রবিবার ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

গ্যাস নিয়ে ভাবনা

আকস্মিকভাবেই গ্যাসের সঙ্কট চলছে। এ কারণে একদিকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে শিল্প কারখানার উৎপাদন। অপরদিকে ঢাকা ও চট্টগ্রামে মারাত্মক গ্যাস সঙ্কটের কারণে আবাসিক পর্যায়ে বাড়ছে গ্যাসের জন্য হাহাকার। কোথাও কোথাও মধ্যরাতে এবং দিনের বেলায় টিম টিম করে জ্বলে চুলা। গ্যাস প্রবাহ হ্রাস পাওয়ায় বাসাবাড়ি থেকে শুরু করে শিল্প-কারখানা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বিঘিœত হচ্ছে। সঙ্কটের মাত্রা বৃদ্ধির কারণে বেড়েছে গ্যাস সিলিন্ডারের দাম। তাও অনেক ক্ষেত্রে পাওয়া যায় না। সিএনজি স্টেশনগুলোর অবস্থাও করুণ। আবাসিক, বিদ্যুত কেন্দ্র, শিল্প প্রতিষ্ঠান ও সিএনজি স্টেশন মিলিয়ে দৈনিক গ্যাসের চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ অনেক কমে গেছে। তাই প্রতিদিন থেকে যাচ্ছে গ্যাসের ঘাটতি। কারণ হিসেবে জানা গেছে, গ্যাস লাইনের জাতীয় গ্রিডের একটা বড় অংশে ময়লা জমে যাওয়া। তবে এই ময়লা পরিষ্কার হলেই গ্যাস সঙ্কট পুরোপুরি কাটবে এমন কথা এখনও বলা যাচ্ছে না। ব্যবস্থাপনাগত সমস্যা সঙ্কট তৈরিতে ভূমিকা রাখছে। জাতীয় গ্রিডের প্রায় ১০০ কিলোমিটার জুড়ে ময়লা জমার ঘটনাটি একদিনে হয়নি। পরিস্থিতি এই পর্যায়ে যেতে দেয়ার প্রশ্নের কোন জবাব মেলে না। অবশ্য সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সাধারণত শীতকালে গ্যাসের কিছুটা সঙ্কট দেখা দেয়। উপরন্তু প্রতিদিন ৫ থেকে ৮০০ মিলিয়ন ঘনফুটের বেশি ঘাটতি থাকছে। শীতে গ্যাসের ব্যবহারও বাড়ে। পাশাপাশি গ্যাস সরবরাহ কোন না কোনভাবে বিঘিœত হয়। প্রাকৃতিক গ্যাসের সহজাত তরল হাইড্রোকার্বন জমে পাইপ লাইনে মরচে ধরে। ফলে পাইপ লাইনে গ্যাস থাকলেও তা চুলা পর্যন্ত পৌঁছায় না। ঢাকায় অধিকাংশ গ্যাস লাইন স্থাপিত হয়েছে বহু বছর আগে। গ্যাস হচ্ছে প্রাকৃতিক সম্পদ। যার রয়েছে সীমাবদ্ধতা। বর্তমান সরকার গ্যাসের উৎপাদন বাড়িয়েছে অনেক। তবে এর সঙ্গে চাহিদাও বাড়ছে প্রতিদিন। ইতোমধ্যে বহু নতুন কূপ খনন করা হয়েছে। গ্যাস অনুসন্ধানও চলছে। বিদেশ থেকে এলএনজি আমদানি করা হচ্ছে। সমুদ্রে গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য ব্লক চিহ্নিত করে দরপত্র দেয়া হয়েছে। এসব ভবিষ্যতের কথা। কিন্তু বর্তমানে গ্যাসের অপ্রতুলতা বহুমাত্রিক সঙ্কট তৈরি করে চলেছে। অবশ্য জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘গ্যাসের সঙ্কট আছে, এটা অস্বীকার করছি না। এই সঙ্কট দূর করতে চেষ্টা করছি। সঙ্কট কাটাতে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এই পরিস্থিতিকে সামনে রেখে আবাসিক খাতে আগামী তিন বছরের মধ্যে আবাসিক গ্রাহকদের ৭০ শতাংশ এলপিজি ব্যবহার অথচ বাস্তবতা বিবেচনায় নিয়ে গ্যাস বা জ্বালানি ক্ষেত্রে নতুন কৌশল ও সিদ্ধান্ত নেয়া যেতে পারে। আর এলপিজি যেন সবার জন্য হয় সাশ্রয়ী এবং মূল্য নিয়ন্ত্রণে থাকে সেদিকটাকে বিবেচনায় নিতে হবে। পেট্রোবাংলার তথ্যানুযায়ী ২৭৪ কোটি ঘনফুট গ্যাস উত্তোলনের সক্ষমতার মধ্যে প্রতিদিন গড়ে ২৭০ কোটি ঘনফুট উত্তোলন হচ্ছে। ওই গ্যাস বাসার চুলায় ব্যবহারের জন্য ব্যয় হয় প্রতিমাসে ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায়। বাজারে প্রতি সিলিন্ডার ক্রয়ে ব্যয় হয় দেড় হাজার ঢাকায়। সঙ্কট মোকাবেলায় সরকার যে পন্থাই অবলম্বন করুক না কেন, তা যেন জনগণকে দুর্ভোগের দিকে ঠেলে না দেয়, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
৩২৭৯৪৪০৭
আক্রান্ত
৩৫৭৮৭৩
সুস্থ
২৪১৯৩২৯৩
সুস্থ
২৬৮৭৭৭
শীর্ষ সংবাদ:
সবার সুরক্ষা চাই ॥ করোনা সঙ্কট উত্তরণে বহুপাক্ষিকতাবাদের বিকল্প নেই         সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণ         পুলিশে শুদ্ধি অভিযান         প্রধান আসামি মিজান সাত দিনের রিমান্ডে         কয়েক মাসেও হয়ত জানা যাবে না জয়ী কে ॥ ট্রাম্প         কঠিন শর্তের বেড়াজালে সিঙ্গাপুরগামী যাত্রীরা         দেশে করোনা রোগী শনাক্ত কমেছে         শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মসূচী         কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার নির্মাণে দুর্নীতির প্রমাণ         গণফোরাম ভেঙ্গেই গেল ॥ ২৬ ডিসেম্বর এক পক্ষের কাউন্সিল         রূপপুর আবাসন প্রকল্পের আসবাবপত্র কেনা হচ্ছে অস্বাভাবিক দামে         বিনা খরচে আইনী সহায়তা পেলেন ৫ লাখের বেশি দরিদ্র অসচ্ছল মানুষ         পর্যটন শিল্পকে চাঙ্গা করতে ‘রিকভারি প্ল্যান’         বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে করোনা ভাইরাসের সনদ নেয়া ৩২ জনকে রেখে গেল সাউদিয়া         পাবনা-৪ আসনে ৭৫ কেন্দ্রের বেসরকারী ফলাফলে আওয়ামীলীগের নুরুজ্জামানের জয়         সবার সুরক্ষা চাই ॥ বিশ্বসভায় প্রধানমন্ত্রী         সোমবার প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ১০ টিভিতে ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’         ভাঙলো গণফোরাম ॥ ২৬ ডিসেম্বর কাউন্সিলের ঘোষণা সাইয়িদ-মন্টু পক্ষের         ডোপ টেস্ট পজিটিভ হওয়ায় ২৬ পুলিশ সদস্যকে চাকরিচ্যুত করা হবে-ডিএমপি কমিশনার         করোনা ভাইরাসে আরও ৩৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১১০৬