বুধবার ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

তালিকাভুক্তির পর মুনাফা কমছে বেঙ্গল উইন্ডসরের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলন করা বেঙ্গল উইন্ডসর থার্মোপ্লাস্টিকের ব্যবসায় সংকুচিত হচ্ছে। প্রতিবছরই কমছে মুনাফার পরিমাণ। এছাড়া শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির ৫ বছরেও বাড়েনি বিক্রি। যে কোম্পানিটি উচ্চ দরে শেয়ার ইস্যু করলেও এখন ‘বি’ ক্যাটাগরিতে নেমে এসেছে।

ডিএসই ব্রোকার্স এ্যাসোসিয়েশনের (ডিবিএ) সভাপতি শাকিল রিজভী বলেন, সম্প্রসারণের লক্ষ্যে শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের পরে ৫ বছরেও তা বাস্তবায়ন না হওয়া হতাশাজনক। এর মাধ্যমে শেয়ারবাজারে আসার আগে বিভিন্ন কোম্পানির কৃত্রিম মুনাফা দেখানোর যে অভিযোগ রয়েছে, তার সত্যতা পাওয়া যায়।

বেঙ্গল উইন্ডসর ২০১৩ সালে ব্যবসায় সম্প্রসারণের লক্ষ্যে শেয়ারবাজার থেকে ৪০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। এক্ষেত্রে কোম্পানিটি প্রতিটি শেয়ার ইস্যু করে ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ মোট ২৫ টাকায়। ৬ মাসের (জুলাই-ডিসেম্বর ’১২) ব্যবসায় শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ১.৬২ টাকা ও ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর ২৪.৫৯ টাকা শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দেখিয়ে এই দরে শেয়ার ইস্যু করা হয়। যা উত্তোলনে ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট।

কোম্পানিটির আইপিও পূর্বে ৫৪ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন ছিল। যা আইপিও পরবর্তীতে ৭০ কোটি টাকায় উন্নীত হয়। তবে ২০১৩ সালে ৮ শতাংশ, ২০১৫ সালে ১০ শতাংশ ও ২০১৭ সালে ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার প্রদানের মাধ্যমে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯১ কোটি ৪৮ লাখ টাকায়।

২০১২-১৩ অর্থবছরে কোম্পানিটির ৮৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয়। যেখান থেকে নিট ২৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা বা শেয়ারপ্রতি ৪.১৬ টাকা মুনাফা হয়। যা সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৮৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকার বিক্রি থেকে মুনাফা নেমে এসেছে ১৪ কোটি ৪ লাখ টাকা বা ১.৫৩ টাকায়। অথচ ওই সময়ের ১৮৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকার নিট সম্পদ বেড়ে হয়েছে ২১৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

দেখা গেছে, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির পরবর্তী বছরেই (২০১৩-১৪) নিট মুনাফা কমে আসে ২৩ কোটি ৬ লাখ টাকায়। যা পরবর্তী ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২১ কোটি ১৬ লাখ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১৪ কোটি ৪ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে।

এদিকে ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ইপিএস কমে আসে ৩.০৫ টাকা। যা পরবর্তী ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ২.৫৭ টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২.৫৪ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১.৮৫ টাকা ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১.৫৩ টাকা ইপিএস হয়েছে।

কোম্পানিটির ভাল ব্যবসায় দেখিয়ে উচ্চ দরে শেয়ার ইস্যু করলেও তার কোন সুফল পাচ্ছে না বিনিয়োগকারীরা। প্রতিটি শেয়ারে ২৫ টাকা বিনিয়োগ করা কোম্পানি থেকে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ প্রাপ্তি ৫ শতাংশ বা ৫০ পয়সা। তবে এটা ২৫ টাকা বিনিয়োগের বিপরীতে হয় মাত্র ২ শতাংশ। লভ্যাংশে এমন পতনে কোম্পানিটি ‘বি’ ক্যাটাগরিতে পতিত হয়েছে।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : ২৪ ঘণ্টায় আরও ৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৬৮         ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস         গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘ক’ ইউনিটের ফল প্রকাশ         করোনা ভাইরাসে টিকা নিবন্ধনে বয়সসীমা সর্বনিম্ন ১৮ বছর নির্ধারণ         কারওয়ানবাজারে বাসচাপায় স্কুটিচালক নিহত         এসকে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে রায় বৃহস্পতিবার         জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে পান্থকুঞ্জ : মেয়র তাপস         গুজব : বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষিকা আটক         ডেঙ্গু : গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১১২ জন হাসপাতালে         ‘ইসলাম কখনো অন্য ধর্মের ওপর আঘাত সমর্থন করে না’         অর্থনীতির স্বাভাবিক অবস্থা ফেরাতে অনেকদূর এগিয়েছে বাংলাদেশ : অর্থমন্ত্রী         ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ নিভে গেল আজমীরের চোখের আলো         সপ্তাহে ৫ দিন চলবে ঢাকা-দিল্লি ফ্লাইট         ২৪ অক্টোবর পায়রা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী         করোনা ভাইরাস ॥ দেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ শিশু ঝুঁকিতে         রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৬১         ভারতের উত্তরাখাণ্ডে দুর্যোগ ॥ নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬         বিশ্বে প্রথম মানবদেহে শূকরের কিডনি প্রতিস্থাপন         বদলে যাচ্ছে ফেসবুকের নাম !         সিরিয়ায় বোমা হামলায় ১৩ সেনা সদস্য নিহত