শুক্রবার ৮ মাঘ ১৪২৮, ২১ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বাগেরহাটে চিংড়ির বাজারে ধস

বাবুল সরদার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটে সাদা সোনাখ্যাত গলদা চিংড়ির দাম বাজারে প্রতি কেজিতে চার থেকে সাড়ে চারশ টাকা কমে গেছে। হঠাৎ করে বাজারে চিংড়ির দাম অস্বাভাবিকভাবে কমে যাওয়ায় বাগেরহাটের চাষীরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। তাই এজেলার চাষীরা তাদের চিংড়ি চাষের জন্য নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধ করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। যুক্তরাজ্যসহ আমদানিকারক দেশগুলোতে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে স্থানীয় বাজারে চিংড়ির দাম পড়েছে বলে দাবি করছে মৎস্য বিভাগ।

বাগেরহাটের বিভিন্ন চিংড়ি বাজার ঘুরে ও চাষীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বছরের ভাদ্র ও আশি^ন মাসের এই সময়ে চাষীরা তাদের ঘেরের সব চিংড়ি ধরে বাজারে বিক্রি করে থাকেন। হঠাৎ করে বাগেরহাটের বারাকপুর, সিন্ডবি বাজার ও ফলতিতা মৎস্য আড়তে সাদাসোনাখ্যাত গলদা চিংড়ির দাম প্রতি চার থেকে সাড়ে চারশ টাকা কমে গেছে।

চলতি মৌসুমে গলদা চিংড়ির বর্তমান বাজারদর ৫ গ্রেড ৭৫০ টাকা, যা তিন মাস আগে ছিল ১১০০ টাকা, ১০ গ্রেড ৬৫০ টাকা যা আগে ছিল ৯৫০ টাকা, ১৫ গ্রেড ৫৫০ টাকা যা আগে ছিল ৯৫০ টাকা। বাগেরহাট সদর উপজেলার ষাটগম্বুজ ইউনিয়নের শ্রীঘাট গ্রামের চিংড়ি চাষী শেখ লিয়াকত আলী এই প্রতিবেদককে বলেন, আমার সাড়ে পাঁচ বিঘার মাছের ঘের রয়েছে। রেণু পোনা, মাছের খাবার ও হারির টাকা মিলিয়ে এ বছর খরচ হয়েছে প্রায় দুই লাখ টাকা। মাছ ধরে বিক্রির মৌসুম শুরু হলেও এখনও ২০ হাজার টাকার মাছ বিক্রি করতে পারিনি। হঠাৎ করে গলদা চিংড়ির বাজার পড়ে যাওয়ায় মাছ ধরা বন্ধ রেখেছি। লাভ তো দূরের কথা এ বছর খরচের আসল টাকাই উঠা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি। বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার বিলকুল গ্রামের আব্দুল বারেক পাইক বলেন, ১২ বিঘা জমিতে আমি গলদা চিংড়ির চাষ করেছি। ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ করেছি। সব মিলিয়ে খরচ প্রায় পাঁচ লাখ টাকা। চিংড়ির ধরার মৌসুম শুরু হলেও দাম পড়ে যাওয়ায় মাছ ধরা বন্ধ রেখেছি। মাছের বাজার এভাবে থাকলে ঋণের টাকা কিভাবে পরিশোধ করব আর সংসার কিভাবে চলবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি। তাই সরকারকে চিংড়ির বাজার তদারকি করার জোর দাবি জানাচ্ছি।

বাগেরহাট জেলা চিংড়ি চাষী সমিতির সভাপতি ফকির মহিতুল ইসলাম সুমন বলেন, উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের প্রায় আশি ভাগ মানুষ চিংড়ি চাষের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা’ পরোক্ষভাবে জড়িত। অনেক চাষীই ব্যাংক, এনজিও ও মহাজনদের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে চিংড়ি চাষ করে থাকেন। চলতি মৌসুমে অতি বৃষ্টিতে জেলার প্রায় এগারো হাজার চিংড়ি ঘের ভেসে চাষীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এর কিছুদিন আগে বাগদা চিংড়িতে ভাইরাসের সংক্রমণে চাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তারপর বাজারে গলদা চিংড়ির দাম কেজিতে তিনশ’ থেকে সাড়ে তিনশ’ টাকা কমে গেছে। সব মিলিয়ে এই জেলার চাষীরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। গত কয়েক বছর ধরে বাগদা ও গলদা চিংড়ির দাম ওঠানামা করছে। সরকারের নজরদারির অভাবে গত কয়েক বছর ধরে চাষীরা আর্থিকভাবে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। সরকার যদি কার্যকরী পদক্ষেপ না নেয় তাহলে এই চিংড়ি শিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা তার।

