ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় স্মার্ট বাংলাদেশ নিয়ে দুই শিক্ষার্থীর বই

শাহ বিলিয়া জুলফিকার

প্রকাশিত: ০০:৫৬, ২৩ জুন ২০২৪

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় স্মার্ট বাংলাদেশ নিয়ে দুই শিক্ষার্থীর বই

স্মার্ট বাংলাদেশ নিয়ে দুই শিক্ষার্থীর বই

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন ও সরকার পরিচালনা বিদ্যা বিভাগের স্নাতকোত্তর ২০২১-২২ সেশনের শিক্ষার্থী মো. আশিকুর রহমান (সৈকত) এবং অনুপম সরকারের যৌথ প্রচেষ্টায় রচিত “Towards Smart Bangladesh: Navigating Tomorrow's Digital Landscape” বইটি উন্মোচন করা হয়েছে। ২০২৪ সালের ৫ জুন, বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কক্ষে উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন।

উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রফেসর সৌমিত্র শেখর বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এই দুই শিক্ষার্থীর প্রচেষ্টা আমাদের যাত্রায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তাদের কাজ আমাকে অনেক অনুপ্রাণিত করেছে। ভবিষ্যতে এমন সৃজনশীল কাজ চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করছি।’
বইটির সহ-লেখক সৈকত বলেন, ‘আমরা যখন বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এই ডিজিটাল বিপ্লবের বহুমুখী দিকগুলো অন্বেষণ ও ব্যাখ্যা করতে শুরু করি, তখন আমরা প্রযুক্তির সম্ভাবনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সহ-লেখক হিসেবে একত্রিত হই- দুই ব্যক্তি যারা নিজেদের মাতৃভূমির ভবিষ্যৎকে গড়ার প্রযুক্তির সম্ভাবনায় অনুপ্রাণিত। বইটি আমাদের সম্মিলিত দৃষ্টিভঙ্গির পরিণতি, একটি যৌথ প্রচেষ্টা যা সামনে থাকা প্রতিশ্রুতিশীল সুযোগ এবং চ্যালেঞ্জগুলোর ওপর আলোকপাত করতে চায়।’
সহ-লেখক অনুপম বলেন, ‘এটি শুধু একটি বই নয়, এটি একটি আহ্বান। এটি হাতে হাত ধরে এগিয়ে যাওয়ার, ডিজিটাল যুগকে উন্মুক্ত হৃদয়ে গ্রহণ করার এবং একটি সমৃদ্ধ, টেকসই এবং সত্যিই স্মার্ট ভবিষ্যৎ সহ-সৃষ্টির আমন্ত্রণ। আসুন আমরা এই যাত্রায় একসঙ্গে এগিয়ে যাই। একটি স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্নে উদ্বুদ্ধ হই।

একটি জাতি যেখানে প্রযুক্তি বিলাসিতা নয় বরং অগ্রগতির একটি হাতিয়ার, সবার জন্য একটি উজ্জ্বল আগামীর সেতু।’ উন্মোচন অনুষ্ঠানে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. আতাউর রহমান, রেজিস্ট্রার ড. হুমায়ুন কবির, প্রক্টর সঞ্জয় কুমার মুখার্জি, জনসংযোগ অফিসের অতিরিক্ত পরিচালক ও ভিসির পিএস এসএম হাফিজুর রহমানসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
বইটি বাংলাদেশের ডিজিটাল রূপান্তরের সম্ভাবনা নিয়ে একটি বিস্তৃত গাইড। এটি দেশের ডিজিটাল অবস্থা, ভবিষ্যতের সুযোগ এবং চ্যালেঞ্জ নিয়ে আলোচনা করে। বইটি বিশেষভাবে ই-গভর্ন্যান্স, ডিজিটাল অর্থনীতি এবং ডিজিটাল সমাজে প্রযুক্তির ভূমিকা তুলে ধরে, যা বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ গঠনে সহায়ক হবে। বইটি এমনভাবে লেখা হয়েছে যাতে নীতিনির্ধারক, শিল্প পেশাদার এবং সাধারণ পাঠকরা সহজে বুঝতে পারেন।

এটি ডিজিটাল প্রযুক্তির সম্ভাবনা নিয়ে ভারসাম্যপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি প্রদান করে, যা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, জনসেবার উন্নতি এবং বাংলাদেশের নাগরিকদের জীবনের মান উন্নত করতে পারে। বইটি রকমারি ডট কম থেকে দেশের যে কোনো অংশ এবং বিদেশ থেকেও সংগ্রহ করা যাবে।

×