ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর

তোফায়েল আহমেদ

প্রকাশিত: ২০:৩৩, ৩০ নভেম্বর ২০২২

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামারুজ্জামানের অমর স্মৃতি স্মরণ করি গভীর শ্রদ্ধায়। জাতীয় চার নেতা জীবনে-মরণে বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকেছেন। কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে থেকেছেন, মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছেন, কিন্তু বেইমানি করেননি। ইতিহাসের পাতায় তাঁদের অবদান লেখা থাকবে স্বর্ণাক্ষরে। প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য তাঁরা যে আত্মদান করেছেন, সেই আত্মদানের ফসল স্বাধীন বাংলাদেশ। সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে জাতীয় নেতৃবৃন্দের বীরত্বপূর্ণ অবদানের কথা সর্বত্র স্মরণ করা উচিত। জাতীয় ইতিহাসের গৌরবময় দিনগুলো স্মরণ করে জাতীয় মর্যাদা ও গৌরব বৃদ্ধিই হোক আমাদের অঙ্গীকার।
১৯৭১-এর ডিসেম্বরে আমরা বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে। মুজিববাহিনীর অন্যতম প্রধান হিসেবে তখন আমি বর্ডারে বর্ডারে ঘুরে মুজিববাহিনীর সদস্যদের উদ্বুদ্ধ করতাম। ভারতের দেরাদুনে আমাদের ট্রেনিং হতো। হেডকোয়ার্টার ছিল ব্যারাকপুর। আমাদের ছেলেরা দেরাদুনে ট্রেনিংপ্রাপ্ত হয়ে বিমানে করে কলকাতা আসত। তাদের ব্যারাকপুরে নিয়ে যেতাম। ব্যারাকপুর ক্যান্টনমেন্টের মধ্যে তাদের রেখে পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে রণাঙ্গনে প্রবেশ করাতাম। যেটাকে বলে ইনডাকশন। স্মৃতির পাতায় আজ ভেসে উঠছে কতজনকে বুকে টেনে নিয়ে কপালে চুমু খেয়ে রণাঙ্গনে পাঠিয়েছি। তাদের অনেকের সঙ্গে পরবর্তীকালে আর দেখা হয়নি। তারা জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য রক্ত দিয়ে বীরের মতো শহীদ হয়েছেন।
১৯৭১-এর ২৫ মার্চ শেষ প্রহর এবং ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু যখন স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন, বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে আমাদের যার যেখানে যাওয়ার কথা সেখানে চলে গেলাম। ২৬ মার্চ ইয়াহিয়া খান জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন। ২৭ মার্চ ২ ঘণ্টার জন্য কারফিউ শিথিল হলে ওই কারফিউর মধ্যেই আমরা কেরানীগঞ্জ গিয়ে পরবর্তীকালে যিনি আমাদের সংসদ সদস্য হয়েছিলেন, বোরহানউদ্দীন গগনের গ্রামের বাড়িতে আশ্রয় নেই, জাতীয় নেতা ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামারুজ্জামান সাহেব, মণি ভাই, সিরাজ ভাই, রাজ্জাক ভাই। আমিসহ স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

সিদ্ধান্ত হলো, মণি ভাই ও আমি, মনসুর আলী সাহেব এবং কামারুজ্জামান সাহেবকে নিয়ে আমরা ভারতের দিকে যাব। আমাদের এই যাত্রাপথ আগেই ঠিক করা ছিল। অসহযোগ আন্দোলন চলাকালে সিরাজগঞ্জের কাজীপুর থেকে নির্বাচিত এমসিএ ডা. আবু হেনাকে বঙ্গবন্ধু যে পথে কলকাতা পাঠিয়েছিলেন, সেই পথেই আবু হেনা আমাদের নিয়ে গিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু আমাদের জন্য আগেই বাসস্থান নির্ধারণ করে রেখেছেন। ক্ষমতা হস্তান্তর প্রশ্নে ভুট্টো যখন টালবাহানা শুরু করে, তখন ’৭১-এর ১৮ ফেব্রুয়ারি ধানম-ির ৩২ নম্বরে জাতির জনক জাতীয় চার নেতার সামনে আমাদের এই ঠিকানা মুখস্থ করিয়েছিলেন- ‘সানি ভিলা, ২১ নম্বর রাজেন্দ্র রোড, নর্দার্ন পার্ক, ভবানীপুর, কলকাতা।’

