মঙ্গলবার ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ০৭ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

প্রধানমন্ত্রীর করোনা-জয়ের সঙ্কল্প

  • ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী

জাতীয় কবি নজরুলের ‘বিশ্বাস ও আশা’ কবিতা নিবিড়ভাবে ধারণ করেই সম্ভবত বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘করোনা প্রতিরোধ’ যুদ্ধে জয়ী হওয়ার সঙ্কল্প দৃঢ়চিত্তে ব্যক্ত করেছেন। কবিতার কয়েকটি পঙ্ক্তি নিবন্ধের সূচনায় উপস্থাপন করতে চাই- ‘বিশ্বাস আর আশা যার নাই, যেয়ো না তাহার কাছে/নড়াচড়া করে, তবুও সে মড়া, জ্যান্তে সে মরিয়াছে।/শয়তান তারে শেষ করিয়াছে, ইমান লয়েছে কেড়ে,/পরান গিয়াছে মৃত্যুপুরীতে ভয়ে তার দেহ ছেড়ে।/থাকুক অভাব দারিদ্র্য ঋণ রোগ শোক লাঞ্ছনা,/যুদ্ধ না ক’রে তাহাদের সাথে নিরাশায় মরিও না।/ভিতরে শত্রু ভয়ের ভ্রান্তি মিথ্যা ও অহেতুক/নিরাশায় হয় পরাজয় যার তাহার নিত্য দুঃখ।’

সমসূত্রে ১৯০৭ সালে বিশ্বকবি রবিঠাকুর রচিত কবিতার কয়েকটি পঙ্ক্তিরও বন্দনা করতে চাই- ‘বিপদে মোরে রক্ষা করো এ নহে মোর প্রার্থনা,/বিপদে আমি না যেন করি ভয়।/দুঃখ তাপে ব্যথিত চিতে নাই-বা দিলে সান্ত¦না,/দুঃখে যেন করিতে পারি জয় ॥/সহায় মোর না যদি জুটে নিজের বল না যেন টুটে,/সংসারেতে ঘটিলে ক্ষতি, লভিলে শুধু বঞ্চনা/নিজের মনে না যেন মানি ক্ষয়।’ গরবিনী বাঙালী জাতির বাঙ্নিষ্ঠ প্রায়োদ্বীপ কবি নজরুল ও রবিঠাকুর মানব বিধ্বংসী দেশ-মহাদেশ ব্যাপ্ত ব্যাধি বা মহামারী সম্পর্কে সম্যক ধারণাঋদ্ধ ছিলেন বলেই এই অসাধারণ মনন-সৃজিত কবিতায় শক্তিমানতার প্রার্থনা নিবেদন করেছেন।

সমাজ-সভ্যতার ক্রমবিকাশের ধারায় প্রায় বার হাজার বছরের অস্তিত্ব-অভিজ্ঞতায় কেবল গুটিবসন্ত রোগে তিন থেকে পাঁচ কোটি মানুষের প্রাণ বিনাশের বিষয়টি অনেকেরই অজানা নয়। ১৬৫ খ্রিস্টাব্দে প্রাচীন মিসর, গ্রীস ও ইতালিসহ অন্যান্য অঞ্চলে ‘এন্টোনাইন প্লেগে’ মৃতের সংখ্যা ছিল পঞ্চাশ লাখ। ৫৪১-৫৪২ খ্রিস্টাব্দে ‘জাস্টিনিয়ান প্লেগে’ আক্রান্ত প্রায় আড়াই কোটি ইউরোপবাসী, ১৩৪৬-১৩৫৩ সালে ইউরোপ, আফ্রিকা ও এশিয়ায় প্লেগ রোগের কারণে ‘কালো মৃত্যু’র শিকারে প্রায় সাড়ে সাত কোটি থেকে বিশ কোটি, ১৮৫২-১৮৬০ সালে তৃতীয় কলেরা মহামারীর ফলে ভারতবর্ষ, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা এবং আফ্রিকার প্রায় দশ লাখ (ইংল্যান্ডে ছিল তেইশ হাজার), ষষ্ট কলেরা মহামারীতে (১৯১০-১৯১১) মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা, পূর্ব ইউরোপ এবং রাশিয়ায় প্রাণসংহারের সংখ্যা ছিল প্রায় আট লাখ।

