শনিবার ৩০ আশ্বিন ১৪২৮, ১৬ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চীনে তৈরি পোশাক রফতানি বাড়লেও কমছে ভারতে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের পোশাকপণ্য রফতানির অপ্রচলিত বাজার হিসেবে বিবেচনা করা হয় ১১টিরও বেশি দেশকে। এর মধ্যে বৃহৎ বাজার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দুটি দেশ হলো চীন ও ভারত। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে এ দুই দেশে পোশাক রফতানিতে বিপরীত চিত্র দেখা গেছে। এর মধ্যে চীনে পণ্যটির রফতানিতে আয় বেড়েছে ৪২ দশমিক ৩২ শতাংশ। আর ভারতে পোশাক রফতানি বাবদ আয় কমেছে ২ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।

সম্প্রতি চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) পণ্য রফতানির পরিসংখ্যান প্রকাশ করে রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এ পরিসংখ্যান থেকে পোশাক খাতের প্রান্তিক রফতানি আয়ের দেশভিত্তিক তথ্য সংকলন করেছে তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ। এ সংকলনে চীন ও ভারতসহ অপ্রচলিত বাজারের রফতানি গতি-প্রকৃতির চিত্র উঠে এসেছে।

এতে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে চীন থেকে পোশাক রফতানি বাবদ আয় হয়েছে ৮ কোটি ২৭ লাখ ১০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় ছিল ৫ কোটি ৮১ লাখ ডলার। এ হিসাবে আয় বেড়েছে ৪২ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

অন্যদিতে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে ভারত থেকে পোশাক রফতানি বাবদ আয় হয়েছে ৩ কোটি ৬৪ লাখ ১০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় ছিল ৩ কোটি ৭১ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এ হিসাবে দেশটি থেকে আলোচ্য সময়ে আয় কমেছে ২ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।

চীন ও ভারতের রফতানির হালনাগাদ গতি-প্রকৃতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, চীন ও ভারত দুটি দেশই আমাদের দেশের পোশাক রফতানির জন্য সম্ভাবনাময় বাজার। কিন্তু দুটি দেশ থেকে কাক্সিক্ষত পরিমাণে আয় বাড়ছে না। চীনে আয় বাড়লেও তা দেশটির চাহিদার তুলনায় খুবই কম। তার পরও প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। কারণ বড় বড় ক্রেতা চীনে বিক্রয়কেন্দ্র চালু করছেন। আর পোশাক কিনছে বাংলাদেশ থেকে। অন্যদিকে প্রতিবেশী ও জনসংখ্যার বিচারে ভারত অনেক সুবিধাজনক অবস্থানে থাকলেও শুল্ক-অশুল্ক বাধায় দেশটিতে রফতানি বাড়ছে না। যদিও দেশটি আমাদের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়েছে কিন্তু রাজ্যের ভিন্নতায় এখনও কাউন্টারভেইলিং ডিউটি দিতে হয়।

