৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

সমন্বিত নয়, আগের মতোই ভর্তি পরীক্ষা বুয়েটে

প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • একই পথে হাঁটছে ঢাবি জাবি চবি

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ঘোষিত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে না বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। তারা আলাদা করে আগের মতোই পরীক্ষা গ্রহণের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে। এদিকে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না করলেও একই ঘোষণা দিতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বড় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি একাডেমিক কাউন্সিলের সভা আহ্বান করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবার বিকেলে বুয়েটের একাডেমিক সভায় আগের মতোই পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বুয়েট। বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, এতদিন যে নিয়মে বুয়েট যে নিজস্ব নিয়মে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থী বাছাই করেছে, পরবর্তীতেও একই নিয়মে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের সর্বসম্মত সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ৪৮ বছর ধরে যে পদ্ধতিতে বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা হয়ে আসছে তাতে আমরা সেরা শিক্ষার্থীদেরই পাচ্ছি, এটা একেবারে প্রমাণিত। তাই আমরা আগের মতোই পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

ইউজিসির সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সভায় কি আলোচনা হয়েছে? এমন প্রশ্নে অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, আমরা সমন্বিত ভর্তি প্রক্রিয়া নিয়ে কিছু বলতে চাই না। এটা নিয়ে কোন কথা কেউ বলেনি। আমরা বলেছি আমাদের পরীক্ষা হবে আমাদের মতোই। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ভর্তি পরীক্ষায় আগের যে প্রক্রিয়া অবলম্বন করা হতো সেই প্রক্রিয়া অনুযায়ী পরবর্তী শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলে এটাই সর্বসম্মত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

এদিকে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার প্রথম শিক্ষাবর্ষেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অংশ না নিয়ে পর্যবেক্ষণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। ফলে আগের নিয়মেই পরবর্তী শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। বৃহস্পতিবার উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একাডেমিক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ে বলে জানা গেছে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও এই সিদ্ধান্তের কথা জানায়নি কর্তৃপক্ষ।

দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়-গুলোতে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেবে কি না সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি (সোমবার)। ওইদিন বিকেল তিনটায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভা শেষে জানা যাবে ঢাবি সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতিতে অংশ নিতে যাচ্ছে কি না।

একাডেমিক কাউন্সিলের সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান। সভার বিষয়ে তিনি বলেন, আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি সোমবার একাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেই সভায় সদস্যগণ সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন।

তবে এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) চতুর্থ কার্যনির্বাহী সভায়ও এর প্রতিনিধিরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় না যাওয়ার পক্ষে মত দেন। ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী সাংবাদিকদের বলেন, ১৯৭৩ এর অধ্যাদেশ অনুযায়ী ঢাবির ঐতিহ্য ও স্বকীয়তা বজায় রাখতে আমরা সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে রায় দিয়েছি। অর্থাৎ বিশ্ববিদ্যালয় তার স্বতন্ত্র ভর্তি প্রক্রিয়া পদ্ধতি অব্যাহত রাখবে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভাতেও আমরা এই কথা জানিয়েছি।

ডাকসুর সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বলেছেন, সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্বার্থ, উৎকর্ষতা, আগামীদিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার রূপকল্পের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ- ১৯৭৩ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গণতান্ত্রিক, স্বায়ত্তশাসিত এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার জন্য ঐতিহাসিক দায়বদ্ধতার বহির্প্রকাশ।

এ বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার জন্য ১৯৬১ সালের কালাকানুন বাতিলের প্রয়োজনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা লড়াই-সংগ্রাম করেছে, বঙ্গবন্ধু তাই উপহার দিয়েছেন এ আইন স্বাধীনতার পরপরই। গণতান্ত্রিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিজেদের সিদ্ধান্ত নিজেরাই নেবে এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ২য় সংস্করণের মাধ্যমে এই বিশ্ববিদ্যালয় তার ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারে না। আমাদের নিজেদের একাডেমিক মান রক্ষা, বিষয়ের বৈচিত্র্যের ভারসাম্যের নিশ্চয়তা, শিক্ষার্থী বেছে নেয়ার স্বাধীনতা, জনগণের প্রত্যাশা পূরণের ঐতিহ্যিক অঙ্গীকার, শতভাগ মেধাভিত্তিক ও দুর্নীতিমুক্ত ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার দায় থেকে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে। প্রত্যাশা থাকবে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিপক্ষে অবস্থান নেবে এবং নিজেদের স্বকীয়তা, স্বাধীনতা, স্বায়ত্তশাসনে অবিচল থাকবে।

প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০

২১/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: