ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৬ আগস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

বিচিত্র তথ্য ॥ আজব কয়েকটি মামলা...

প্রকাশিত: ০৬:০১, ২২ জুলাই ২০১৬

বিচিত্র তথ্য ॥ আজব কয়েকটি মামলা...

ফটোকপি তো আর মানুষকে তৃষ্ণার্ত করে না! ড্রেসডেনের সোশ্যাল সিকিউরিটি ট্রাইব্যুনালের বিচারকের অন্যতম যুক্তি ছিল এটি। এই যুক্তি দিয়ে তিনি এক অফিস কর্মীর ক্ষতিপূরণের দাবি গ্রহণযোগ্য নয় বলে রায় দেন। ঐ কর্মী ফটোকপি করার সময় এ্যালকোহলমুক্ত বিয়ার পান করছিলেন। সে সময় বিয়ারের ফেনা হঠাৎ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে তাড়াতাড়ি তা পান করতে গিয়ে দাঁত ভাঙেন তিনি। এরপর ক্ষতিপূরণ চাইলে বিচারক তাঁকে জানান, খাবার আর পানীয় কর্মক্ষেত্রের বিমার আওতায় পড়ে না। আনন্দের জন্য আইসক্রিম কাজের জন্য নয় বার্লিনের এক ব্যক্তি কাজ শেষে পাতাল ট্রেনে করে বাড়ি ফেরার সময় আইসক্রিম খাচ্ছিলেন। পাতাল ট্রেনে ঢোকার সময় আইসক্রিমে কামড় দিলে হঠাৎ সেটি খাদ্যনালীতে আটকে গিয়ে ব্যথার উপদ্রব হয়। পরবর্তীতে জানা যায়, হার্ট এ্যাটাকের কারণে ওই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। বার্লিনের সোশ্যাল সিকিউরিটি ট্রাইব্যুনাল জানায়, এটি কাজ সম্পর্কিত কোন দুর্ঘটনা ছিল না। কারণ ওই ব্যক্তি নিজের আনন্দের জন্য আইসক্রিম খাচ্ছিলেন, কাজের জন্য নয়। কাজের সময় যৌনমিলন নয় সরকারী এক নারীকর্মী কাজের প্রয়োজনে এক জায়গায় সফরে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে যৌনকর্মে লিপ্ত থাকা অবস্থায় ঘরের বাতি ভেঙে গেলে তার টুকরায় আহত হন ওই কর্মী। এজন্য ক্ষতিপূরণ দাবি করলে আদালত সেটি প্রত্যাখ্যান করেন এই বলে যে, কাজের সময় কর্মীদের যৌনমিলন প্রত্যাশা করেন না কোন চাকরিদাতা। কাজের সময় লাফিয়ে পড়া নয় ২৭ বছরের এক ব্যক্তি পেশা সংক্রান্ত প্রশিক্ষণে গিয়েছিলেন। ট্রেনিংয়ের বিরতিতে তাঁর সহকর্মীরা মজা করার জন্য তাঁকে ভিজিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। এই অবস্থা থেকে বাঁচতে বেচারা ওই ব্যক্তি জানালা দিয়ে লাফিয়ে পড়েন! এজন্য আবার ক্ষতিপূরণও চেয়ে বসেন তিনি। তবে আদালত তাঁকে জানিয়ে দেন যে, লাফিয়ে পড়াটা তাঁর কাজ সংশ্লিষ্ট ছিল না। ঘুমিয়ে পড়া পানশালায় কাজ করা এক ব্যক্তি ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। ঘুমন্ত অবস্থায় পড়ে গিয়ে আহতও হন তিনি। এটাকে কি কাজ করতে গিয়ে দুর্ঘটনার সংজ্ঞায় ফেলা যায়? আদালত বলছে, না। কারণ, অতিরিক্ত কাজের জন্য তাঁর ঘুম পায়নি। রাতের বেলায় মদ্যপ হলে চলবে না ক্ষতিপূরণ চাওয়া এক ব্যক্তি অফিসের প্রয়োজনে ইবিজা সফরে গিয়েছিলেন। সেখানকার এক পানশালায় গিয়ে ক্লায়েন্টের সঙ্গে মাঝরাতের বেশি সময় পর্যন্ত পানীয় পান করেছিলেন। এরপর মদ্যপ অবস্থায় পানশালা থেকে বের হয়ে আবার ঢুকতে গিয়ে একজনের সঙ্গে মারামারিতে লিপ্ত হয়ে আহত হন। এ প্রসঙ্গে সোশ্যাল সিকিউরিটি ট্রাইব্যুনাল বলছে, অফিসের প্রয়োজনে ভ্রমণকারীরা বিমার আওতায় পড়লেও রাতের বেলায় মদ্যপ হওয়াদের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য নয়। সূত্র : ডয়েচে ভেলে
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২