ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ক্লাউড সেবার মার্কেট হবে ৪৬.৩ মিলিয়ন ডলার

প্রকাশিত: ২০:৩৫, ২২ নভেম্বর ২০২৩

২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ক্লাউড সেবার মার্কেট হবে ৪৬.৩ মিলিয়ন ডলার

সেমিনার

২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ক্লাউড পরিসেবার মার্কেট ৪৬.৩ মিলিয়ন ডলারে দাঁড়াবে বলে মন্তব্য করেছেন ডেটাহাব এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক সরোয়ার মোর্শেদ পরাগ। 

মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আয়োজিত ‘পারপাস বিল্ট ডেটা সেন্টার, ডেসটিনেশন অব চয়েস’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এই মন্তুব্য করেন। সেমিনারের আয়োজন করে ডেটাহাব এশিয়া এবং বাংলা মেঘ। 

সরোয়ার মোর্শেদ পরাগ বলেন, দেশের ক্রমবর্ধমান ক্লাউড চাহিদা মেটাতে ডেটাহাব এশিয়া আর্ন্তজাতিক সকল মানদন্ড মেনে গ্রাহক সেবায় প্রস্তুত। যেখানে কাস্টমারের চাহিদা অনুযায়ী ডেটা স্টোরেজ সহ অন্যান্য সকল সুবিধা প্রদানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। 

দেশের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য দেশীয় ডাটা সেন্টারে জাতীয় তথ্য নিরাপত্তা অত্যন্ত জরুরি মনে করে, যা দেশের তথ্য দেশের সীমানাতেই দেশীয় ডাটা সেন্টারের সুরক্ষিত করে নিশ্চিত করা সম্ভব। এ লক্ষ্য মাথায় রেখে ‘ডাটাহাব এশিয়া’ ঠাকুরগাঁও শহরে বাংলাদেশের তথ্য নিরাপত্তার জন্য একটি উদ্যোগ গ্রহণ করে এবং স্বল্প সময়েই একটি অত্যাধুনিক ডাটা সেন্টার তৈরি করে।

তিনি বলেন, একজন ব্যক্তিকে সাতটি নিরাপত্তা বলয় পার হয়ে সার্ভারের কাছে পৌঁছাতে হয়। ভবনটিতে অত্যাধুনিক ধোয়া ও অগ্নিশনাক্তকরণ, অগ্নিনির্বাপক ও নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র ও ব্যবস্থাপনা সংযুক্ত আছে, যা দ্রুততম সময় যেকোনো সম্ভাব্য অগ্নিঝুঁকি থেকে ভবনটিকে রক্ষা করবে। এ সমস্ত নিরাপত্তা নিশ্চিত সাপেক্ষে ডাটাহাব এশিয়া ISO:9001 ও  ISO:22237 Availability Class: 3 & Protection class: 4 সার্টিফিকেট অর্জন করেছে।

ডাটা সেন্টারটি ANSI/TIA-942 RATED 3 / TIER 3 সার্টিফিকেট প্রাপ্ত, যা ক্রমাগত রক্ষণাবেক্ষণ যোগ্য স্থাপনা, টেলিযোগাযোগ, ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করে এবং ডাটা সেন্টারটির যেকোনো যন্ত্রের রক্ষণাবেক্ষণ মেরামত ও পরিবর্তন কোনো শাটডাউন ছাড়াই করা সম্ভব, যা গ্রাহকদের নির্বিঘ্ন সেবা নিশ্চিত করে।

প্রধা্ন অথিতির বক্তৃতায় “ডান অ্যান্ড ব্রডস্ট্রেট অ্যানালাইসিস লি. এর সিইও জারা মাহবুব বলেন, আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে যাচিছ। পুরো দেশ এখন ডিজিটালি কানেক্টেড, এই কানেক্টিভিটিতে প্রচুর পরিমান ডিজিটাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার যুক্ত হয়েছে ফলে প্রচুর পরিমান ডেটা তৈরি হচ্ছে। 
এই সব ডেটার যেমন যথোপযুক্ত সংরক্ষণ প্রয়োজন তেমনি নিরাপত্তাও জরুরি। এই উদ্দ্যেশ বাস্তবায়নে দেশীয় ডেটা সেন্টার এবং ক্লাউড সার্ভিসের গুরুত্ব অপরিসীম। 

সেমিনারে ‘বাংলামেঘ’-এর চেয়ারম্যান শায়েরুল হক জোয়ারদার ক্লাউড সেবার বিভিন্ন পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলেন, ২০২৩ সালের দ্বিতীয় কোয়ার্টারে ক্লাউড সেবার রেভিনিউ দাড়ায় ৬৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। দেশে ডিজিটাল কানেক্টিভিটি বাড়ায় দ্রুত ক্লাউড সেবার বাজার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আর্ন্তজাতিক বিভিন্ন জায়ান্ট কোম্পানি দেশের ক্লাউড বাজারে প্রচুর বিনিয়োগ নিয়ে আসছে। যেখানে দেশের ক্লাইড সেবা ব্যবহার করলে একদিকে যেমন ডলার বাঁচবে অন্যদিকে ডেটার নিরাপত্তা বা রেগুলেশনও ঠিক থাকবে। 

এছাড়া বক্তারা ডলার সাশ্রয়ে দেশীয় আর্ন্তজাতিক মানের ডেটা সেন্টার এবং ক্লাউড সেবার উপর গুরুত্বারোপ করেন। আয়োজনে বক্তারা ডিজিটাল সম্পদ, গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংরক্ষনে সাইবার সিকিউরিটি নিশ্চিতে জোড় প্রদান করেন। সেমিনারে দেশের আইটি, সাইবার সিকিউরিটি এবং ক্লাউড সেবা প্রদানকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজনে ডেটাহাব এশিয়া, বাংলামেঘের উদ্ধতন কর্মকর্তা, বাংলাদেশ, ভারত নেপালসহ বিভিন্ন দেশের আইটি, সাইবার সিকিউরিটি এবং ক্লাউড সেবা প্রদানকারী খাত বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত ছিলেন।

এসআর

×