বৃহস্পতিবার ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আইপিও এবং রাইটের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ কমেছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ২০১৮ সালে শেয়ারবাজারে আইপিও অনুমোদনের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের পরিমাণ কমেছে। যা বিগত ১০ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে গেছে। বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, আগের বছরের আইপিওগুলো বাজারে ভাল করতে না পারার কারণেই নতুন আইপিও অনুমোদনের সংখ্যা কমেছে।

২০১৮ সালে শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহে ধসের পেছনে প্রধান কারণ হিসাবে রয়েছে রাইট শেয়ার ইস্যুর অনুমোদনে পতন। আগের বছর ৫টি কোম্পানির রাইট ইস্যুর অনুমোদন দেয়া হলেও ২০১৮ সালে তা ১টিতে নেমে এসেছে। যাতে রাইট ইস্যুর মাধ্যমে আগের বছরের ১২৭৩ কোটি টাকা এ বছর ১০৯ কোটি টাকায় নেমে এসেছে।

বিএসইসির সাবেক চেয়ারম্যান এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে এবং অনেক বড় হয়েছে। কিন্তু দেশের শেয়ারবাজার সেভাবে এগোচ্ছে না। এই সমস্যা কাটিয়ে তুলতে শেয়ারবাজারের অংশগ্রহণ বাড়ানো দরকার। এক্ষেত্রে বেশি বেশি করে ভালো কোম্পানি শেয়ারবাজারে আনতে হবে।

বিএসইসির আরেক সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের ক্ষেত্রে সময়ক্ষেপণ একটি বড় বাধা। কিন্তু কোন ডায়নামিক উদ্যোক্তা শেয়ারবাজার থেকে ফান্ড সংগ্রহের জন্য ২ বছর অপেক্ষা করবে না। তাদের জন্য ব্যাংক ঋণ দেয়ার জন্য বসে রয়েছে। এমতাবস্থায় তারা ব্যাংক ঋণ নিয়ে কোম্পানিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

দেখা গেছে, গত ১০ বছরের মধ্যে ২০১৮ সালে শেয়ারবাজারের মাধ্যমে সর্বনিম্ন অর্থ সংগ্রহ করা হয়েছে। এ বছরে শেয়ারবাজারের মাধ্যমে ৬৫৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। যার পরিমাণ ২০১৭ সালেও ছিল ১ হাজার ৪৪২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। এ হিসাবে বছরের ব্যবধানে শেয়ারবাজার থেকে অর্থসংগ্রহ কমেছে ৭৮৬ কোটি ৯৯ লাখ টাকা বা ৫৫ শতাংশ।

চলতি বছরে এখন পর্যন্ত মাত্র ১টি কোম্পানি রাইট শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করেছে। কোম্পানিটিকে ১০৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা সংগ্রহের অনুমোদন দেয়া হয়। আর জাহিন স্পিনিংয়ের রাইট শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয়া হলেও পরবর্তীতে তা বাতিল করা হয়েছে।

চলতি বছরে ফিক্সড প্রাইস পদ্ধতিতে ১১টি কোম্পানি ২৬৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। আর বুক বিল্ডিংয়ে ২টি কোম্পানি ২৮০ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। এই ২ পদ্ধতিতে ১৩টি কোম্পানি মোট ৫৪৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। গত ১০ বছরের মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানির পক্ষে ২০১০ সালে সবচেয়ে বেশি অর্থ সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই বছরে মোট ৩ হাজার ৩৯০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হয়। এরপরের অবস্থানে থাকা ২০১১ সালে ৩ হাজার ২৩৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, দেশে ট্রেক রেকর্ড ভাল এমন ১শ’র বেশি কোম্পানি আছে। এসব কোম্পানিকে শেয়ারবাজারে আনার পদক্ষেপ নেয়া উচিত।

ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে দেশের ৯৫ শতাংশ শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে বলে জানিয়েছেন ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী। আর শেয়ারবাজার থেকে এর সংখ্যা মাত্র ৩ শতাংশ। অথচ শেয়ারবাজার থেকে টাকা নিলে ফেরত দিতে হয় না। আর লোকসান করলেও ঋণ ও সুদ ফেরত দিতে হয়। এছাড়া শেয়ারবাজারে আসলে ১০ শতাংশ কর রেয়াত সুবিধা পাওয়া যায়। তারপরও কোম্পানিগুলো কেন শেয়ারবাজারে আসছে না, তা খুঁজে বের করা দরকার।

শীর্ষ সংবাদ:
অবশেষে অনশন ভঙ্গ ॥ শাহজালালের ঘটনায় কিছুটা স্বস্তি         শিক্ষার্থীদের সব দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাস শিক্ষামন্ত্রীর         দেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে         বিএনপি ৮ লবিস্ট নিয়োগ দিয়েছিল         ওমিক্রন মোকাবেলায় আসছে নতুন গাইডলাইন         রাজধানীসহ কোন কোন এলাকায় ভারি বৃষ্টি, জনদুর্ভোগ         অপরাধ দমনে কাজের স্বীকৃতি পেল পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট         অর্থ পাচার রোধে দক্ষিণ কোরিয়ার মতো কঠোর আইন প্রয়োজন         এগিয়ে চলাকে স্তব্ধ করতে নানা ষড়যন্ত্র চলছে         অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে আরও তিন বছর লাগবে         তদন্ত এগোনোর পর এখনও এজাহার জটিলতার নেপথ্যে -         বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিক্সার ৫ যাত্রী নিহত         আসছে নতুন শিক্ষাক্রম, সময়মতো চালুর বিষয়ে শঙ্কা         নগ্ন ছবি, ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে টাকা দাবি         বাংলাদেশের গ্রামীণ হাসপাতাল পেল বিশ্ব সেরার স্বীকৃতি         ওমিক্রনরোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নতুন গাইডলাইন         শাবিপ্রবি সংকট : শিক্ষার্থীদের সব দাবি বাস্তবায়ন হবে ॥ শিক্ষামন্ত্রী         জামিন পেলেন শাবিপ্রবির সাবেক ৫ শিক্ষার্থী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৭, শনাক্ত ১৫৫২৭         ‘শাবির ঘটনায় পুলিশের দায় থাকলে ব্যবস্থা’