রবিবার ৯ কার্তিক ১৪২৮, ২৪ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সঙ্কটে সাদা সোনা

স্বাধীনতা অর্জনের এক দশক পরে দেশের চিংড়ি শিল্পের ব্যাপক উৎকর্ষের ফলে চিংড়িকে সাদা সোনা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। কাল পরিক্রমায় চিংড়ি রফতানিতে প্রভূত উন্নতিলাভের ফলে এটি দেশের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী অন্যতম প্রধান খাতে পরিণত হয়। আমেরিকা ছাড়াও ইউরোপ মহাদেশের ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানিসহ কিছু দেশে রফতানি হচ্ছে। চিংড়ির উৎপাদন এটির বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার ২০১০ সালে মৎস্য হ্যাচারি আইন পাস করে। এই আইন অনুযায়ী রোগজীবাণুমুক্ত পোনা সরবরাহের জন্য প্রতিটি মা বাগদার পলিমারেজ চেইন রিয়াকশান (পিসিআর) টেস্ট করা বাধ্যতামূলক। ওই পরীক্ষা ছাড়া পোনা বাজারজাত করায় প্রতি মৌসুমে বিপুলসংখ্যক চিংড়ি ঘেরের মাছ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার নজির রয়েছে। পরবর্তীকালে চিংড়ি শিল্পের সাফল্য ধরে রাখা এবং উৎপাদনের পরিমাণ ও গুণগতমান বাড়ানোর লক্ষ্যে সরকার ‘জাতীয় চিংড়ি নীতিমালা ২০১৪’-এর অনুমোদন দেয়। এ নীতিমালা বাস্তবায়িত হলে দেশে চিংড়ির উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি গুণগতমানেরও উন্নতি হবে যা চিংড়ি খাতের সম্প্রসারণ, চাকরির সুযোগ, রফতানি আয় বৃদ্ধি, দারিদ্র্য বিমোচন এবং দেশের মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। এ নীতিমালা অনুযায়ী চিংড়ির ঘেরের আয়তন কোনক্রমেই ৩০ একরের বেশি হতে পারবে না। নীতিমালায় আরও রয়েছে চিংড়ি সম্পদ উন্নয়নে উদ্বুদ্ধকরণ ও সম্প্রসারণ কার্যক্রম, চিংড়ি প্রক্রিয়াজাতকরণ ও মান নিয়ন্ত্রণ, রফতানি, চিংড়ি সম্পর্কিত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ, চিংড়ি গবেষণা, চিংড়ি ঋণ বীমা ও নির্ভরযোগ্য ডাটাবেজ তৈরিসহ বিভিন্ন বিষয়। এ রকম একটি ইতিবাচক পরিস্থিতিতে দেশের ৭৮টি চিংড়ি প্রক্রিয়াকরণ কারখানার মধ্যে ৫০টির বন্ধ হয়ে যাওয়ার সংবাদে চিংড়ি চাষীদের মধ্যে হতাশার জন্ম দেবে বলে আমরা আশঙ্কা করি।

যদিও বিগত দুই বছরের চিংড়ি রফতানির চিত্র আশাব্যঞ্জক। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রথম মাস জুলাইতে ছয় কোটি ১৫ লাখ ডলারের চিংড়ি রফতানি হয়। আগের অর্থবছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল পাঁচ কোটি ৬৫ লাখ ডলারের চিংড়ি। অর্থাৎ এই সময়ে রফতানি বেড়েছে ৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ। এ বছরও অন্তত ৭০ কোটি টাকার চিংড়ি বেশি রফতানি হয়েছে। তারপরও এ শিল্পে ধস নামার লক্ষণ দেখা দিয়েছে মূলত এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীদের কারণে। ব্যবসায়িক অসততার কারণে বিশ্ববাজারে আমদানিকারকদের আস্থা হারাতে বসেছে বাংলাদেশের চিংড়ি রফতানিকারকরা। ওজন বাড়ানোর জন্য চিংড়ির দেহে পানি ও জেলি পুশ করাই মূলত এই আস্থা বিনষ্টের কারণ।

দেশের লাভজনক একটি শিল্প গুটিকতক অসাধু ব্যবসায়ীর জন্য ধ্বংস হতে পারে না। সেজন্য আবশ্যক হলো দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ। এক্ষেত্রে মৎস্য অধিদফতর ও প্রশাসনের সক্রিয় ভূমিকা থাকা দরকার। তাছাড়া মধ্যস্বত্বভোগীদের মাধ্যমে নয়, সরাসরি প্রান্তিক চাষীদের কাছে থেকে চিংড়ি কেনা হলে এ অবস্থার উন্নতি ঘটবে বলে ধারণা করা যায়। পাশাপাশি চিংড়ি ঘেরগুলোকে মানসম্মত করাসহ বিদেশী বাজারের প্রসার ঘটানোও সময়ের দাবি। সেইসঙ্গে পিসিআর টেস্ট করার বিষয়টিও নিশ্চিত করাও জরুরী। সাদা সোনার কৃষ্ণকাল কোনক্রমেই কাম্য নয়।

শীর্ষ সংবাদ:
নারীরা উদ্যোক্তা হিসেবেও অনেক ভূমিকা রাখছেন ॥ শিল্পমন্ত্রী         চাঁদা না দেওয়ায় মোটরসাইকেল শো-রুমে ডাকাতি করেন চক্রটি         শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল তাইওয়ান         শেখ হাসিনার সরকার হলো সবচেয়ে বেশি নারীবান্ধব ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টকারীদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি’         বিপর্যস্ত তিস্তা অববাহিকা পরিদর্শনে বাপাউবোর প্রতিনিধি দল         অপরাধী যেই দলেরই হোক তার বিচার হবে ॥ আইনমন্ত্রী         যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করল তুরস্ক         আমিরাত গেলেন অর্ধলক্ষাধিক যাত্রী         বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো ঘুরে দাঁড়াবে ॥ শিক্ষামন্ত্রী         জাতির পিতার স্বপ্ন আমরা বাস্তবায়ন করব ॥ প্রধানমন্ত্রী         নোয়াখালীতে মন্দিরে হামলা ॥ ৩ আসামির ‘স্বীকারোক্তিমূলক’ জবানবন্দি         পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী         সম্প্রতি সিনেমার সেটে ঘটে গেল বাস্তবে মর্মান্তিক এক মৃত্যু         কলম্বিয়ার মাদক সম্রাট অ্যাতোনিয়েল অবশেষে আটক         যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গোলাগুলিতে নিহত ১         শ্যামলীতে মোটরসাইকেল শোরুমে ডাকাতি, গ্রেফতার ৬         রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৭৪         জাতিসংঘ দিবস আজ         সিরাজগঞ্জে ট্রাকচাপায় বিমান বাহিনীর সদস্যসহ নিহত ২