ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

সংস্কৃতি সংবাদ

বাংলাদেশ-চীন বন্ধুত্বের সাক্ষ্যবহ শিল্পকর্ম প্রদর্শনী

সংস্কৃতি প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০১:০৬, ২৮ নভেম্বর ২০২৩

বাংলাদেশ-চীন বন্ধুত্বের সাক্ষ্যবহ শিল্পকর্ম প্রদর্শনী

শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালায় বাংলাদেশ ও চীনের বন্ধুত্বের সাক্ষ্যবহ ওপেনিং নিউ হরাইজনস শীর্ষক প্রদর্শনীর ছবি দেখছেন দর্শনার্থীরা

দুই বন্ধুপ্রতিম দেশ বাংলাদেশ ও চীন।  একে অপরের উন্নয়ন অংশীদার হওয়ার পাশাপাশি  উভয়  দেশের মধ্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে সাংস্কৃতিক সম্পর্ক। সেই বাস্তবতায় দেই দেশের বন্ধুত্ব ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কের শিল্পিত সংযোগ ঘটল এক আয়োজনে। চিত্রকর্ম ও আলোকচিত্রের সম্মিলনে সাজানো শিল্পায়োজনটির শিরোনাম ‘ওপেনিং নিউ হরাইজোনস’।  এই প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন দুই দেশের খ্যাতিমান চিত্রশিল্পী ও আলোকচিত্রীরা। সেসব শিল্পকর্মে আবহমান বাংলার রূপের সমান্তরালে অর্থনীতি ও উন্নয়নের চিত্র এবং চীনের চলমান জীবনধারা, সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে ও  ঈর্ষণীয় উন্নয়নের নানা গল্প উঠে এসেছে।

বাংলাদেশের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ ও চীনের বন্ধুত্বের দশ বছর পূর্তিতে শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালায় প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে ঢাকার চীনা দূতাবাস ও অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-চায়না এলামনাই। চীন ও বাংলাদেশের শিল্পীদের প্রায় শতাধিক শিল্পকর্ম ও আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে এ প্রদর্শনীতে। সোমবার বিকেলে শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালার ২ নম্বর গ্যালারিতে ছয় দিনের প্রদর্শনীর সূচনা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন। অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-চায়না এলামনাইয়ের সভাপতি মুন্সী ফয়েজ আহমদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।
 উদ্বোধনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন বলেন, এরকম একটি প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে চীন ও বাংলাদেশের বন্ধুত্বের সঙ্গে দুই দেশের তরুণ প্রজন্মও অনেকখানি এগিয়ে গেল। দীর্ঘদিন থেকেই চীন-বাংলাদেশ পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ছে। বিগত ১০ বছরে বাংলাদেশে অনেক পরিবর্তন ঘটেছে, চীন বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়নে সহযোগিতা করেছে। এখানে আমাদের বন্ধুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। দুই দেশের তরুণদের মধ্যে ঐতিহ্য-সংস্কৃতি জেনে নিতে এবং নিজেদের মধ্যে ভানার আদান-প্রদান ও সহযোগিতা করাই আমাদের এই প্রদর্শনীর মূল উদ্দেশ্য।
আগামী ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলমান প্রদর্শনটি প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা এবং শুক্রবার বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

×