বিজিএমইএ জানায়, চীনে ওভেন ও নিট দুই ধরনের পোশাকপণ্যই রফতানি হয়। তবে এর মধ্যে ওভেন পোশাক রফতানি হয় বেশি। যদিও চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশটিতে রফতানি বৃদ্ধিতে বেশি ভূমিকা রেখেছে নিটপণ্য। আলোচ্য সময়ে দেশটিতে ওভেনপণ্য রফতানি হয় ৪ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয় ৩ কোটি ৪৫ লাখ ডলারের পণ্য। এ হিসাবে চীনে ওভেনপণ্যের রফতানি থেকে আয় বেড়েছে ২৮ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। অন্যদিকে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে চীনে নিটপণ্য রফতানি থেকে আয় হয় ৩ কোটি ৮৫ লাখ ২০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় হয়েছিল ২ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। এ হিসাবে চীনে নিটপণ্য রফতানি থেকে আয় বেড়েছে ৬৩ দশমিক ২৩ শতাংশ। আর ভারতে আয়ের পরিমাণ বিচারে বেশি রফতানি হয় ওভেনপণ্য। ওভেনপণ্যের আয় কমে যাওয়ার ফলেই আলোচ্য প্রান্তিকে দেশটি থেকে রফতানি আয় কমেছে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে ভারতে ওভেনপণ্য রফতানি হয়েছে ২ কোটি ৫৩ লাখ ৫০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় ছিল ২ কোটি ৭৭ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এ হিসাবে আয় কমেছে ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ। অন্যদিকে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে চীনে নিটপণ্য রফতানি থেকে আয় হয় ৩ কোটি ৮৫ লাখ ২০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় হয়েছিল ২ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। এ হিসাবে চীনে নিটপণ্য রফতানি থেকে আয় বেড়েছে ৬৩ দশমিক ২৩ শতাংশ। আর ভারতে আয়ের পরিমাণ বিচারে বেশি রফতানি হয় ওভেনপণ্য। ওভেনপণ্যের আয় কমে যাওয়ার ফলেই আলোচ্য প্রান্তিকে দেশটি থেকে রফতানি আয় কমেছে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে ভারতে ওভেনপণ্য রফতানি হয়েছে ২ কোটি ৫৩ লাখ ৫০ হাজার ডলারের। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ আয় ছিল ২ কোটি ৭৭ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এ হিসাবে আয় কমেছে ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ। অন্যদিকে দেশটিতে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে নিটপণ্যের রফতানি হয়েছে ১ কোটি ১০ লাখ ৬০ হাজার ডলার। গত অর্থবছরের আলোচ্য সময়ে এ আয় ছিল ৯৩ লাখ ৯০ হাজার ডলার। এ হিসাবে নিটপণ্য রফতানি বাবদ আয় বেড়েছে ১৭ দশমিক ৭৯ শতাংশ। চীন ও ভারত ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ অপ্রচলিত বাজারের মধ্যে আছে অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, চিলি, জাপান, দণি কোরিয়া, মেক্সিকো, রাশিয়া, দণি আফ্রিকা ও তুরস্ক। এর মধ্যে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে পাঁচ দেশ থেকে আয় কমেছে এবং বাকিগুলো থেকে বেড়েছে। রফতানিকারকদের সংগঠন এক্সপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদি বলেন, চীন মিডিয়াম ও লো এন্ডের পণ্য তৈরি করছে না। সেগুলো নিজেদের চাহিদা অনুযায়ী বাংলাদেশে তৈরি করে কিনতে শুরু করেছে। অন্যদিকে ভারতে সম্ভাবনা অনেক বেশি হলেও দেশটি নিজেদের চাহিদা নিজেরাই মেটায়। ফলে ভারতের বাজারের শুল্কমুক্ত সুবিধার সুযোগ কাজে লাগাতে পারছি না আমরা।

শীর্ষ সংবাদ:
উন্নয়নের মহাসড়কে মানিকগঞ্জ         কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কমেছে ২০ টাকা         দেশে ফসল উৎপাদনে রেকর্ড         টিকার আওতায় ১০০ কোটির দ্বারপ্রান্তে ভারত         রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধান খুঁজতে মিয়ানমারকে চাপ দিন         আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু আজ         ট্রাক কাভার্ডভ্যান থেকে চাঁদা আদায় বন্ধ হয়নি         সার্বিয়ার সঙ্গে রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা সহযোগিতা বাড়াতে আগ্রহী বাংলাদেশ         জুমার তিনটি বিস্ফোরণ ঘটে আফগানিস্তানের শিয়া মসজিদে         করোনা ভাইরাসে আরও ৯ জনের মৃত্যু, আট মাস পর সর্বনিম্ন শনাক্ত         চীনে ‘কোরান মজিদ’ অ্যাপ নিষিদ্ধ করলো অ্যাপল         মাগুরায় দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ॥ নিহত ৪         হানিফ ফ্লাইওভারে যাত্রীবাহী বাস উল্টে যান চলাচল বন্ধ         সম্প্রীতি রক্ষায় জনপ্রতিনিধিদের সতর্ক থাকার আহ্বান স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর         চট্টগ্রামে হরতাল প্রত্যাহারের ঘোষণা, চলছে বিসর্জন         আফগানিস্তানে জুমার সময় শিয়া মসজিদে বিস্ফোরণ, নিহত বেড়ে ৩২         মোবাইলে থ্রিজি-ফোরজি ইন্টারনেট সচল         ছুরিকাঘাতে ব্রিটিশ এমপি নিহত         দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা ও শান্তির জন্য মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা         কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে প্রতিকেজি পেঁয়াজে দাম কমেছে ১৫-২০ টাকা