রবিবার ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আমের বাম্পার ফলন

আম উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান বর্তমানে বিশ্বে সপ্তম। এ সংবাদ যেমন আমাদের আশান্বিত করে তেমনি ৫ বছরের ব্যবধানে আমের উৎপাদনে এক ধরনের হরমোনের ভূমিকা অনস্বীকার্য। দেখা যাচ্ছে ২০১১-১২ অর্থবছরে যেখানে রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ও নাটোরে ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৯১২ মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়েছে সেখানে কালটার ব্যবহারের ফলে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে আমের উৎপাদন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৩৮ হাজার ৮৮৮ মেট্রিক টনে। চলতি বছর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াবে বলে ধারণা আম চাষীদের।

রাজশাহী বিভাগের চারটি জেলায় আম অর্থকরী ফসল হিসেবে পরিগণিত। তার মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জকে বলা হয় আমের রাজধানী। এখানকার নয়নাভিরাম আমবাগান দেখলে যে কেউ আবেগের বন্যায় খুশিতে ভাসবে। এখন আমবাগানের যে প্রান্তে দৃষ্টি যাবে শুধু থোকা থোকা আম দেখা যাবে।

গত বছর আম রফতানি করা হয়েছে বিদেশে ৩০০ টন, আর প্রতিবছর আমের উৎপাদন প্রায় ১ মিলিয়ন টনÑ এমন তথ্য ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির। আমের বাম্পার বা অধিক ফলনে দেশে যে নীরব বিপ্লব ঘটে যাচ্ছে তা বলাইবাহুল্য। আম যে শুধু আমাদের পুষ্টি চাহিদাই পূরণ করছে তা নয়, এখন বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনেও সহায়ক ভূমিকা রাখছে, যে কারণে আম উৎপাদনে চাষীদের মনোযোগ বাড়ছে।

রাজশাহী বিভাগে আমের ফলন সর্বাধিক। এখানে পরিকল্পিত বাগান আম চাষীদের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য। মাটি ও প্রকৃতির অনুকূল পরিবেশের কারণে এখানে আমের চাষ হয়ে আসছে। যে কারণে আমের বাগান করা এ অঞ্চলের মানুষের প্রধান আকর্ষণ। এতে সবাই কমবেশি লাভবান হচ্ছে।

ইতোমধ্যে ভারত, পাকিস্তানসহ একাধিক দেশে কালটার নামক হরমোনের ব্যবহার ব্যাপক বেড়েছে শুধুমাত্র আমের ফলন বৃদ্ধির লক্ষ্যে। বাংলাদেশেও বর্তমানে এর ব্যবহার বাড়ছে, লক্ষ্য একটাইÑ ফলন বৃদ্ধি। বলা হয়ে থাকে কালটার এমন এক জাতীয় হরমোন যা মুকুল আসতে বাধ্য করে। আর মুকুল আসলে যে ফলনও বাড়বে, বাড়বে উৎপাদনও এ তো জানা কথা! কিন্তু দেশে এখনও কালটারের অনুমোদন নেই। আম চাষীরা এই হরমোন সংগ্রহ করে ভারত থেকে। যেহেতু দেশে এখন ৯৬ ভাগ আম চাষীই কালটার ব্যবহার করছে, আর ৯০ শতাংশ আম বাগানেই এখন এই হরমোন ব্যবহৃত হচ্ছে, তাই এর উপযোগিতা এবং সামগ্রিক বিষয় তথা এর ভাল-মন্দ নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলের চিন্তা করা উচিত।

অভিজ্ঞ আম চাষীদের যেমন ধারণা আছে কখন কী ধরনের কী পরিমাণ কীটনাশক, সার প্রয়োজন তেমন নবাগতদের ধারণা লাভে প্রয়োজনীয় সাহায্য সহযোগিতা প্রয়োজন। আর এ কাজটি যাতে দ্রুত সম্পন্ন হয় সে জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সজাগ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখাও বাঞ্ছনীয়।

রসালো ফল আমের চাহিদা ও সরবরাহ বৃদ্ধিতে সংশ্লিষ্ট সবার আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন। সেই সঙ্গে অসাধু মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা যাতে ফরমালিন প্রয়োগ করতে না পারে তার জন্য আমের মৌসুমে কঠোর মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা রাখাও জরুরী। প্রকৃতি উদার ভাবে যা দিচ্ছে তা যেন কোন নিষ্ঠুর, বিবেকহীনের কারণে অনিষ্টের কারণ হয়ে না দাঁড়ায়- এমনটাই প্রত্যাশা।

শীর্ষ সংবাদ:
নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে কল কারখানা নয়         তিন বন্দর দিয়ে ভারতে আটকে থাকা পেঁয়াজ আসা শুরু         দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রয়েছে ॥ কাদের         কওমি বড় হুজুর আল্লামা শফীকে চিরবিদায়         ওষুধ খাতের ব্যবসা রমরমা         করোনার নমুনা পরীক্ষা ১৮ লাখ ছাড়িয়েছে         করোনা সংক্রমণ বাড়ছে ॥ ফের লকডাউনে যাচ্ছে ইউরোপ         বিশেষ মহলের ইন্ধন-ভাসানচরে যাবে না রোহিঙ্গারা         তুলা উৎপাদনে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার         দগ্ধ আরও দুজনের মৃত্যু, তিতাসের গ্রেফতার ৮ জন দুদিনের রিমান্ডে         শিক্ষার ক্ষতি পোষাতে বিশেষ প্রকল্প আগামী মাস থেকেই ॥ করোনায় সব লণ্ডভণ্ড         আর কোন জিকে শামীম নয় ॥ গণপূর্তের দৃশ্যপট পাল্টেছে         ব্যক্তিগত ও পারিবারিক দ্বন্দ্বই অধিকাংশ খুনের কারণ         এ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার উন্নতি         বর্তমান সরকারের আমলে রেলপথে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে : রেলপথমন্ত্রী         ইউএনও ওয়াহিদা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বদলী, স্বামী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে         সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল পরিচালকের রুম ঘেরাও         চিরনিদ্রায় শায়িত হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফী         সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছি ॥ মির্জা ফখরুল         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে একদিনে ১২৪৭ জনের মৃত্যু