ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯

সাবধান! দেখছে কিন্তু বাঘ ‘মামা’ 

প্রকাশিত: ২২:০০, ২৪ আগস্ট ২০২২

সাবধান! দেখছে কিন্তু বাঘ ‘মামা’ 

সুন্দরবনের বাঘ।

সুন্দরবনের পড়ন্ত বিকেল। আঁকাবাঁকা খাঁড়ির মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের নৌকা। মাঝি রবি ১৫ বছর বয়সী ছেলের হাতে স্টিয়ারিংটা ধরিয়ে দিয়ে তখন সবে খেতে গিয়েছিল। আমার গাইড রামকৃষ্ণ মণ্ডল হঠাৎ রবির দিকে তাকিয়ে 'চল, চল, চল!

লাফ দিয়ে উঠে এসে ছেলেকে সরিয়ে এঁটো হাতেই স্টিয়ারিং হুইল ঘুরিয়ে নৌকা উল্টো দিকে ঘোরাল রবি। সুন্দরবনে হুট করে এমন উল্টোমুখী বাঁক নেওয়ার কারণ একটাই। সেটা হলো বাঘ! 

আমাদের নৌকা এবার খোলা নদীতে এসে পড়লো। হুট করে চারদিকে কোন তট দেখতে পেলাম না। আমরা এখন আছি পঞ্চমুখানি মোহনায়। এখানে পাঁচটা বড়, প্রশস্ত নদী এসে মিলিত হয়ে পরে সবগুলো বঙ্গোপসাগরে পড়েছে। একটুর জন্য বাঘের মুখে পড়া থেকে বেঁচে যাওয়ায় নৌকার ভেতরে সবাই হর্ষধ্বনি করে উঠলো।

সুন্দরবন পৃথিবীর একমাত্র ম্যানগ্রোভ বন যেখানে বেঙ্গল টাইগার বাস করে। কিন্তু এ বনে বাঘের দেখা মেলা অন্য যেকোনো বনের চেয়ে বেশ দুরূহ। বনটির ভারতের অংশে পড়েছে ৪০০০ বর্গকিলোমিটার। এ অংশে দ্বীপের সংখ্যা ১০২টি। যার ৫৪টিতে মানুষের আবাস, বাকি ৪৮টি সুন্দরবন টাইগার রিজার্ভের অংশ। এ রিজার্ভের আয়তন ২৫৮৫ বর্গকিলোমিটার।  বাফার জোনের ভেতরে ৩৬০ বর্গকিমি এলাকা জুড়ে তৈরি করা হয়ছে সজনেখালি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য। আমাদের অবস্থান এখানেই।

এ অভয়ারণ্যে দিনে দুবার জোয়ার-ভাটা হয়। এখানে নৌকা চড়ে বন দেখা ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই। অনেক খাঁড়ির মাথায় লাল পতাকা বসানো আছে। এগুলোতে কোনো না কোনো সময়ে জেলে, কাঁকড়াশিকারীরা বাঘের আক্রমণে প্রাণ হারিয়েছেন। সুন্দরবনে কেবল বাঘের ইচ্ছে হলেই মানুষ তাকে দেখতে পায়।

মণ্ডলের জন্ম এখানেই৷ এ বনের আনাচকানাচ তার নখদর্পণে। তার মতো এখানকার বাসিন্দাদের কাছে বাঘ হচ্ছে 'মামা'। সকালে বেরোনোর আগে বনবিবির কাছে প্রার্থনা করে বেরিয়েছিল মণ্ডল। রবি ইঞ্জিনের ওপর আরেকটু চাপ দিলো। মণ্ডল যা বললো তার অর্থ দাঁড়ায়, বাঘটাকে কোনদিকে পাওয়া যাবে সেটা সে অনুমান করতে পেরেছে। গলগল করে ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে নৌকা সেদিকেই এগিয়ে চললো। এদিকে বাঘের কোনো দেখা নেই। কিন্তু মণ্ডলের দৃঢ় বিশ্বাস বাঘটা এখানেই আছে। আর সেটাকে প্রমাণ করতেই যেন তখুনি ঘন জঙ্গল থেকে বাঘমামা বেরিয়ে এলেন।

নরম মাটিতে তার থাবা কয়েক ইঞ্চি ডুবে যাচ্ছে। গায়েগতরে দশাসই চেহারার মালিক। সাবধানে কেওড়ার শ্বাসমূল বাঁচিয়ে পাড়ের দিকে নেমে এল বাঘটা। 'নন্টু', ফ্যাকাসে মুখে ফিসফিসিয়ে বলে উঠল মণ্ডল। 'মানুষখেকো, বেজায় চালাক। গত সপ্তাহে এক জেলের ওপর হামলা চালিয়েছিল। বেচারা ছুরি দিয়ে আত্মরক্ষা করতে চেয়েছিল। কিন্তু মুহূর্তের মধ্যে নন্টুই তার দফারফা করে ফেলে,' বলে চলল মণ্ডল। আমি ঢোক গিললাম। একটু পরেই ঘন জঙ্গলের ভেতর হারিয়ে গেল নন্টু।

