ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১

জ্ঞান-বিজ্ঞানের নগরী বুখারা

প্রকাশিত: ২০:৩১, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

জ্ঞান-বিজ্ঞানের নগরী বুখারা

.

যারাফশান নদীর তীরে দীর্ঘ উপত্যকায় উজবেকিস্তানের প্রাচীন শহর বুখারা মধ্য এশিয়ার ছিমছাম, নিরিবিলি অথচ প্রাণবন্ত শহর। রেশমের জন্য বুখারার খ্যাতি জগৎজোড়া। বুখারায় প্রাকৃতিক গ্যাস, তুলা, ফল ইত্যাদি উৎপাদিত হয়। পাশাপাশি বস্ত্র, কার্পেট পশমের জন্যও বুখারা বিখ্যাত। খ্রিস্টপূর্ব ১৩ শতকে বুখারা শহরের গোড়াপত্তন হয়। সিল্ক রুটের অন্যতম শহর হওয়ায় ৯ম খ্রিস্টাব্দ থেকে বহু শিল্পী, কবি বিজ্ঞানী বুখারায় ভিড় করতে শুরু করেছিল। তখনকার এক ন্ডি বুখারাকেসময়ের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের মিলন স্থল, বিশ্বের শিল্প-সংস্কৃতির তারকা ব্যক্তিদের উত্থানের জায়গা এবং সময়ের কৃতি সন্তানদের সম্মেলন স্থল হিসেবে আখ্যা দিয়েছিলেন।

উজবেকিস্তানের বিখ্যাত শহর সামারকন্দের পশ্চিমে অবস্থিত বুখারা মধ্য এশিয়ায় ইসলামের ঐতিহ্যবাহী নগরী, ইসলামী সংস্কৃতি ধর্মীয় দর্শনের অন্যতম পীঠস্থান, আরেক বিখ্যাত নগর সমরকন্দের সঙ্গে সমুচ্চারিত তার নাম। বুখারা এক সময় ইসলামচর্চার অন্যতম প্রাণকেন্দ্র ছিল। এখানেই ইমাম বুখারি (রহ.) তাঁর জগদ্বিখ্যাত বুখারি শরিফের সংকলন সম্পন্ন করেন। শহরেই শায়েখ বাহাউদ্দিন নকশবন্দি (রহ.) আধ্যাত্মিক সাধনায় ব্রতী হয়েছিলেন।

ঝিলিমিলি ডেস্ক

×