বলেছিলেন, ‘এখানে তোমরা থাকবে। তোমাদের জন্য সব ব্যবস্থা আমি করে রেখেছি।’ ২৯ মার্চ কেরানীগঞ্জ থেকে দোহার-নবাবগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া হয়ে এপ্রিলের ৪ এপ্রিল আমরা সেখান থেকে পর্যায়ক্রমে অনেক কষ্ট করে ভারতের মাটি স্পর্শ করি এবং সানি ভিলায় আশ্রয় নেই। এখানে আমাদের সঙ্গে দেখা করতে আসেনÑ পরে বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রধানমন্ত্রীÑ জাতীয় নেতা তাজউদ্দীন আহমদ এবং ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম।
আমরা মুজিববাহিনীতে সদস্য রিক্রুট করে তাদের সশস্ত্র ট্রেনিং দিয়ে যুদ্ধ পরিচালনা করেছি। মুক্তিবাহিনীর সদস্য মুক্তিযোদ্ধাদের সংক্ষেপে বলা হতো এফএফ। তাদের ভেতরে প্রবেশ করার পর মুজিববাহিনীর সদস্যদের ট্রেনিং দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করাতাম। যেহেতু তারা ওইসব এলাকার রাজনৈতিক নেতা ছিলেন, সেজন্য তাদের অধীনেই মুজিববাহিনীর বাকি সদস্যরা যোগদান করতেন। সেখানে আমাদের শক্তিশালী মুক্তিবাহিনী গড়ে উঠত। সমগ্র বাংলাদেশকে ৪টি বৃহৎ অঞ্চলে বিভক্ত করে রাজনৈতিকভাবে অগ্রসর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে সংগঠিত ছিল মুজিববাহিনী।

বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক নিয়োগকৃত প্রধান সেনাপতি আতাউল গণী ওসমানীর নেতৃত্বে গঠিত বাংলাদেশ মুক্তিবাহিনীর (এফএফ) সঙ্গে একত্রে যুদ্ধ করে দখলদার বাহিনীকে মোকাবিলা করাই ছিল মূলত মুজিববাহিনীর কাজ। মুজিববাহিনীর অন্যতম প্রধান হিসেবে শেখ ফজলুল হক মণি ভাইয়ের দায়িত্বে ছিল তৎকালীন চট্টগ্রাম ডিভিশন ও বৃহত্তর ঢাকা জেলা; রাজশাহী বিভাগ (পাবনা ও সিরাজগঞ্জ বাদে) ও উত্তরাঞ্চলের দায়িত্বে ছিলেন সিরাজুল আলম খান; আবদুর রাজ্জাকের দায়িত্বে ছিল বৃহত্তর ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল এবং সিরাজগঞ্জসহ এক বিরাট অঞ্চল; আর আমার দায়িত্বে ছিল পাবনা, কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনা, ফরিদপুর, বরিশাল এবং পটুয়াখালী জেলা। মুজিববাহিনীর ট্রেনিং হতো দেরাদুনে।

