রবিবার ৯ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ছয় দফা ॥ স্বাধিকারের আড়ালে স্বাধীনতা

ছয় দফা ॥ স্বাধিকারের আড়ালে স্বাধীনতা
  • মোস্তাফা জব্বার

॥ পাঁচ ॥

ছয় দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আহূত ৭ জুনের হরতাল সম্পর্কে সকল সত্য তথ্য গোপন করে আইয়ুব সরকার পুরোপুরি মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য বিবরণী প্রচার করে। হরতাল সম্পর্কে সরকাীর প্রেস বিজ্ঞপ্তিটি ছিল সুদীর্ঘ। মিথ্যা তথ্য বিবরণী উল্লেখ করে নিবন্ধটি ভারাক্রান্ত করার চেয়ে আমরা ৭ জুন বঙ্গবন্ধুর নজরে কেমন ছিল সেটি জানি। কারাগারের রোজনামচায় বঙ্গবন্ধু সেদিনের চিত্র তুলে ধরেন এভাবে;

সরকার কর্মীদের বন্দী করেও অত্যাচার করেছে, ২৪ ঘণ্টা তালা বন্ধ করে রেখেছে জেলের মধ্যে। নারায়ণগঞ্জে মোস্তফা সারওয়ার, শামসুল হক, ভূতপূর্ব এম পিএ হাফেজ মুছা সাহেব, আবদুল মোমিন এ্যাডভোকেট, ওবায়দুর রহমান, শাহবুদ্দিন চৌধুরীর মতো নেতৃবৃন্দকে ‘সি’ ক্লাস করে রাখা হয়েছে। কি করে এ সরকার সভ্য সরকার বলে দাবি করতে পারে আমি ভেবেও পাই না।

কারাগারের দুর্ভেদ্য প্রাচীর ভেদ করে খবর আসল দোকানপাট, গাড়ি, বাস, রিক্সা সব বন্ধ। শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল চলছে। এই সংগ্রাম একলা আওয়ামী লীগই চালাচ্ছে। আবার সংবাদ পেলাম পুলিশ-আনসার দিয়া ঢাকা শহর ভরে দিয়েছে। আমার বিশ্বাস নিশ্চয়ই জনগণ বেআইনী কিছুই করবে না। আবার খবর এলো পুলিশ টিয়ারগ্যাস বেড়েছে। কিছু লোক গ্রেফতার হয়ে জেল অফিসে এসেছে। তার মধ্যে ছোট ছোট বাচ্চাই বেশি। রাস্তা থেকে ধরে এনেছে। ১২টার পর খবর পাকাপাকি পাওয়া গেল যে হরতাল হয়েছে। জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে হরতাল পালন করেছে। তারা ছয় দফা সমর্থন করে আর মুক্তি চায়, বাঁচতে চায়, খেতে চায়, ব্যক্তি স্বাধীনতা চায়। একটু পরই খবর এলো ঢাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। মিটিং হতে পারবে না। বিকেলে আরও বহু লোক গ্রেফতার হয়ে এলো। প্রত্যেককে সামারি কোর্ট করে সাজা দিয়ে দেয়া হয়েছে। কাউকে এক মাস কাউকে দুই মাস। গুলি ও মৃত্যুর খবর পেয়ে মনটা খারাপ হয়ে গেল। তবুও কর্মীরা, ছাত্ররা ও শ্রমিকরা যে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে, তাদের জন্য ভালবাসা দেয়া ছাড়া আমার দেয়ার কিছুই নেই। মনে শক্তি ফিরে এলো এবং আমি দিব্যি চোখে দেখতে পেলাম ‘জয় আমাদের অবধারিত।’ কোন শক্তি আর দমাতে পারবে না।

৮ জুন ১৯৬৬ বুধবার ভোরে উঠে শুনলাম সমস্ত রাতভর গ্রেফতার করে জেল ভরে দিয়েছে পুলিশ বাহিনী। প্রায় তিন শ’ লোককে সকাল আটটা পর্যন্ত জেলে আনা হয়েছে। অনেক যুবক আহত অবস্থায় এসেছে। কারও পায়ে যখম কারও কপাল কেটে গিয়েছে, কারও হাত ভাঙ্গা এদের চিকিৎসা দেয়া বা ওষুধ দেয়ার কোন দরকার মনে করে নাই কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়ে জেল কর্তৃপক্ষকে জানালাম-অত্যাচার বন্ধ করুন। তা না হলে ভীষণ গোলমাল হতে পারে।

এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, ওইদিন হরতালে ব্যাপক সহিংসতা ঘটেছিল, পাকিস্তানের ইতিহাসে কোন হরতালে এত বেশি সংখ্যক মানুষের হতাহত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি। ছয় দফার কারণে সরকার আওয়ামী লীগের ওপর কতখানি ক্ষিপ্ত ছিল তা ওই দিনের হরতালে সরকারের আচরণ থেকে স্পষ্ট বোঝা যায়। ৭ জুন এতবড় হত্যাকাণ্ড ঘটে গেল ‘কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় ন্যাপ সম্পূর্ণ নীরব। কিন্তু তার আগে স্বায়ত্তশাসন দাবির বিরুদ্ধে যে দমননীতি ও ব্যাপক ধরপাকড় চলছিল ন্যাপ নেতারা তারও সমালোচনা করেননি।’ এ হরতালের এতটা ব্যাপকতা ছিল যে, এ সম্পর্কে কোন প্রতিবেদন, মুদ্রণ ও প্রকাশের ওপর সরকারের নিষেধাজ্ঞা ছিল। বিধিনিষেধ সত্ত্বেও মানিক মিয়া তার কলামে লেখেন, ছয় দফা আন্দোলনকে নস্যাত করার জন্য গৃহীত নিষ্ঠুর ব্যবস্থাদির কারণে মর্মান্তিক পরিস্থিতিতে একমাত্র সান্ত্বনার বিষয় হলো এই যে জনসাধারণ ছয় দফা আন্দোলন তথা আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসনের আন্দোলনকে তাদের নিজেদের আন্দোলন হিসেবে গ্রহণ করেছে। হরতাল কর্মসূচী ও ছয় দফার পক্ষে জনমত তৈরির জন্য ক্ষুব্ধ হয়ে ১৯৬৬ সালের ১৬ জুন পাকিস্তান প্রতিরক্ষা বিধির ৩২ (১) ধারার আওতায় তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াকে গ্রেফতার এবং দ্য নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস বাজেয়াফত করে। ছয় দফা বানচাল করার জন্য আওয়ামী লীগের কোন ন্যামপ্লেট, পোস্টার ছাপাতে দেয়া হয়নি, যে প্রেসই ছাপায় তার মালিককে দেশরক্ষা আইনে গ্রেফতার করা হয়।

দেশে যখন তীব্র দমন-নিপীড়ন চলছিল তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের মা গোপালগঞ্জে অত্যন্ত অসুস্থ বলে তার কাছে সংবাদ আসে। তিনি উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় জেলের অভ্যন্তরে ছিলেন মায়ের জন্য। কারাগারের রোজনামচায় মায়ের কথা সম্নরণ করে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘পাকিস্তান কায়েম হওয়ার পরেই ১৯৪৮ এ যখন আমাকে বাংলা ভাষা আন্দোলনের সময় গ্রেফতার করল, আবার ১৯৪৯ সালে গ্রেফতার করে ১৯৫২ সালে ছাড়ল, তখন আমার মা আমাকে জিজ্ঞাসা করল ‘বাবা, তুই তো পাকিস্তান পাকিস্তান করে চিৎকার করেছিস, কত টাকা নিয়ে খরচ করেছিস-এদেশের মানুষ তো তোর কাছ থেকেই পাকিস্তানের নাম শুনেছিল, আজ তোকেই সেই পাকিস্তানের জেলে কেন নেয়?’

বঙ্গবন্ধুর পরিবার-পরিজনের প্রতি আকর্ষণ ছিল দুর্বার। পরিবারের সদস্যবৃন্দ ৯ জুন জেলখানায় তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট থেকে দেখা যায় যে ‘তিনি তার বড় ছেলেকে গোপালগঞ্জে গিয়ে ওর দাদির শরীরের অবস্থা জরুরী ভিত্তিতে (প্রয়োজনে টেলিফোন করে) তাকে জানাতে পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং গভর্নরের সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করে তার মায়ের শারীরিক অবস্থার কথা জানতে বলেছেন। তিনি অবশ্য প্যারোলে মুক্তির ব্যাপারে আদৌ আগ্রহ দেখাননি, কেননা তার মা এ ধরনের চিন্তার কথা শুনলে আরও বেশি ক্ষিপ্ত হবেন। বঙ্গবন্ধু নিঃশর্ত মুক্তি চান, কোন প্যারোলে মুক্তি নয়।’ (বোঝা যাচ্ছে ওই সময় শেখ মুজিব মায়ের জন্য খুবই উদ্বিগ্ন ছিলেন। ডিআইজি (প্রিজন)-কে ১২ জুন তারিখ লেখা এক চিঠিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব জানান যে, তাঁর মা খুবই অসুস্থ এবং এ খবরে তিনি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন এবং সে কারণে জরুরী ভিত্তিতে তার স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা, ছেলেমেয়ে হাসিনা, কামাল, জামাল, রেহানা ও রাসেল এবং ফুফাত ভাই মোমিনুল হকের সঙ্গে সাক্ষাত করতে চান।