অধিকন্তু, ১৯১৮ সালে ইনফ্লুয়েঞ্জা ফ্লুতে প্রায় পুরো বিশ্বব্যাপী দুই থেকে পাঁচ কোটি, ১৯৫৬-১৯৫৮ সালে চীনে উদ্ভূত এশিয়ান ফ্লুতে সিঙ্গাপুর, হংকং ও আমেরিকায় বিশ লাখ (শুধু আমেরিকাতেই ঊনসত্তর হাজার আট শত), ১৯৬৮ সালে হংকং ফ্লুতে দশ লাখ, ২০০৫-২০১২ সালে এইচআইভি/এইডসের কারণে বিশেষ করে সাব-সাহারা আফ্রিকায় প্রায় তিন কোটি ষাট লাখ মানব সন্তানের প্রাণনিধনের ঘটনা পুরো বিশ্বকে করেছিল আতঙ্কিত ও শঙ্কিত। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ পর্যায়ে চীনের উহান থেকে আকস্মিক ‘করোনাভাইরাস কোভিড-১৯’-এর প্রাদুর্ভাব নতুন করে বিশ্বকে অনাকাক্সিক্ষত সঙ্কটে প্রকম্পিত করছে। প্রতিনিয়ত আক্রান্ত রোগী এবং মৃত্যুবরণের সংখ্যার দ্রুত বৃদ্ধি আমেরিকা, ইউরোপসহ প্রায় সকল দেশই এ রোগে কমবেশি সংক্রমনিত ।

বাংলাদেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এই ভাইরাস প্রতিরোধে বাংলাদেশের প্রস্তুতি স্বল্প দেরিতে হলেও অধিকতর আশাব্যঞ্জক। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ১১ মার্চ কোভিড-১৯কে বিশ্ব মহামারী ব্যাধি হিসেবে চিহ্নিত করেছে। ইউরোপের দেশসমূহে করোনাভাইরাসের দ্রুত প্রসার ও মৃত্যুহার বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ইউরোপকে এই মহামারীর কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে যাচিত করেছে। ইতালি ও স্পেনে এর বিস্তার পুরো ইউরোপকে বিশ্বের সবচেয়ে আক্রম্য অঞ্চলে পরিণত করেছে। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হয়েছে এর নতুন উত্থিত কেন্দ্রবৃত্ত। সুদূর প্রাচীনকাল থেকেই প্রাণঘাতী এসব ব্যাধি যেমন, গুটি বসন্ত, কলেরা, ইনফ্লুয়েঞ্জা, ম্যালেরিয়া, যক্ষ্মা, টায়ফুজ, হাম, কুষ্ঠরোগ, হলুদজ্বর, ইবোলা ও জিকা ভাইরাস, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া ইত্যাদি বিভিন্ন সময়ে সভ্যতাকে করেছে অতিশয় অসহায়, বিপন্ন ও বিপর্যস্ত।

কালক্রমে এর পরিত্রাণ ও উপশমে নানা চিকিৎসা উদ্যোগ সফলতার স্বাক্ষরও রেখেছে। সকাতরে মানব সমাজ বিভিন্ন অভিচার ক্রিয়ায় এসব মহামারীকে বশীকরণ করার পন্থাও উদ্ভাবন করেছে। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ২৪.৮৯% জনগণের বসবাস দক্ষিণ এশিয়া এবং প্রতি কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ৩০৩ জন। জনবহুল ঘন বসতিপূর্ণ আবাসনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা দক্ষিণ এশিয়ায় করোনাভাইরাসের বিস্তৃতি এবং ফলস্বরূপ নানাবিধ সঙ্কটের মর্মভেদী সঙ্কেত আরোপ করেছে। ইত্যবসরে দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সংস্থার নেতাদের ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রাণসংহারক নভেল করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস সত্যিই প্রশংসনীয়। বাংলাদেশ; নেপাল ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী, মালদ্বীপ; শ্রীলঙ্কা; ও আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্য উপদেষ্টার অংশগ্রহণে সার্ক তহবিল গঠন এবং অর্থ ব্যয়ের সমন্বিত প্রপন্নাধিকার এই অঞ্চলকে করোনা প্রতিরোধে সংহত প্রণোদনায় উজ্জীবিত করেছে।

জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা ১৯ মার্চ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের সভায় প্রত্যুপক্রম উচ্চারণে বলেছেন, ‘করোনাভাইরাস নিয়ে প্যানিক সৃষ্টি করবেন না, শক্ত থাকুন। সচেতন হোন। রেডিও-টেলিভিশনসহ অন্য মিডিয়ার মাধ্যমে সচেতনতামূলক প্রচারণা বাড়ান। মানুষকে বুঝিয়ে সচেতনতা তৈরি করতে হবে।’ ২৬ মার্চ জাতির উদ্দেশে প্রদত্ত ভাষণে পরিস্থিতি মোকাবেলায় যথার্থ প্রস্তুতি, গুজব রটনাকারী এবং দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কঠোর হুঁশিয়ারি, তৈরি পোশাকশিল্পে কর্মরত শ্রমিকদের জন্য পাঁচ হাজার কোটি টাকা আর্থিক প্রণোদনাসহ ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সমগ্র দেশে বাধ্যতামূলক ছুটি প্রদান করে দেশবাসীকে স্বগৃহে আবদ্ধ রাখার সৃজনশীল পন্থা অবলম্বন করে করোনা-প্রতিরোধে অপ্রতিরোধ্য যুদ্ধ এবং দ্রুত জয়ী হওয়ার সঙ্কল্প ঘোষণা সমুত্থিত রাষ্ট্রনায়কোচিত প্রেষণার পরিচায়ক।

দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, এই ধরনের পরিচিন্তন ও নির্দেশনা নিঃসন্দেহে ইতিবাচক সচেতন-প্রবণতা সৃষ্টিতে পরিণত হবে। সতর্কতা অবলম্বনে এই বাচনিক ভৈষজ্য জোরালো অনুষঙ্গ হিসেবে হবে অনুবর্তী। সরকার কর্তৃক গৃহীত কোয়ারেন্টাইন, আইসোলেশন, দেশীয় ও বৈদেশিক উদ্যোগে পর্যাপ্ত পিপিই ও পরীক্ষণ কিট সংগ্রহ, অভিজ্ঞ সেবা প্রদানকারী, গণস্বাস্থ্য সংস্থাকে কিট তৈরির অনুমোদন, প্রবাসীদের প্রতি প্রশাসনের বিশেষ নজরদারি, আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ, বেসামরিক ও সামরিক প্রশাসনের সমন্বিত কর্মযজ্ঞ ও সংশ্লিষ্ট সুবিধার সম্প্রসারণ অবিমিশ্র সুদূরপ্রসারী বিচক্ষণতাকে সুদৃঢ় করবেই। অপপ্রচার, গুজব ইত্যাদি নষ্টামি/চক্রান্ত পরিহার এবং সঠিক তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে সতর্কতা ও সচেতনতায় প্রবুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার যথাযথ ভূমিকা পালন চলমান মুহূর্তে অতীব গুরুত্বপূর্ণ।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশেষজ্ঞদের নানাবিধ নির্দেশনা ইতোমধ্যেই দেশব্যাপী বিপুল প্রচারিত। এসবের যথোপযুক্ত পরিচর্যা ও অনুসরণ পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রকে সুরক্ষার ক্ষেত্রে মানবঢাল হিসেবে বিবেচিত হবে। উল্লেখ্য, আমরা পরিপূর্ণভাবে কুসংস্কারের অন্ধকার থেকে জাতিকে মুক্ত করতে পারিনি। এটাও সত্যি যে, আদিম সমাজে প্রতিদিন সূর্যোদয় ঘটলেও জ্ঞানসূর্যের আলোকরশ্মিতে উদ্ভাসিত হওয়ার ইতিহাস দীর্ঘ সময়ের নয়। সুদূর অতীতে এসব মহামারী, প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা অকস্মাত বিপদ-আপদ ¯্রষ্টার আক্রোশ বা মানুষের প্রতি অভিশাপ-পাপের শাস্তি হিসেবে বিবেচিত হতো। এই ভ্রান্ত কুসংস্কারের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদ করেছিলেন চিকিৎসা শাস্ত্রের আদি জনক হিপোক্র্যাটিস। তিনিই প্রথম বলেছেন, ‘রোগ-শোকের জন্য স্বর্গের দেবতাগণ দায়ী নন। রোগব্যাধিতে মানুষ আক্রান্ত হয় একান্তই প্রাকৃতিক কারণে।’