তিনি আরও বলেন, বাগেরহাটের অধিকাংশ চিংড়ি চাষী ব্যাংক, এনজিও ও মহাজনদের কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা নিয়ে মাছ চাষ করে থাকেন। বর্তমানে চিংড়ির বাজার অস্বাভাবিকহারে পড়ে যাওয়া তারা বিপাকে পড়েছেন। ফলে চাষীরা তাদের এই চিংড়ি চাষের জন্য নেয়া ঋণের টাকা কিভাবে পরিশোধ করবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। বাগেরহাট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ জিয়া হায়দার চৌধুরী গলদা চিংড়ির দাম কমে যাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, যুক্তরাজ্যসহ আমদানিকারক দেশগুলোতে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে স্থানীয় বাজারে চিংড়ির দাম পড়ে গেছে বলে আমাদের দেশের রফতানিকারকরা বলছেন। আমরা আমাদের উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে চিংড়ির দাম কমে যাওয়ায় বিষয়টি জানিয়েছি। এই চিংড়ির দাম খুব শীঘ্র আবার আগের জায়গায় ফিরবে বলে আশা করছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, অনেক সময় বায়ারদের অনীহা, রফতানিকারকরা আন্তর্জাতিক বাজারে দামের সঙ্গে সমন্বয় করে মাছ কেনে তাই দাম কমে। তাছাড়া এই সময়ে চাষীরা ঘের প্রস্তুত করতে ঘেরের সব চিংড়ি ধরে। তাই রফতানিকারকরা মাছের আমদানি বেড়ে যাওয়ায় অনেক সময় তারা সুযোগ নেন। বাগেরহাট বারাকপুর মৎস্য আড়ৎদার সমিতির সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, আড়ৎদারদের সঙ্গে আমদানি ও রফতানিকারকদের কোন সম্পর্ক নেই। আমাদের দেশের রফতানিকারকরা তাদের নিয়োগ করা নির্দিষ্ট এজেন্টদের মাধ্যমে চিংড়ি কেনাবেচা করে থাকেন। যার কারণে আন্তর্জাতিক বাজারের খবর আমরা সব পাই না। এজেন্টরা আমাদের যেভাবে বুঝান সেভাবেই এই চিংড়ির বাজারটা চলছে। চিংড়ির দাম বাড়া কমায় সরকারের মৎস্য বিভাগের তদারকি না থাকায় তারা এই সুযোগ নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ তার। তাই এই চিংড়ি শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। তা নাহলে বৃহৎ এই শিল্পটি ধ্বংস হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা তার।

শীর্ষ সংবাদ:
‘আমার প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়টি ভালো নেই’         করোনা ভাইরাসে আরও ১২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১৪৩৪         ‘১৫ ফেব্রুয়ারি বইমেলা শুরু’         ঢাবির হল খোলা, ক্লাস চলবে অনলাইনে         করোনারোধে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৫ জরুরি নির্দেশনা         আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ স্কুল-কলেজ         ভরা মৌসুমে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি         মাদারীপুরে সেতুর পিলারে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, ২ শিক্ষার্থী নিহত         বিপিএম-পিপিএম পাচ্ছেন পুলিশের ২৩০ সদস্য         অভিনেত্রী শিমু হত্যা : ফরহাদ আসার পরেই খুন করা হয়         দিনাজপুরে মাদক মামলায় নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য গ্রেফতার         শাবিপ্রবিতে গভীর রাতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল         ঘানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে ৫শ’ ভবন ধস, নিহত ১৭         করোনায় রেকর্ড সাড়ে ৩৫ লাখ শনাক্ত, মৃত্যু ৯ হাজার         রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে বাসের ধাক্কায় এক পরিবারের ৩ জন নিহত         তিন পণ্য দ্রুত আমদানির পরামর্শ         শতবর্ষী কালুরঘাট সেতুর আরও বেহাল দশা         ঐক্য সুদৃঢ় আওয়ামী লীগের বিএনপি হতাশ         ইসি নিয়োগ আইন চলতি অধিবেশনেই পাসের চেষ্টা থাকবে