ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০

নভেম্বর পর্যন্ত রেকর্ড ১২ লাখ ৪ হাজার কর্মী বিদেশ গেছেন 

জনকণ্ঠ রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০০:৫০, ৩ ডিসেম্বর ২০২৩

নভেম্বর পর্যন্ত রেকর্ড ১২ লাখ ৪ হাজার কর্মী বিদেশ গেছেন 

জনশক্তি রপ্তানিতে বড় এক মাইলফলক অর্জন করেছে বাংলাদেশ

জনশক্তি রপ্তানিতে বড় এক মাইলফলক অর্জন করেছে বাংলাদেশ। চলতি বছরের নভেম্বর পর্যন্ত দেশটি যে পরিমাণ জনশক্তি রপ্তানি করেছে তা আগের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। 
জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে চলতি বছরের ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত ১২ লাখ চার হাজার কর্মী বিদেশে গেছে। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ১১ লাখ ৩৫ হাজার। এ বছর শ্রম অভিবাসনের একটি ইতিবাচক দিক হলো মধ্যপ্রাচ্যের প্রচলিত বাজারগুলোর পরিবর্তে ইতালি এবং যুক্তরাজ্যের মতো অপ্রচলিত গন্তব্যে রেকর্ডসংখ্যক কর্মী পাঠানো।
যদিও এক্ষেত্রে উদ্বেগ রয়েই গেছে। কারণ অসংখ্য কর্মী প্রধানত ওমান, সৌদি আরব এবং মালয়েশিয়ায় ভুয়া চাকরির প্রলোভনে পড়ে সঠিক কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হচ্ছে। উদ্বেগের আরেকটি বিষয় হলো, বৈদেশিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধি সত্ত্বেও সেই হারে প্রবাসী আয়ের (রেমিটেন্স) প্রবাহ বাড়েনি। গত দুই অর্থবছর ধরে মাত্র ২২ বিলিয়ন ডলারের নিচেই স্থবির হয়ে আছে রেমিটেন্স।  
অভিবাসন বিশেষজ্ঞ এবং ব্যাংকাররা এই অসমতার জন্য তিনটি প্রাথমিক কারণকে দায়ী করেছেন। এগুলো হলো-স্বল্প দক্ষ পেশার ব্যাপকতা, অর্থ স্থানান্তরের জন্য অবৈধ চ্যানেলের ব্যবহার (হুন্ডি) এবং আর্থিক লাভের জন্য বিদেশী নিয়োগদাতার ভুয়া চাকরির প্রস্তাব এনে অদক্ষ শ্রমিকদের কাছ থেকে দেশের কিছু রিক্রুটারের অর্থ নেওয়ার ঘটনা। বৈদেশিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হলো চার বছর বন্ধ থাকার পর মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার পুনরায় খুলে দেওয়া। দেশটি উৎপাদন, নির্মাণ, পরিষেবা, কৃষি, খনি ও গৃহস্থালীসহ বিভিন্ন খাতে এ বছর তিন লাখ ২৮ হাজার বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগ দিয়েছে। বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগে সৌদি আরবের পরেই এখন মালয়েশিয়ার অবস্থান। উল্লেখ্য, বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে সৌদি আরব।
এ ছাড়াও সৌদি প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানিগুলোতে বাংলাদেশী শ্রমিক বা কর্মীদের জন্য কোটা ২৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৪০ শতাংশ নির্ধারণ করাও গত দুই বছর ধরে বৈদেশিক কর্মসংস্থান বৃদ্ধির অন্যতম কারণ।
এ বছর বিশেষ করে কৃষি, আতিথেয়তা এবং উৎপাদন খাতে ১৬ হাজার ২৯৭ জন বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগ দিয়েছে ইতালি। একক বছরের হিসাবে এটিই সর্বোচ্চ। যুক্তরাজ্য সেবা, গৃহকর্মী ও আতিথেয়তা খাতে রেকর্ড ৯ হাজার ৪২৭ জন নিয়োগ দিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও সিঙ্গাপুরও এ বছর উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগ দিয়েছে। এ ছাড়া কোভিড-১৯ মহামারির কারণে ২০২০ ও ২০২১ সালে বিদেশে যেতে না পারা শ্রমিকরা পরবর্তী বছরগুলোতে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে। 
রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিটের (আরএমএমআরইউ) একটি সাম্প্রতিক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, করোনা পরবর্তীকালে বিদেশে গিয়েছিলেন, কিন্তু চাকরি সংক্রান্ত বিভিন্ন শর্তাবলী পূরণ না করায় এক থেকে ১৬ মাসের মধ্যে ৩৫ শতাংশেরও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী কর্মী দেশে ফেরত এসেছেন। 
শ্রম বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, রিক্রুটিং এজেন্সি ও বিদেশী নিয়োগদাতারা অনেক কর্মীকে মধ্যপ্রাচ্যে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে থাকে। যে কারণে এখন অন্য দেশগুলোতে অভিবাসনপ্রত্যাশী বাংলাদেশী কর্মীর সংখ্যা বাড়ছে। 
খাত সংশ্লিষ্ট অভ্যন্তরীণ সূত্রগুলো বলছে, বাংলাদেশী নাগরিকদের ওপর ওমানের সম্প্রতি নতুন ভিসা স্থগিতাদেশে উদ্বেগ বেড়েছে। কর্মীরা চাকরি হারাচ্ছে, মধ্যস্থতাকারীর দ্বারা প্রতারিত হচ্ছে এবং কাক্সিক্ষত চাকরি পাচ্ছে না বলে শোনা যাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সির (বায়রা) মহাসচিব আলী হায়দার চৌধুরী বলেন, আমরা একটি মাইলফলক অর্জন করেছি, কারণ রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো ন্যায্য চাহিদার ভিত্তিতে কর্মী পাঠাতে সক্ষম হয়েছে। 
এ ছাড়া শ্রমিকের সংখ্যাও বেড়েছে। মোট শ্রমিকের তুলনায় যারা কাজ পায় না তাদের সংখ্যা খুবই কম।তিনি বলেন, যদি কেউ গন্তব্যের দেশে যাওয়ার পর কাজ না পায়, তবে এটি কিন্তু সংশ্লিষ্ট এজেন্সির দায় নয়। বরং এই চাহিদাপত্রগুলো বাংলাদেশ দূতাবাসসহ বিভিন্ন পর্যায়ে যাচাই-বাছাই হয়। এরপরই এজেন্সিগুলো কর্মী পাঠানোর অনুমতি পায়।
প্রবাসী কর্মীরা অবৈধ চ্যানেলে রেমিটেন্স পাঠানো বন্ধে তিনি বলেন, হুন্ডিতে বেশি দাম পাওয়া ছাড়াও ব্যাংকিং পথে পাঠাতে তাদের কর্মঘণ্টা নষ্ট হয়। আবার বিদেশে অনথিভুক্ত অনেক কর্মী আছেন। এরা নির্দিষ্ট সীমার বাইরে গিয়ে ধরা পড়ার ভয়ে ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠাতে পারে না। তাই প্রবাসীরা যাতে ঘরে বসে সহজেই বেশি মূল্যে রেমিটেন্স পাঠাতে পারে সেই উদ্যোগ নিতে হবে।

×