চিকিৎসা শাস্ত্রে অনেক রোগের প্রতিশব্দ প্রচলিত হয়েছে প্রাচীন অলৌকিক বিশ্বাস থেকে। ল্যাটিন শব্দ ‘প্লাগা’ থেকে উদ্ভূত ‘প্লেগ’ রোগকে দেবতার অভিশাপ হিসেবে চিহ্নিত করা হতো। চিকিৎসা বিজ্ঞানে ‘হাইজিন’ শব্দের নামকরণ হয়েছিল গ্রীক শব্দ ‘হাইজিয়া’ বা ওষুধের দেবতা ‘এসক্লিপিয়াস’-এর কন্যার নামানুসারে। এভাবেই যুগে যুগে সত্য, বিবেক, জ্ঞাননির্ভর না হয়ে অন্ধকারের পূজারীরা ছিল অপ্রকৃতিস্থ বিভ্রান্তিতে বিভোর। সে জন্যই জগতখ্যাত জ্ঞানতাপস হিপোক্র্যাটিসের অমিয় বাণী ছিল, ‘জীবন খুব সংক্ষিপ্ত, কিন্তু শিক্ষা দীর্ঘতর। সুযোগ চলে যাচ্ছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা বিপজ্জনক এবং বিচার বিবেচনা করাও খুব কঠিন কাজ। তবু আমাদের তৈরি থাকতে হবে, সে শুধু আমাদের নিজের সুখের জন্য নয়। অপরের জন্যও।’

জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু কন্যা; বাঙালী জাতি-রাষ্ট্রের প্রাণস্পন্দন দেশবাসীর প্রাণপ্রিয়; বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা সকল প্রকার প্রগতি, সভ্য, সুন্দর, শুভ ও কল্যাণযুদ্ধে সর্বোত জয়ী হোন- মহান স্রষ্টার কাছে এটুকুই বিনীত প্রার্থনা।

লেখক : শিক্ষাবিদ, সাবেক উপাচার্য, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

শীর্ষ সংবাদ:
সংসদের মুলতবি অধিবেশন বসছে বুধবার         এক কোটি দুস্থ ১০ কেজি করে চাল পাবেন         কুরবানির পশু পরিবহন করবে বাংলাদেশ রেলওয়ে : রেলমন্ত্রী         লঞ্চ দুর্ঘটনা : হত্যাকাণ্ড প্রমাণিত হলে ‘হত্যা মামলা’ হবে : নৌপ্রতিমন্ত্রী         বিজিবির ১১৯ মুক্তিযোদ্ধার গেজেট বাতিলের প্রজ্ঞাপন স্থগিত         করোনা ভাইরাস ॥ ব্রাজিলে মৃত্যু ৬৫ হাজার ছাড়াল         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৫৫ জনের, নতুন শনাক্ত ৩০২৭         শুল্ক কমিয়ে বিদেশ থেকে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত         করোনা ভাইরাস ॥ চিকিৎসক নিয়োগে আসছে বিশেষ বিসিএস         পাপুলকাণ্ডে রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী         উপনির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই ॥ ইসি সচিব         বান্দরবানে জনসংহতির সংস্কারপন্থি ছয়জনকে গুলি করে হত্যা         দাউদকান্দিতে প্রাইভেটকার খাদে পড়ে একই পরিবারের ৩ জন নিহত         এবার মাশরাফির স্ত্রীও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত         জাতীয় পার্টিতে নতুন দুই উপদেষ্টা         দুই আসনের উপনির্বাচনকে অগ্রহণযোগ্য বলল বিএনপি         কিশোরগঞ্জে শোক-শ্রদ্ধায় শোলাকিয়ায় জঙ্গী হামলায় নিহতদের স্মরণ         করোনা ভাইরাসে ভারতে মৃত্যু ছাড়াল ২০ হাজার         টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে দুই ইয়াবা কারবারি নিহত         কলম্বিয়ায় জ্বালানি ট্যাঙ্কার বিস্ফোরণ ॥ নিহত অন্তত ৭        
//--BID Records