লক্ষণীয় বিষয় ছিল ৭ জুনের হরতালে সরকারের বড় ধরনের নির্যাতন-নিপীড়ন করার পরও আওয়ামী লীগ পিছিয়ে যায়নি। কেননা আওয়ামী লীগ লক্ষ্য করেছে চরম প্রতিকূল অবস্থার মধ্য থেকেও দলের আহূত হরতালে জনগণের সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল আশাতীত।

পাকিস্তান সরকার ৭ জুনের হরতালকে নৈরাজ্যের দিকে ঠেলে দিয়েছিল। সাধারণ মানুষের মধ্যে আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বিরূপ ধারণা সৃষ্টির জন্য যখন তা করতে ব্যর্থ হয় তখন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ধরপাকড় এবং আওয়ামী লীগ বিরোধী প্রচার সর্বত্র জোরদার করতে থাকে। ২২ জুন তারিখ পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান চৌধুরীকে চাঁদপুরে তার বাসভবন থেকে গ্রেফতার করা হয়। মিজানুর রহমান চৌধুরীকে গ্রেফতার করার পর ধারণা করা হয়েছিল আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার মতো কেউ থাকবে না। কিন্তু আওয়ামী লীগ কৌশলগত কারণেই দলের মহিলা সম্পাদিকা মিসেস আমেনা বেগমকে ২৩ ও ২৪ জুলাই, ১৯৬৬ সালে অনুষ্ঠিত ওয়ার্কিং কমিটির সভায় দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করে। ওয়ার্কিং কমিটি পূর্ব পাকিস্তানের সর্বত্র জেলা ও গ্রাম পর্যায়ে ছয় দফা আদায়ে, জনমত সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। তবে এটি বোধগম্য যে, আওয়ামী লীগের প্রথম সারির সকল নেতাকর্মী তখন জেলে। এরূপ এক সঙ্কটময় মুহূর্তে দলের অবশিষ্ট নেতৃবৃন্দ আত্মগোপন করে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে থাকেন। ফলে সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং মিসেস আমেনা বেগমের পরিচালনায় সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড সচল রাখার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলাতেই ব্যস্ত ছিলেন। তাঁরা উভয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় জনসভার মাধ্যমে ছয় দফার বৈধতা যৌক্তিকতা ন্যায্য দিকগুলো জনসমক্ষে তুলে ধরতে থাকেন এবং নিহতদের ক্ষতিপূরণ দান, নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেসের বাজেয়াফতকরণ বাতিল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবসহ রাজবন্দীদের মুক্তি দাবিসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া উপস্থাপন করতে থাকেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে পাকিস্তান রক্ষাবিধি আইনের মামলার শুনানি ঢাকা জেলের অভ্যন্তরে ৮ আগস্ট ঢাকার প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট আফসার উদ্দিনের কোর্টে অনুষ্ঠিত হয়। কোন প্রকাশ্য আদালতে নয় জেলের অভ্যন্তরে এটিই প্রথম আদালত বলে কেউ কেউ অভিহিত করে থাকেন। সরকারের দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ছিল বলেই এই ব্যবস্থা নেয়া হয়। পাকিস্তান প্রতিরক্ষা বিধির ৩২ দফা বলে ১৯৬৬ সালের ৯ আগস্ট শেখ মুজিবুর রহমান, তাজউদ্দীন আহমদ, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, খন্দকার মোশতাক আহমদের আটকাদেশ চ্যালেঞ্জ করে ঢাকা হাইকোর্টে একটি আবেদন পেশ করা হয়। হাইকোর্টের একটি বিশেষ বেঞ্চ এই আবেদন নাকচ করে দিলে ওই দিন ৫ জন বিচারপতি নিয়ে গঠিত বেঞ্চ নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেস বাজেয়াফতকরণকে সর্বসম্মতভাবে অবৈধ ঘোষণা করে রায় প্রদান করে। তবে বিশেষ বেঞ্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ আওয়ামী লীগ নেতাদের আটকাদেশকে ৪-১ ভোটে বৈধ ঘোষণা করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে রমনা থানায় নতুন করে দায়ের করা মামলা নং ৯৮(১১)/৬৪,৪/৫ ৭(৩) ইপি অনুযায়ী শুনানির তারিখ ঢাকা জেলা প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট এমএ মালিক ঢাকা জেলের অভ্যন্তরে প্রথমে ১৭ সেপ্টেম্বর নির্ধারিত করলেও পরে তা ২৭ তারিখ পুনর্র্নির্ধারণ করেন। এ উপলক্ষে জেলখানায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ২২-০৯-৬৬ তারিখের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২৬-০৯-৬৬ তারিখ এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম খান, এ্যাডভোকেট জহিরুদ্দিন এবং এ্যাডভোকেট আবুল হোসেন তার সঙ্গে জেলখানায় সাক্ষাত করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নতুন নতুন মামলায় জড়িয়ে হেনস্তা করার উদ্যোগ পাকিস্তান সরকারের অব্যাহত ছিল। তবে বেশ কিছু পুরনো মামলায় সরকার পক্ষ কিছুই প্রমাণ করতে না পারায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব অব্যাহতি পান। যেমন ১৯৬৪ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর পাকিস্তান নিরাপত্তা আইনের ৭-৩ ধারা অনুযায়ী দায়ের করা মামলার রায় ১৯৬৪ সালের ২৪ অক্টোবর ঢাকা কেন্দ্রীয় জেলের অভ্যন্তরে দেয়া হয়। এতে বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তানের নিরাপত্তার পক্ষে ক্ষতিকর কার্যকলাপের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। তবে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার মামলায় ১০ অক্টোবর জেলের অভ্যন্তরে শুনানি দেশ রক্ষা আইনের ৫২(২) ধারা অনুযায়ী নিউ নেশন প্রিন্টিং প্রেসকে পুনরায় বাজেয়াফত করা হয়। সংবাদপত্রের কণ্ঠরোধ করাও ছিল সরকারের কর্মকাণ্ডের একটি বিশেষ পদক্ষেপ। শুধু তাই নয় চাকরিচ্যুত করেও সরকার প্রতিশোধ গ্রহণ করে।

ঢাকা ॥ প্রথম লেখা ১৬ অক্টোবর ২০২০ ॥

সর্বশেষ সম্পাদনা ২০ নবেম্বর ২০২০ ॥

মতামত লেখকের নিজস্ব ॥

লেখক : তথ্যপ্রযুক্তিবিদ, কলামিস্ট, দেশের প্রথম ডিজিটাল নিউজ সার্ভিস আবাস-এর চেয়ারম্যান-সাংবাদিক, বিজয় কীবোর্ড ও সফটওয়্যার-এর জনক

[email protected],

www.bijoyekushe.net.bd,

www.bijoydigital.com

শীর্ষ সংবাদ:
পুরান কাপড়ের যুগ শেষ ॥ দেশের মর্যাদা সুরক্ষায় বন্ধ হচ্ছে আমদানি         প্রধানমন্ত্রী আজ পুলিশ সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন         ভিসির পদত্যাগ দাবিতে এবার কাফন মিছিল শাবি শিক্ষার্থীদের         ইসি নিয়োগ বিল আজ সংসদে উঠছে         দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব-নাসিকই প্রমাণ         ভ্যাট ও ট্যাক্স আদায়ে হয়রানি বন্ধের দাবি ব্যবসায়ীদের         মাদক চালান আসা কেন বন্ধ হচ্ছে না-কোথায় ঘাটতি?         অবৈধ মজুদদারের কব্জায় পাট ॥ কৃত্রিম সঙ্কটে দাম বাড়ছে         দেশে করোনায় আরও ১৭ জনের মৃত্যু         বয়সের অসঙ্গতি দূর করে নীতিমালা সংশোধন         প্রশ্নফাঁস চক্রে সরকারী কর্মকর্তা ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান         সর্বোচ্চ ৫ বছর জেল, ১০ লাখ টাকা জরিমানার প্রস্তাব         অবশেষে আলোর মুখ দেখল চট্টগ্রাম ওয়াসার পয়ঃনিষ্কাশন প্রকল্প         মোহাম্মদপুরে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যা         গ্যাসের দাম দ্বিগুণ বাড়ানোর প্রস্তাব         জনগণের সেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান         অপরাধ দমনে নিরলস কাজ করছে পুলিশ ॥ প্রধানমন্ত্রী         অনশন ভেঙে শিক্ষার্থীদের আলোচনায় বসার আহবান শিক্ষামন্ত্রীর         এবার গণঅনশনের ঘোষণা দিলেন শাবি শিক্ষার্থীরা         করোনা ভাইরাসে আরও ১৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৯৬১৪