মঙ্গলবার ৩০ চৈত্র ১৪২৭, ১৩ এপ্রিল ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ভয়াবহ পানির দুর্ভোগে ভারতের ব্যাঙ্গালোর

ভয়াবহ পানির দুর্ভোগে ভারতের ব্যাঙ্গালোর

অনলাইন ডেস্ক ॥ ভারতের দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর একটি ব্যাঙ্গালোর। বিশ্বজুড়ে এর পরিচিতি রয়েছে সিলিকন ভ্যালি হিসেবে।

তথ্য প্রযুক্তির শহর জুড়ে এর যেমন সমাদর রয়েছে তেমনি রয়েছেন নয়নাভিরাম সুউচ্চ আকাশছোঁয়া ভবনও।

কিন্তু এর ভিন্ন দিকও রয়েছে। শহরটির এমন চমকপ্রদ বৈশিষ্ট্যের বিপরীতে সবচেয়ে বড় সংকট হলো পানির সংকট।

পরিস্থিতি এমন যে বলা হচ্ছে দ্রুতই শুকিয়ে যাচ্ছে ব্যাঙ্গালোর।

সন্দেহ নেই এটাই ভারতের প্রথম কোন শহর যেটি চলছে রীতিমত পানি ছাড়াই। ব্যাঙ্গালোর, যার পরিচিতি সিলিকন ভ্যালি হিসেবে।

সকালে বাসা থেকে বের হলেই দেখা যায় শুরু হচ্ছে সকালের কর্মব্যস্ততা আর এ সময়টাতেই আপনি দেখবেন শহরের রাস্তায় রাস্তায় অসংখ্য ট্যাংকার। তারা নিয়ে যাচ্ছে এখন এই মূহুর্তে শহরের সবচেয়ে দামী পণ্য- পানি।

কেন এটি এতো দামি হয়ে উঠলো। পানি ট্যাংকার অপারেটর হরিশ সেটিই ব্যাখ্যা করছিলেন।

"আমরা যদি পানি সরবরাহ না করি তাহলে অন্যরা তো কোন পানিই পাবেনা। আগে সবই ছিলো নিচু জমি। লোকজন পানি তুলে চাষাবাদ করতো। পানিও পাওয়া যেতো সহজে।ওই সময় ৩০০ ফুট গভীরেই পানি পাওয়া যেতো। এরপর এটি ৫শ, ৭৫০, ১হাজার, বারশ ফুট। আর এখন ১৪শ থেকে পনেরশ ফুট গভীরে যেতে হয় পানির জন্য"।

এখন নানা কোম্পানি পানির গভীর জলাধার খুড়ে সেখান থেকে পানি সংগ্রহ করে তা পৌঁছে দেয় গ্রাহকের কাছে। আর এজন্য মাটি খুড়তে হয় এক থেকে দেড় হাজার ফুট গভীর পর্যন্ত।এমন জলাধার থেকে ট্যাংকার ভর্তি করে পানি নিয়ে গাড়ি রওনা হয় শহরের নানা জায়গায়।

প্রতিদিন লাখ লাখ লিটার ভর্তি পানি নিয়ে হাজার হাজার ট্যাংকার প্রতিদিন এভাবে ছুটে চলে ব্যাঙ্গালোর শহরের আনাচে কানাচে। এটি ভারতের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর একটি।

কিন্তু এর প্রচলিত যেসব পানির উৎস ছিলো সেগুলো এখন শুকিয়ে গেছে। যেটুকু বাকী আছে তার পানিও চরমভাবে দূষিত হয়ে পড়ছে। আর সে কারণেই শহরটির বহু মানুষ এখন নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে বেসরকারি পানি সরবরাহকারীদের ওপর।

আর এই পানি সরবরাহের বিষয়টিও এখন নিয়ন্ত্রণ করে একটি চক্র, যাদের বলা হয় ওয়াটার মাফিয়া। সফটওয়্যার পেশাজীবী সুবির বোস বসবাস করেন একটি কমপ্লেক্সে, যেখানে বাস করে আরও অন্তত দুশো পরিবার, যাদের সবসময় পানি বাহী ট্যাংকার অপারেটরদের দয়ার ওপর নির্ভর করতে হয়।

"আমার মনে হয় এটি আসলে একটি চক্র বা জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করার মতো। কিন্তু এটা এমন কিছু যা নিয়ে লোকজন প্রকাশ্যে কিছু বলতে চায়না। আমরা এখনো পানি পাচ্ছি কিন্তু এর গুনগত মান নিয়ে বেশ সংশয় আছে।তাদের সাথে আলোচনা করাই কঠিন। পানির দাম প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে।কারণ এর চাহিদাও আছে অনেক। কিন্তু কোন কথাই এ নিয়ে বলা যায়না"।

ব্যাঙ্গালোরে প্রায় চার লাখ পানির কুপ রয়েছে যাতে করে প্রতিনিয়ত শেষ হচ্ছে মাটির নীচের পানি।

পরিবেশ কর্মী এস বিশ্বনাথের মতে প্রতিদিন শহরটিতে প্রয়োজন হয় অন্তত ৪ থেকে ৫শ মিলিয়ন লিটার পানি। সে কারণে কুপগুলো যদি শুকিয়ে যায় তাহলে প্রাণ হারাতে শুরু করবে শহরটি।

"সে কারণে এই কুপগুলো আবার সক্রিয় করা কিংবা পুনরুজ্জীবিত করাটাই এখন বড় সংকটের বিষয়। অথচ ১৮৯০ সালের দিকে ব্যাঙ্গালোরই পানি ব্যবস্থাপনায় পাইওনিয়ার ছিলো। এ শহরকে এখনকার সংকট সমাধানেও আবার সেভাবেই নতুন করে এগিয়ে আসতে হবে"।

সুত্র: বিবিসি।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
১৩৬১৩০০৪৩
আক্রান্ত
৬৯৭৯৮৫
সুস্থ
১০৯৫১৪৯৭৭
সুস্থ
৫৮৫৯৬৬
শীর্ষ সংবাদ:
স্বাস্থ্যের সব প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার নির্দেশ, কর্মস্থল ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা         ঘরে বসে পয়লা বৈশাখ উপভোগ করুন : প্রধানমন্ত্রী         পবিত্র মাহে রমজানের মোবারকবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী         মানুষের জীবন সর্বাগ্রে : জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী         চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে রোজা         বৈশ্বিক এই মহামারিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইবাদত-বন্দেগি করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির         করোনায় একদিনে আরও ৬৯ জনের মৃত্যু         করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         নিজস্ব স্থাপনায় নিতে হবে কলেজ, নইলে পাঠদানের অনুমতি বাতিল         আবদুল মতিন খসরু লাইফ সাপোর্টে         হেফাজত ছাড়লেন মাওলানা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান         কৃষিজাত পণ্য ও পার্সেল পরিবহনে চারজোড়া নতুন ট্রেন চলবে ॥ রেলপথ মন্ত্রী         পহেলা বৈশাখের উৎসব সবার জীবনে সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনুক ॥ মোদি         বিদেশ থেকেও অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছেন তথ্যমন্ত্রী         দশ হাজারের বেশি মানুষকে গ্রেফতার করেছে হংকং পুলিশ         “লকডাউনে কাউকে রাস্তাঘাটে দেখতে চাই না”         জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়ি ফিরছেন মানুষ         সস্ত্রীক দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলেন যুবলীগ চেয়ারম্যান         রয়টার্সে ১৭০ বছরের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রধান সম্পাদক হলেন আলেসান্দ্রা