ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

এশিয়ার যে দেশটিতে মসজিদ নেই

প্রকাশিত: ২১:৫৮, ৯ ডিসেম্বর ২০২৩

এশিয়ার যে দেশটিতে মসজিদ নেই

মসজিদ 

পৃথিবীতে বর্তমানে মুসলমানের সংখ্যা ১.৮ বিলিয়ন। বিশ্বে প্রায় সকল দেশেই মুসলমান আছে, তাই বিশ্বে মসজিদ নেই এমন দেশ খুঁজে পাওয়া দুস্কর। সারাবিশ্বের মতো এশিয়ারও প্রায় সব দেশে মসজিদ বিদ্যমান।

জানা যায়, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মসজিদ ইন্দোনেশিয়ায়, সংখ্যায় প্রায় আট লাখ। দ্বিতীয় অবস্থানে ভারত, সংখ্যায় তিন লাখ। তৃতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ - দুই লাখ ৫০ হাজার ৩৯৯টি (ইফাবা. জরিপ)। পাকিস্তানে মসজিদের সংখ্যা বাংলাদেশের চেয়েও কম।

তবে এশিয়ার একটি মাত্র দেশ রয়েছে যে দেশটিতে কোন মসজিদ নেই। দেশটির নাম ভুটান। ভুটান এশিয়ার সবচেয়ে সুখী দেশ। আয়তন ৪৬ হাজার ৫০০ বর্গকিলোমিটার। রাজধানী থিম্পু। ভুটানের নামকরণ সংস্কৃত ‘ভূ-উত্থান’ (উচ্চ ভূমি) থেকে।

অন্য মতে, ভুটান এসেছে ভোটস-আন্ত, অর্থাৎ তিব্বতের শেষ সীমানা। স্থলবেষ্টিত দেশ ভুটানের আকার, আকৃতি ও পার্বত্য ভূ-প্রকৃতি সুইজারল্যান্ডের সদৃশ। তাই অনেকে ভুটানকে এশিয়ার সুইজারল্যান্ড বলেন। ভুটানে ৭৪.৮ শতাংশ বজ্রযান বৌদ্ধধর্ম (রাষ্ট্রধর্ম), ২২.৬ হিন্দুধর্ম, ১.৯ বন ও অন্যান্য দেশজ ধর্ম, ০.৫ খ্রিস্টধর্ম, ০.৪ ইসলাম ও ০.২ শতাংশ অন্যান্য। ভুটানে মুসলমানের সংখ্যা প্রায় আট হাজার।

তবে এখানে মসজিদ স্থাপন ও প্রকাশ্যে নামাজের অনুমতি নেই। কর্তৃপক্ষের আতঙ্ক, মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হলে তা সেন্টারে পরিণত হবে এবং ইসলাম প্রচারে ব্যাপক অবদান রাখবে। এতে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা ইসলাম গ্রহণ করবেন। তবে ভুটানে মুসলমানের সংখ্যা বৃদ্ধির ফলে এখানে মসজিদ নির্মাণের দাবিও জোরালো হচ্ছে। ভুটানে মুসলমান পর্যটকদেরও নামাজ পড়তে হয় হোটেলে। ভুটানে বাংলাদেশ দূতাবাসে নামাজের ব্যবস্থা আছে। সেখানে জুমার নামাজও হয়।
 

 

এবি

×