দেরাদুনে ট্রেনিং শেষে আমার সেক্টরের যারা, তাদের প্লেনে করে ব্যারাকপুর ক্যাম্পে নিয়ে আসতাম। মুজিববাহিনীর সদস্যদের বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের প্রাক্কালে বুকে টেনে, কপাল চুম্বন করে বিদায় জানাতাম। আমরা মুজিববাহিনীর ট্রেনিং ক্যাম্পে বক্তৃতায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে উদ্দেশ করে বলতাম, ‘প্রিয় নেতা, তুমি কোথায় আছো, কেমন আছো জানি না! যতদিন আমরা প্রিয় মাতৃভূমি তোমার স্বপ্নের বাংলাদেশকে হানাদার মুক্ত করতে না পারব, ততদিন আমরা মায়ের কোলে ফিরে যাব না।’
কলকাতায় ছিল হেডকোয়ার্টার। ৮নং থিয়েটার রোডে (বর্তমানে শেক্সপিয়ার সরণি) ছিল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সদর দপ্তর। সেখানে অবস্থান করতেন চার জাতীয় নেতা- সৈয়দ নজরুল ইসলাম, অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি; তাজউদ্দীন আহমদ, প্রধানমন্ত্রী; ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী, অর্থমন্ত্রী; এবং এএইচএম কামারুজ্জামান, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী। তাদের সঙ্গে আমাদের নিত্য যোগাযোগ হতো। আমরা একসঙ্গে পরিকল্পনা করে যুদ্ধ পরিচালনা করেছি এবং বিজয়ী হয়েছি। ৬ ডিসেম্বর যশোর মুক্ত হয়। ৬ ডিসেম্বর আমি বাংলার মাটি স্পর্শ করি। সেদিনই ভারত ও ভুটান আমাদের যুগপৎ স্বীকৃতি প্রদান করে। তারপর পর্যায়ক্রমে যুদ্ধ শেষে ১৬ ডিসেম্বর আমরা হানাদার মুক্ত হই।       
৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ শেষে ১৬ ডিসেম্বর যেদিন দেশ শত্রুমুক্ত হলো, সেদিন আমরা বিজয়ীর বেশে ফিরে এলাম মায়ের কোলে। ১৮ ডিসেম্বর আমি এবং আবদুর রাজ্জাক- আমরা দুই ভাই একটি বিশেষ হেলিকপ্টারে ঢাকায় আসি। স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পদার্পণ করি। চারদিকে সে কি আনন্দ, ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। প্রথমেই ছুটে গিয়েছিলাম বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, শেখ রাসেলসহÑ বঙ্গবন্ধু পরিবারকে যেখানে বন্দি করে রাখা হয়েছিল, সেখানে। বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামাল মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করেন। মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি কর্নেল ওসমানীর এডিসি ছিলেন।

শেখ জামাল দেরাদুনে আমার সঙ্গেই ছিল। এরপর ২৮ ডিসেম্বর ভোলায় গ্রামের বাড়িতে অবস্থানরত মায়ের সঙ্গে দেখা করি। সেদিন অশ্রুসজল নয়নে প্রিয়জননী আমাকে বুকে টেনে নিয়েছিলেন। কিন্তু বিজয়ের আনন্দ ছাপিয়ে কেবলই মনে পড়ছিল প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধুর কথা। যে স্বাধীন বাংলার সেøাগান তুলেছিলাম রাজপথে; যে বাংলার জন্য বঙ্গবন্ধুর গতিশীল নেতৃত্বে কাজ করেছি; ভাবতে কত ভালোলাগে যে, পরমাকাক্সিক্ষত সেই বাংলাদেশ ডিসেম্বর মাসে দখলদার-হানাদার মুক্ত স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

লেখক : আওয়ামী লীগ নেতা, সংসদ সদস্য, সভাপতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি
[email protected]

monarchmart
monarchmart

শীর্ষ সংবাদ:

মোংলা ইপিজেডের কারখানায় অগ্নিকান্ড
মেট্রোরেল থেকে আয় ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা
বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে কোনো রোহিঙ্গা নেই
বায়ুদূষণ রোধে বিশেষ অভিযানের নির্দেশ
ফের বাংলাদেশের নতুন কোচ হাথুরুসিংহে
নিপসমের পরিচালক হলেন ডা. সেব্রিনা ফ্লোরা
নাসির-তামিমার অভিযোগ গঠনের শুনানি ২৮ ফেব্রুয়ারি
খুচরা ও পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন
দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় বাংলাদেশর অবস্থান ১২
খালেদা জিয়ার নাইকো মামলার চার্জশুনানি ১৪ ফেব্রুয়ারি
বাংলাদেশকে ঋণ অনুমোদন করেছে আইএমএফ
কর্মমুখী শিক্ষায় মনোযোগী হতে হবে
বইমেলা ঘিরে কোনো ধরনের নিরাপত্তা হুমকি নেই: ডিএমপি কমিশনার
শিবচরে ৪১ তলার প্রযুক্তি টাওয়ার নির্মিত হবে: পলক
পাকিস্তানে মসজিদে আত্মঘাতী হামলায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৭২
কক্সবাজারে ১২০ কি: মি রেঞ্জ ক্ষমতা সম্পন্ন টাইগার মিসাইল উৎক্ষেপন