ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯

ঝুপড়ি ঘরে আনোয়ারা বেগমের মানবেতর জীবন

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাকেরগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৯:২৬, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

ঝুপড়ি ঘরে আনোয়ারা বেগমের মানবেতর জীবন

ঝুপড়ি ঘরে অনাহারে বসবাস অসহায় বিধবা আনোয়ারা বেগমের। ছবি: জনকণ্ঠ

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকায় ভাঙা টিনের চালার উপরে পলিথিনের চালা বিছিয়ে ঝুপড়ি ঘরে অনাহারে বাস করছেন অসহায় বিধবা আনোয়ারা বেগম। ভাগ্যে জোটেনি সরকারি-বেসরকারি কোনো সহায়তা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ক্লান্ত বিধবা বৃদ্ধ এই নারী। 

বাকেরগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের রতনা আমিন কলেজ সংলগ্ন মৃত আইয়ুব আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম। দুই ছেলে এবং এক মেয়ে থাকলেও কেউ তেমন কোনো খোঁজ রাখতে পারছেনা দারিদ্রতার কারণে। রিকশা চালক ছেলে হুমায়ুন নিজেই অসুস্থতায় বছরের পর বছর ভুকছে, টাকার অভাবে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছে না।

দারিদ্রতার সঙ্গে জীবন-যুদ্ধে ৮০ বছর পার করলেও এখন পর্যন্ত তার ভাগ্যে জোটেনি বয়স্ক ভাতা, রেশন কার্ড কিংবা মাথা গোঁজার মতো ঠাঁই।

জানতে চাইলে কান্নাজড়িত কণ্ঠে আনোয়ারা বেগম বলেন, ‘আমার খোঁজখবর নিয়া কি হইবে, দীর্ঘদিন অসুখে থাইকা মারা গেছে স্বামী। এখন ছেলেটায় রিকশা চালায়, তারও বড় অসুখ। টাকার জন্য মোরা ডাক্তার দেখাতে পারিনা। মোগো আল্লা ছাড়া দেখার কেউ নাই। না খাইয়া থাকলেও বাবা কেউ খবর নেয় না। কমিশনারে আইসা একবার বাড়ির ছবি তুলে নিছে ঘর দেবে, কই আর তো দেখলাম না তারে। এই রহমের ছবি তুইল্লা কত মাইনষে নেছে কেউ তো কিছু দিলো না। মোগো পোড়া কপালে সুখ আর হইবো না।’ 

প্রতিবেশী নরেজ হাওলাদার জানান, বৃষ্টি-বাদলের দিন খুব কষ্ট হয় এই বিধবা আনোয়ারা বেগমের। তিনি অতি দরিদ্র হলেও তার ভাগ্যে জোটেনি বিধবা বয়স্ক ভাতা। 

সরেজমিনে আজ বিধবা আনোয়ারা বেগমের বাড়িতে দেখা যায়, কোনো রকমে পলিথিন দিয়ে তৈরি ছোট একটি ঝুপড়ি ঘরে থাকেন তিনি। নেই ঘরের বেড়া, ঘরে শুয়ে শুয়ে আকাশ দেখা যায়। যেদিন রাতে বৃষ্টি আসে সেদিন বিছানার এক কোণে বসে রাত কাটান তিনি। বৃষ্টির পানিতে সব কিছু ভিজে যায়। বর্তমানে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তিনি। একটি ঘরের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সজল চন্দ্র শীল জানান, বিধবা আনোয়ারা বেগমের বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না। সরজমিনে গিয়ে আনোয়ারা বেগমের খোঁজখবর নিয়ে সহযোগিতা ও সরকারি ঘর দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। 
 

এমএইচ

সম্পর্কিত বিষয়: