ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নির্মাণ শ্রমিকের নিরাপত্তা

প্রকাশিত: ২০:০৩, ১৯ মে ২০২৪

নির্মাণ শ্রমিকের নিরাপত্তা

.

রাজধানীর সবুজবাগে নির্মাণাধীন একটি ভবন থেকে নিচে পড়ে শুক্রবার তিন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। ১০ তলা ভবনের বাইরে মাচান থেকে দেওয়ালে প্লাস্টারের কাজ করছিলেন তারা। একজন নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু মানে একটি পুরো পরিবার বিপদগ্রস্ত হয়ে পড়া। তাদের জীবন দিন এনে দিন খাওয়ার মতো। তাই পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তির মৃত্যু হলে ওই পরিবার একেবারে পথে বসে যায়। বহুতল ইমারত নির্মাণের মহড়া এখন সবখানে। সেই সঙ্গে বাড়ছে নির্মাণ শ্রমিকদের জীবনের ঝুঁকিও। প্রায়ই নির্মাণ শ্রমিকের নিহত-আহত হওয়ার খবর আসে। সেসব খবরে থাকে নির্মাণাধীন কোনো স্থাপনার ছাদ ধসে পড়ে কারও মৃত্যুর খবর, কেউ বা প্রাণ হারান অনেক উঁচুতে ঝুলন্ত অবস্থায় কোনো সেফটি গার্ড না থাকার কারণে দড়ি ছিঁড়ে নিচে পড়ে যাওয়ায়, কিংবা নিচ থেকে মালামাল দড়ি দিয়ে বেঁধে ওপরে তুলতে গিয়ে দড়ি ছিঁড়ে নিচে পড়ে।

দেশে প্রতিবছর কী পরিমাণ নতুন ভবন তৈরি হয়, তা নিয়ে কোনো প্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা পাওয়া দুঃসাধ্য। দেশের ক্রম উন্নয়নশীল অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে নির্মাণ শিল্প কলেবরে বড় হচ্ছে প্রতিদিনই। সঙ্গে যোগ হচ্ছে নতুন ঠিকাদার। বাড়ছে নির্মাণ শ্রমিকের সংখ্যাও। নির্মাণকাজ সারাবিশ্বে প্রতিদিন আধুনিকায়নের মধ্য দিয়ে গেলেও আমাদের দেশে এটি এখনো অনেকাংশেই শ্রমিকনির্ভর। সস্তা শ্রম এবং অদক্ষ লোক নিয়োগের সুযোগ থাকায় মেশিনের চেয়ে নির্মাণ শ্রমিকের ওপরে এই নির্ভরতা নিকট ভবিষ্যতে কমে যাওয়ার সম্ভাবনাও খুব কম। বাংলাদেশে নির্মাণ শ্রমিকদের জীবন সহজ নয়। নানা সমস্যায় নির্মাণ শিল্প এবং এর কারিগররা জর্জরিত। নির্মাণ শিল্প অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ একটি শিল্প। এখানে প্রতিদিনই কাজ করতে হয় অসম্পূর্ণ ভবন ঝুঁকিপূর্ণ যন্ত্রপাতি দালানের মধ্যে। দেশে নির্মাণ শ্রমিকদের নিরাপত্তার যে গাইডলাইন রয়েছে, তা মানা হয় না প্রায়ই। শ্রমিকদের জন্য বেশিরভাগ সাইটেই দেখা যায় না কোনো ধরনের নিরাপত্তা পোশাক, হেলমেট এবং গামবুট। এর বাইরে ইট তোলা, রড বহন করাসহ বিভিন্ন ভারী উপকরণ ব্যবহারেও রয়েছে নিরাপত্তার ঘাটতি। সেইসঙ্গে অনেক সাইটেই সেফটি নেটও ব্যবহার করা হয় না। যে কারণে পড়ে গিয়েও অনেক দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থেকে যায়।

ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করলেও কোনো ধরনের জীবনবিমা বা ওয়ার্ক ইন্স্যুরেন্সের ব্যবস্থা নেই। ঢাকায় বেশিরভাগ নির্মাণ সাইটের শ্রমিকরা নির্মাণ সাইটেই বসবাস করেন। স্বল্প বেতনে আবাসনের সুযোগ ঢাকায় না থাকাই মূলত এই কাজে তাদের বাধ্য করে। ফাউন্ডেশনের সময় তারা থাকেন ভবন নির্মাণে খুঁড়তে থাকা মাটিতেই। ভবনের ফ্লোর ঢালাই হয়ে গেলে তারা শিফট করেন ভবনে। এসব ভবনে নিরাপদ বৈদ্যুতিক লাইন থেকে শুরু করে, পানি এবং পয়ঃনিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থাই থাকে না। এসব কারণে তারা প্রায় মানবেতর জীবনযাপন করেন।

দুর্ঘটনায় নিহত শ্রমিকের পরিবারকে ১৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদান, নারী নির্মাণ শ্রমিকদের সমমজুরি চালুসহ নির্মাণ শ্রমিকদের ন্যায্য দাবিগুলো বরাবরই উপেক্ষিত থেকেছে। নির্মীয়মাণ ভবনের ইট-সিমেন্ট-পাথরে নিহত শ্রমিকের নাম লেখা না থাকলেও ভবনটি সাক্ষী হয়ে থাকে মানব হত্যার। তাই মানবিক বিবেচক হওয়ার আহ্বান জানানো আবশ্যক সংশ্লিষ্টদের। সেইসঙ্গে শ্রমিকের সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হোক।

×