দিনের মধ্যে দুবার সুন্দরবন পানির নিচে ডুবে যায়। এখানকার বাঘদের তখন লবণাক্ত পানি পান ও আধা-জলজ জীবন যাপন করতে হয়। এ কারণে সুন্দরবনের বাঘ দক্ষ সাঁতারুও। এ বনের বাঘের লেজ শক্ত ও পেশিবহুল। সাঁতারের সময় পানিতে লেজ ঝাপটায় এটি। সুন্দরবনের বাঘ অন্য জায়গার বেঙ্গল টাইগারের মতো নয়। এর খাদ্যাভ্যাসও অন্যদের থেকে ভিন্ন। এ বনের বাঘেরা মাছ, কাঁকড়া, কচ্ছপ, বড় গুইসাপ ইত্যাদিও শিকার করে। সুন্দরবনের বাঘের সাপ শিকার করারও নজির আছে। ২০০৯ সালে এক মৃত বাঘের ময়নাতদন্ত করে জানা যায়, সেটি শঙ্খচূড়সহ মোট দুটো বিষাক্ত সাপ খেয়েছিল।

আমরা কি বোকার স্বর্গে বাস করছি? ১০-২০ বছরে বনের বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করা যায় না
পরের সপ্তাহে নন্টুকে নিয়ে অনেক গল্প শুনতে পেলাম। সে নাকি প্রতি মাসে মানুষ শিকার করে। তার হামলা এত চোরাগোপ্তা যে, কেবল কাউকে নন্টু তুলে নেওয়ার পরেই শিকারের সঙ্গীসাথীরা টের পায়। শিকারকে নিয়ে সাঁতরে খাঁড়ি পাড়ি দিয়ে তীরের ওপর নিশ্চুপে টেনে নিয়ে যায় সে। 

তবে বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, নন্টু হয়তো একাধিক বাঘ। তাকে ঘিরে অনেক গুজব ছড়িয়েছে। সুন্দরবনে বাঘের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে নামের কোনো ব্যবস্থা নেই। আর এখানকার বাঘগুলো নিজেদের টেরিটোরি'র ব্যাপারে উদাসীন। 

ভারতের সুন্দরবন সংশ্লিষ্ট একটি প্রকল্পের পরিচালক রাতুল সাহা বলেন, এ বনে শিকার করা বেশ কঠিন। জেলে, কাঁকড়া শিকারি, মৌয়াল; এদের বেশিরভাগই বিনা অনুমতিতে ও কোনো প্রকার আত্মরক্ষার ব্যবস্থা ছাড়া বনে প্রবেশ করে। আর এরা বাঘের জন্য বেশ সহজ শিকার।' মানুষের মাংসের স্বাদ নিয়ে সুন্দরবনের বাঘের বিশেষ লোলুপতা নেই, নিদেনপক্ষে কোনো গবেষণায় সেটার প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি। 

রাতে ভালো ঘুম হয়নি। সকালে জেটিতে মণ্ডলের সঙ্গে দেখা হলো। একগাল হেসে জিজ্ঞেস করল, ঘুম হয়নি মনে হচ্ছে। বাঘের স্বপ্ন দেখলেন নাকি রাতে? ভয় পাবেন না। ও আমি প্রতি রাতে দেখি। লুচি, ভাজি আর ব্ল্যাক কফি খেয়ে রবি, মণ্ডল, নীলিমা, আর আমি আবার বেড়িয়ে পড়ি নৌকা নিয়ে। খাঁড়ি থেকে খাঁড়িতে আমাদের নৌকা বয়ে চলে। এবারের যাত্রায় ভোঁদড় আর মেছোবাঘ সন্ধান করে বেড়ায় আমাদের চোখ। 

সেদিন বিকেলে সুধন্যাখালি ওয়াচটাওয়ারে কাছে আবারও বাঘের সাক্ষাতের সৌভাগ্য হলো। এবারেরটা মাদি। শেষ বিকেলের সোনালী আলোতে অলস ভঙ্গিতে হাঁটতে দেখতে পেলাম। আমি ততক্ষণে বুঝে গেছি সামনের রাতটাও নিদ্রাহীন কাটবে। সুন্দরবনের বাঘ কেবল জঙ্গলেই রাজত্ব করে না, এখানকার গল্প, মিথ, গুজব, মাজার আর স্বপ্নের ভেতরেও সমানে দাপিয়ে বেড়ায় তারা।

সূত্র: রাউন্ডগ্লাস সাসটেইন