাজার         চুয়াডাঙ্গায় পাউবোর উন্নয়নমূলক কাজে ব্যবহার হচ্ছে ৪২ বছর আগের পুরাতন ইট         পাগলের বেশে মোটর সাইকেল ছিনতাইকারী চক্রের সন্ধান পেয়েছে গাজীপুরের পিবিআই         মুন্সীগঞ্জের ১০ গ্রামে সহিংসতায় ৫ গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫         ইউক্রেন ইস্যুতে বাংলাদেশের ভূমিকায় রাশিয়ার কৃতজ্ঞতা