ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

এবার মৃত্যু ভূমধ্যসাগরে

প্রকাশিত: ০৩:৫১, ২৭ জুন ২০১৮

এবার মৃত্যু ভূমধ্যসাগরে

আবরও অভিবাসন প্রত্যাশী বাংলাদেশীদের মৃত্যু! সাগরপথে ঝুঁকি নিয়ে ইউরোপে প্রবেশের সময় নৌকাডুবিতে বাংলাদেশীদের মৃত্যু এখন যেন নিয়মিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। গোটা বিশ্বেই অভিবাসন প্রত্যাশীরা মরিয়া হয়ে উঠেছেন। অভিবাসনের জন্য তারা বেছে নিতে শুরু করেছেন বিপদসঙঙ্কুল যাত্রা। বিশ্বের অভিবাসন প্রত্যাশীদের মিছিলে বাংলাদেশীদের সংখ্যা বর্তমানে অবশ্য অনেকটা কমে এসেছে। বাংলাদেশ থেকে নৌপথে মালয়েশিয়া-ইন্দোনেশিয়ায় অবৈধ অভিবাসনকালে বহু মানুষের মরণাপন্ন বিপদের কথা বিশ্ববাসী জেনেছিল দেড়-দু’বছর আড়ে। পৃথিবী নামক গ্রহে মূলত ক্ষুণিœবৃত্তির জন্যই নানা জাতি নানা দেশের মানুষ পাড়ি জমাচ্ছে অচেনা লোকালয়ে। নিজ দেশে থেকে ভিনদেশে অভিবাসন এবং ভিন্ন একটি দেশ থেকে অপর কোন দেশে অভিবাসনের ভেতর কিছুটা পার্থক্য রয়েছে বটে। স্বদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে না পেরে কিংবা উন্নততর কর্মসন্ধানে মানুষ বিদেশে যায়। কিন্তু লিবিয়া থেকে বাংলাদেশিসহ অন্যান্য অভিবাসীদের ইউরোপযাত্রার তাগিদের পেছনে রুটি-রুজি ছাড়াও ভিন্ন কারণ বিদ্যমান ছিল। লিবিয়ার অভ্যন্তরীণ সংঘাত এবং অন্য অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মুখে পড়ে বাংলাদেশসহ সিরিয়া ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশের নাগরিক ইউরোপে অভিবাসনের জন্য মরিয়া হয়ে উঠতে দেখা গেছে। গত বছর থেকেই নৌকায় চেপে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে যাওয়া শরণার্থীদের একক দেশ হিসেবে সিরিয়া, আফগানিস্তান ও ইরাককে ছাড়িয়ে বাংলাদেশ এখন শীর্ষে অবস্থান করছে। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট এক বিশেষ প্রতিবেদনে বিষয়টি বিশদভাবে তুলে ধরেছিল। এতে বলা হয়, বাংলাদেশ থেকে দুবাই হয়ে লিবিয়ায় পাড়ি জমায় এই শরণার্থীরা। এরপর ইতালিতে পৌঁছতে ভূমধ্যসাগরে নৌকা ভাসায় তারা। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) সূত্রমতে ২০১৬ সালের মার্চ নাগাদ তিন মাসে ইতালিতে ঢোকা বাংলাদেশীর সংখ্যা ছিল একজন। পরের বছর একই সময়ে এই সংখ্যা দাঁড়ায় ২,৮৩১ জনে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন শরণার্থীদের ঢল সামলাতে তুরস্কের সঙ্গে চুক্তির পর আজিয়ান সাগরের রুটটি দিয়ে অনুপ্রবেশ কমে যায়। কিন্তু ভূমধ্যসাগর হয়ে ইতালিতে পাড়ি জমানো বেড়ে যায়। ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইতালিতে ঢোকার অবৈধ পথটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। সেখানে নৌকাডুবিসহ নানা কারণে এ বছর সহ¯্রাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বিপজ্জনক ও অবৈধ অভিবাসন বন্ধের ব্যাপারে কী করণীয় সেটি নিয়ে সুগভীর আলোচনা হওয়া দরকার। এটি খুবই স্বাভাবিক যে, কমংসংস্থানের সুযোগ বাড়লে মানুষ স্বদেশেই আয় রোজগারের চেষ্টা করবে। দেশে এখন বিদেশী বিনিয়োগ আসতে শুরু করেছে। বহির্বিশ্বে দেশের সুনাম বাড়ছে। জনসংখ্যা অবশ্য বেড়েই চলেছে। এই জনসংখ্যাকে জনশক্তিতে রূপান্তরিত করতে না পারলে অভিবাসন প্রত্যাশী মানুষের সংখ্যা যে বাড়তেই থাকবেÑ তা সাধারণভাবে অনুমান করা যায়। বিদেশে শ্রমবাজার প্রসারের লক্ষ্যেও সচেষ্ট হতে হবে। বৈধপথে বিদেশে গিয়ে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়লে মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে দেশ ত্যাগ করবে না, সেকথা বলাই বাহুল্য। সেজন্যে উদ্যোগী হতে হবে। সেইসঙ্গে মানুষকে সচেতন করার উদ্যাগও নেয়া চাই। সাগরপথে যে জীবনের ঝুঁকি বাড়ছে এবং প্রায়শই এই অবৈধ অভিবাসন রুটে মানুষের মৃত্যুও ঘটনা ঘটেছে- বিষয়টি বেশি করে প্রচার হওয়া দরকার। মনে রাখা চাই জীবন সব কিছুর ওপরে। জীবনের বিনিময়ে কর্মসংস্থানের জন্যে মরিয়া হওয়া কখনোই শুভ ফল বয়ে আনবে না।
monarchmart
monarchmart

শীর্ষ সংবাদ:

খরচ কমিয়ে কোষাগারে ২৭ কোটি টাকা ফেরত দিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়
জুট মিলের গোডাউনে মিলল ২০ হাজার মেট্রিক টন চাল
যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে উড়ছে চীনের গোয়েন্দা নজরদারি বেলুন
চ্যাটজিপিটি পাওয়ারড টিম প্রিমিয়াম উন্মোচন করেছে মাইক্রোসফট
স্মার্ট রাজনীতিতে দেশের স্বার্থ আগে প্রাধান্য পাবে: শিক্ষামন্ত্রী
বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে ৭৩তম স্থানে বাংলাদেশ
উপ-নির্বাচন নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্য বানোয়াট
পাকিস্তানে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ১৭
একদিনে আরও ১০ জনের করোনা শনাক্ত
পাঠ্যপুস্তক নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে একটি মহল, ইস্যু বানাচ্ছে বিএনপি
তিন বিভাগে এবার ১২ দলীয় জোটের সমাবেশ
টস জিতে ঢাকাকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে রংপুর
সমৃদ্ধ রাজস্ব ভাণ্ডার গড়ে তোলার ওপর প্রাধান্য দিচ্ছে সরকার
এবার মিয়ানমারের ৩৭ শহরে মার্শাল ল জারি