মঙ্গলবার ৪ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ফুলে ফুলে ঢলে ঢলে...

  • সুমন্ত গুপ্ত

বাসের বিকট ব্রেক ধরার শব্দে আমার ঘুম ভেঙ্গে গেল। হন্তদন্ত হয়ে উঠলাম, দেখি বাসের সামনে গরুর পাল। আমি আর মা বিকেল চারটা নাগাদ রওনা দিয়েছি ফুলের রাজধানী যশোরের গদখালীর দিকে। নগর জীবনের ব্যস্ততার সীমা রেখা পেরিয়ে আমরা এগিয়ে চলছি। বৃহস্পতিবার অফিসে কাজের খুব চাপ গিয়েছে তাই ক্লান্তি আমাকে ঘিরে ধরেছে। প্রায় সাতটার দিকে আমাদের গাড়ির যাত্রাবিরতি দেয় উজানভাটিতে গিয়ে। বাস থেকে নেমে আমরা কফি খেলাম। বিরতির পর আমাদের পাইলট মহোদয় তুফানের বেগে গাড়িকে এগিয়ে নিয়ে চললেন। আমি চোখ বন্ধ করে নিদ্রা দেবীর আশ্রিত হলাম। মাঝপথে বিপত্তি ঘটল- বাসের মধ্যে এক লোক মনের আনন্দে সিগারেট টানতে লাগলেন। আমি এদিকে সিগারেটের গন্ধ একদম সহ্য করতে পারি না। আমার মতো অন্য যাত্রীরা বেশ ক্ষেপে উঠল। বেচারার সিগারেট ফেলতেই হলো। রাত সাড়ে এগারোটার দিকে সায়েদাবাদে গিয়ে কিছু সময়ের জন্য থামল। যান্ত্রিক নগরীতে প্রবেশের পর কিছু সময় গাড়ি এগুতেই চাইছিল না। রাত তিনটার দিকে আমরা ফেরিতে উঠলাম। আমাদের ভাগ্য ভাল ছিল ফেরিতে কোন জ্যাম ছিল না। সবাই ভয় দেখিয়েছিল ফেরিতে বুঝি চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা দেরি হয়। ফরিদপুর, মাগুরা পেরিয়ে আমাদের পাইলট মহোদয় ঠিক ছয়টার দিকে নিয়ে এলেন যশোর বাসস্ট্যান্ডে। সাত সকালে দেখি পরিচিতজন এসে উপস্থিত আমাদের নিতে। আমরা সাগরের বাসা খড়কিতে গেলাম। সেখানে কিছু সময় বিরতি দিয়েই আমরা বেড়িয়ে পড়লাম। সাগর বার বার প্রাতরাশ করে বের হওয়ার কথা বলছিল কিন্তু নতুন গন্তব্য স্থান দেখার জন্য মন কেমন যেন করছিল। আবার সকাল ৮টার ভেতর হাঁটা শেষ হয়ে যায়। আমরা খড়কি থেকে আবার বাসে করে গদখালী বাজারের দিকে যাত্রা করলাম। ঝিকরগাছা বাজারের ভেতর দিয়ে রাস্তা চলে গেছে। বাজার পার হয়েই বেশ পুরনো এক ব্রিজ। এর নিচ দিয়েই বয়ে চলেছে মধুসূদন দত্তের স্মৃতিবিজড়িত কপোতাক্ষ নদ। তবে এই নদ এখন কচুরিপানায় বন্দী। পথিমধ্যে সাগরকে জিজ্ঞেস করলাম গদখালী নাম কি করে হলো ও বলল কথিত আছে যে, এক সময় পর্তুগিজ ডাকাত সরদার রডারিক এই অঞ্চলে ঘাঁটি করে মানুষের ঘুম হারাম করে দিয়েছিল। একদিন সে স্থানীয় কমলেসের বাড়িতে হানা দেয়। সেখানে তাঁর সুন্দরী মেয়ে মাদালসার সঙ্গে দেখা হয়ে যায় রডারিকের। মাদালসার সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়। ক্ষমা চেয়ে প্রেম নিবেদন করে। পণ করে, আর ডাকাতি করবে না। একপর্যায়ে মাদালসাদের বাড়ির পাশেই আশ্রয় নেয় রডারিক। আর মাদালসাকে পাওয়ার জন্য বাঘের সঙ্গে লড়াইও করে। এ ঘটনার পর মা কালীর নামে রডারিককে বরণ করে নেয় মাদালসা। পরে দুজনেই সন্ন্যাসব্রত গ্রহণ করে। তৈরি হয় একটি মন্দির। রডারিকের ‘গড’ আর মাদালসার ‘কালী’ নিয়ে এই মন্দিরের নাম হয় ‘গডকালী’ মন্দির। সেই নামের সূত্র ধরে পরে এই জায়গার নাম হয় ‘গদখালী’। বিশ মিনিটেই পৌঁছে গেলাম আমরা গদখালী বাজারে। কুয়াশার চাদরে ঘেরা তবু ও লোকে লোকারণ্য। আমরা গাড়ি থেকে নেমে ভ্যান গাড়ি নিলাম ঘুরে দেখার জন্য। যশোর-বেনাপোল রোড ছেড়ে ডানে, বায়ের গ্রামগুলোর পথ ধরে এগিয়ে গেলেই দেখা মিলবে দিগন্ত জোড়া ফুলের ক্ষেত। লাল, নীল, হলুদ, বেগুনি আর সাদা রঙের এক বিস্তীর্ণ চাদর যেন বিছিয়ে রেখেছে চরাচরে। জমিতে ফুল চাষ করে এখানকার চাষীরা। বাড়ির চারধারে সৌখিন ফুলের বাগান নয়। মাঠের পর মাঠ জুড়ে ফুলের ক্ষেত। ফুলই এখানে ফসল। অনেকেই ফুলের রাজধানী বলে এই গদখালীকে। শুধু আমরাই না, দেখা মিলল আমাদের মতো বেশকিছু পর্যটকেরও। ফুলের সঙ্গে ছবি তুলতে তাঁরা হাজির হয়েছেন। দেখা হলো সুইজারল্যান্ড থেকে আগত পর্যটক মেলিসা ও জিগালদিনের সঙ্গে। আমি একের পর এক ছবি তুলতে লাগলাম। পথের দুই ধারে গোলাপ, রজনীগন্ধা, গ্লাডিওলাস, গাঁদা, জারবেরা ফুলের ক্ষেত। রজনীগন্ধা, গ্ল্যাডুওলাস, গোলাপ আর গাঁদা ফুল চাষ হয় এখানে। যেখানে গেলে চোখে পড়বে কৃষকদের ব্যস্ততা। কেউ ফুল কেটে গরুর গাড়িতে করে বাজারে নিয়ে যাচ্ছে, সেখান থেকেই বান্ডিল করে চালান হয়ে যাচ্ছে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহরে। পুরুষদের পাশে নারী ও শিশুরাও কাজ করছে ফুলের ক্ষেতে। কেউ ফুল কাটেছে, কেউ নিড়ানি দিচ্ছে। আবার কেউ ফুলের বীজ বোনচ্ছে। বাতাসে ফুলের মিষ্টি সৌরভ, মৌমাছির গুঞ্জন, প্রজাপতির ডানার জৌলুশ আর রঙের অফুরান শৌরভের সামনে দাঁড়িয়ে বিশ্বাসই হতে চায় না জায়গাটা আমাদের রক্ত, ক্লোদ আর কোলাহলে ভরা মাটির পৃথিবীরই একটা টুকরা। আমাদের দেশের সর্ববৃহৎ ফুলের যোগান আসে এই গদখালী থেকে। মোট উৎপাদনের প্রায় ৭০ ভাগই আসে এখান থেকে। এখানেই বসে বাংলাদেশের সব থেকে বড় ফুলের পাইকারি বাজার। দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে এখানকার কৃষকরা ফুলের চাষ করে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য লড়ে যাচ্ছেন। ফুলের বাগান থেকে জনৈক ভদ্রলোক আমাদের ফুল উপহার দিলেন। আমরা বাজারে এসে জলযোগ থেকে টাটকা সবজি দিয়ে তৈরি তরকারি আর লুচি খেলাম। অসাধারণ স্বাদ, ফরমালিনবিহীন। এরপর আমরা গেলাম সাগরের কর্মক্ষেত্র মৌমাছি স্কুলে। সেখানে বাচ্চাদের সঙ্গে কিছু সময় কটিয়ে আমরা ছুটে চললাম আমাদের পরবর্তী গন্তব্যে।

যেভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে যশোর সরাসরি বাস ছাড়ে গাবতলি থেকে, আর সিলেটের কদমতলি থেকে বাস ছাড়ে যশোরের উদ্দেশে। যশোর চাঁচড়া বাসস্ট্যান্ড নেমে রিক্সা নিয়ে চলে যান লোকাল বাসস্ট্যান্ডে। এখান থেকেই পেয়ে যাবেন গদখালী যাবার বাস। গদখালী নেমে ক্ষেত দেখার জন্য ভ্যান নিয়ে নিতে পারেন। ভ্যান ভাড়া নেবে ১০০-১৫০ টাকা। গ্রামের রাস্তা দিয়ে যাবার সময় রাস্তার দুপাশে চোখে পড়বে ফুলের ক্ষেত। বাসস্ট্যান্ডের রাস্তার পাশেই সকালে বসে দেশের সর্ববৃহৎ ফুলের পাইকারি বাজার।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৭         দুর্নীতির মামলার ভয় দেখিয়ে চিকিৎসকের ৯৫ লাখ টাকা আত্মসাত ॥ গ্রেফতার ২         মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে করা মামলার আবেদন খারিজ         কুমিল্লার ঘটনার মুলহোতা পলাতক, শিগগিরই গ্রেফতার ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ‘কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত খুঁজে বের করা হবে’         অপরাধী শনাক্তে সক্ষমতা বাড়ল র‍্যাবের         যবিপ্রবিতে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসায় রোবোটিক্স প্রযুক্তি ব্যবহার শীর্ষক সেমিনার         সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রুখে দেওয়ার প্রত্যয় আ.লীগের         হামলাকারীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ         হাজারো রাজনৈতিক বন্দিকে মুক্তি দিল মিয়ানমারের সামরিক জান্তা         সিরাজগঞ্জে ৬ ডাকাত গ্রেফতার ॥ গুলিসহ ২ রিভালবার উদ্ধার         দেশে বসেই বিদেশিদের পাসপোর্ট করতেন তিনি         সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে গফরগাঁওয়ে আওয়ামী লীগের প্রতিবাদ মিছিল         পদত্যাগ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ আফগানিস্তান দূত খলিলজাদ         ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মেয়র আতিকের বিরুদ্ধে মামলা         অস্ট্রেলিয়া-নিউ জিল্যান্ডের দারুণ লড়াই         তাসনিম ও সামিসহ ৪ জনের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ         নাটোরে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই জন নিহত         বৃষ্টি থাকবে আরও দুই দিন