ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

‘ভিউয়ের প্রাধান্যে ভালো গল্পের কাজ কমে গেছে’

এন আই বুলবুল

প্রকাশিত: ০০:৪৪, ১৬ মে ২০২৪; আপডেট: ১৩:১৪, ১৬ মে ২০২৪

‘ভিউয়ের প্রাধান্যে ভালো গল্পের কাজ কমে গেছে’

নাদিয়া আহমেদ

জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী নাদিয়া আহমেদ। ২০০০ সালে নায়িকা হিসেবে টিভি পর্দায় আসেন তিনি। ‘ছায়া-কায়া’ শিরোনামের নাটকে তিনি প্রথম নায়িকা চরিত্রে নাম লেখান। এখনো নিয়মিত অভিনয় করছেন এ অভিনেত্রী। বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে তার অভিনীত একাধিক ধারাবাহিক নাটক। অভিনয়ের বাইরে নৃত্যশিল্পী হিসেবেও তিনি দারুণ সমাদৃত। বর্তমান ব্যস্ততা ও সমসাময়িক নানা প্রসঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- 

ক্যারিয়ারে দুই যুগ পার করছেন। এ সময়ের অভিজ্ঞতা কেমন?
কোনো একটা মাধ্যমে কেউ দীর্ঘদিন থাকলে সেখান থেকে অনেক কিছু জানার-বোঝার ও শেখার সুযোগ হয়। ২০০০ সাল থেকে টিভি নাটকে অভিনয় করছি। একটু একটু করে আজকের এ অবস্থানে এসে দাঁড়ালাম। এরমধ্যে ছোট-বড় অনেক মানুষের সঙ্গে মেশার সুযোগ হয়েছে। কাছ থেকে দেখেছি আমাদের সিনিয়র শিল্পীরা কিভাবে অভিনয় করতেন কিভাবে জুনিয়রদের শেখাতেন।

সে সময়ে একজন নতুন শিল্পী হিসেবে সিনিয়রদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পেরিছ। যেটি এখনো আমার কাজে লাগছে। দীর্ঘ সময় পার করার পরেও দর্শক আমার নাটক দেখছেন শিল্পী হিসেবে এটি আমাকে আনন্দ দেয়।

আপনাকে টিভি নাটকেই বেশি দেখা যায়। কিন্তু এখন তো ইউটিউবের যুগ। এ মাধ্যমে তেমন নেই কেন?
আমার শুরুটা টিভি নাটকের নির্মাতাদের হাত ধরেই। আগে যারা টিভি নাটক নির্মাণ করতেন তাদের অনেকই এখন আর আগের মতো কাজ করছেন না। আবার যারা এখন ইউটিউবের জন্য নাটক করছেন তাদের সঙ্গেও আমর একটা গ্যাপ আছে। এছাড়া ইউটিউবের জন্য এখন যে ধরনের গল্পের নাটক হচ্ছে এগুলোর সঙ্গে এ সময়ে আমাকে মানায় না।

গল্পে চটুলতা থাকতেই পারে, তবে তার সঙ্গে যদি একজন শিল্পীর বয়সনুয়ায়ী চরিত্র না হয় সে কাজ না করাই ভালো।  সম্প্রতি কয়েকটি সিঙ্গেল নাটকের কাজ ফিরিয়ে দিয়েছি। এসব নাটকের গল্পের সঙ্গে কোনোভাবেই আমাকে যায় না। অনেকের মন্তব্য এখন নাটকে ভালো গল্প হচ্ছে না। এ নিয়ে আপনি কি বলবেন?
এখন বেশিরভাগ নির্মাতা ইউটিউবকে প্রাধান্য দিয়েই নাটক নির্মাণ করছেন। ইউটিউবের দর্শক একটু চটুল ও কমেডি কথার নাটকই বেশি দেখছেন। এসব নাটকে ভিউও বেশি হচ্ছে। নির্মাতা ও প্রযোজকদের টার্গেট থাকে এখন ভিউ। এখন ভিউ একটা দুর্বল স্ক্রিপ্টের নাটকেও হতে পারে। তাই বলে সে নাটককে ভালো বলার কিছু নেই। ভিউকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে ভালো গল্পের কাজ কমে গেছে। 
নাটকে আপনার এখন ব্যস্ততা কেমন?
প্রতি মাসের ১০-১২ দিন সিরিয়ালের শূটিং করছি। ‘বকুলপুর’, ‘গোলমাল’ ও ‘মিলন হবে কতদিনে’ এ তিনটি সিরিয়ালের শূটিং করতে হচ্ছে। ‘বকুলপুর’ ধারাবাহিকটি এরমধ্যে ৭শ’পর্ব অতিক্রম করেছে। বাংলাদেশের নাটকের ইতিহাসে এটা উল্লেখযোগ্য ঘটনা। ‘বকুলপুর’ আগের সিজনে করোনার কারণে আমরা শূটিং করতে পারিনি। তখন ৩০০ পর্বেই শেষ করতে হয়েছিল। পরে দর্শকের আগ্রহেই সিজন ২ শুরু করতে হয়েছে। গল্পে সামান্য পরিবর্তন এনে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে নতুন করে শূটিং শুরু হয়।
ওটিটি ও সিনেমাতে কি কাজ করতে চান?
করোনার শেষের দিকে ওটিটির একটি কাজ করেছি। এরমধ্যে ওটিটির আর কোনো কাজ করা হয়নি। আসলে আমরা একটু খেয়াল করলে দেখতে পারব এখানে কারা কাজ করছেন। সত্যি বলতে, নির্দিষ্ট কয়েকজনই ঘুরে ফিরে এখানে কাজের সুযোগ পাচ্ছে। ওটিরি বাইরে সিনেমাতে কাজ করতে চাই। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে সিনেমার জন্য প্রচুর প্রস্তাব পেয়েছি। সে সময়ের অনেক বড় বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকেও আমি সিনেমার প্রস্তাব পেয়েছিলাম।

কিন্তু সিনেমাতে কাজ করা জন্য আগ্রহ দেখায়নি। কারণ আমি নাচের শিল্পী হলেও সিনেমার গানে যে নাচ সেটি আমার দ্বার সম্ভব হবে না ভাবতাম। সিনেমাকে আগে না করার কারণে এখনো অনেকেভাবে আমি হয়তো সিনেমায় কাজ করতে চাই না। তবে এখন যে ধরনের গল্পনির্ভর সিনেমা হচ্ছে তেমন কোনো গল্পের কাজ পেলে সেটি করব।
নৃত্যশিল্পী হিসেবে আপনার দারুণ জনপ্রিয়তা আছে। এ মাধ্যমে কেমন ব্যস্ততা যাচ্ছে?
আমাদের টিভি চ্যানেলগুলো নৃত্যশিল্পীদের সঠিক মূল্যয়ন করছে না। একটা সময় প্রতিটি দিবসে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে নাচের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো। এখন আর সেটি নেই। মাঝে মধ্যে দুই একটি নাচের প্রোগ্রাম করলেও সেখানে অন্যদের প্রাধ্যন্য দিচ্ছে। গেল কয়েক বছর ধরে আমি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে বলে আসছি নৃত্যানুষ্ঠানের দিকে নজর দিতে। কে শোনে কার কথা! টেলিভিশনগুলোতে এখন নৃত্যানুষ্ঠান শূন্যের কোঠায়। গত ঈদে বিটিভিতে একটি মাত্র নৃত্যানুষ্ঠান হয়েছে, সেটা আমি করেছি। আর কোনো চ্যানেলে কিন্তু নৃত্যানুষ্ঠান হয়নি।

×