রবিবার ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বাউফলে মাতৃত্বকালীন ভাতার ভাগ দিতে হয় ৬ জনকে

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাউফল, ১১ অক্টোবর ॥ বাউফলে মাতৃত্বকালীন ভাতায় ভাগ বসানো হচ্ছে। ইউপি সদস্য থেকে ব্যাংক পর্যন্ত ৬ জনকে এ টাকার ভাগ দিতে হয়। আর না দিলে ভাতাভোগীদের বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়।

জানা গেছে, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের অধীনে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাউফল উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে মোট ১ হাজার ১শ’ ৮৫ জন অসহায় দুস্থ গর্ভবতী নারীকে মাসিক ৫শ’ টাকা করে ভাতা দিচ্ছে সরকার। প্রতি ৬ মাস পর এই ভাতার টাকা ছাড় করা হয়। কিন্তু এই ভাতাভোগীদের কাছ থেকে নানা অজুহাত দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য, সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য, ইউপি সচিব, চৌকিদার, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার অফিস সহকারী। এ ছাড়াও এই ভাতার ভাগ দিতে হয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তাকেও।

অভিযোগ রয়েছে, কেশবপুর ইউনিয়নের ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য এলিনা আক্তার ওই ইউপির ভাতাভোগী সদস্যদের কাছ থেকে তালিকায় নাম দেয়ার জন্য নিয়েছেন জন প্রতি একহাজার টাকা। এরপর ভাতা পাওয়ার পর প্রত্যেক ভাতাভোগীর কাছ থেকে নিয়েছেন আরও একহাজার টাকা। একই অভিযোগ রয়েছে ওই ইউপির ১,২ ও ৩ সংরক্ষিত মহিলা সদস্য লিপি আক্তারের বিরুদ্ধে। কিন্তু তারা দুজনই এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে লিপি যাতায়াত ভাড়া বাবাদ দুই/একশ’ টাকা নিয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন।

মদনপুরা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ আলতাফ হোসেন, সংরক্ষিত ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের মহিলা ইউপি সদস্য রিনা বেগমের বিরুদ্ধেও রয়েছে একই অভিযোগ। তারাও ভাতাভোগীদের কাছ থেকে এ্যাকাউন্ট খোলার কথা বলে জনপ্রতি ৫শ’ টাকা নিয়েছেন। এরপর ভাতা পাওয়ার পর প্রত্যেক ভাতাভোগীর কাছ থেকে নিয়েছেন এক হাজার টাকা করে। ওই ইউনিয়ন পরিষদের সচিব এনামুল হক মামুন ওরফে ফজলু স্লিপ দিয়ে ওই ইউনিয়নের প্রত্যেক ভাতাভোগীর কাছ থেকে নিয়েছেন দেড়শ’ টাকা করে। তবে ওই ইউপি সচিব এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।

ইউপি সদস্য আলতাফ হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি কোন টাকা নেইনি। টাকা নিয়েছে রিনা আর চৌকিদার।

মদনপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ গোলাম মস্তফা বলেন, কিছু অনিয়ম হচ্ছে আমিও জানি। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার অফিস সহকারী কামরুল অফিস খরচের জন্য জনপ্রতি ১শ’ করে টাকা নেয় এমনটা আমি শুনেছি।

অভিযোগ রয়েছে সোনালী ব্যাংক বাউফল শাখার কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে। তিনি চালান ফরম দেয়ার কথা বলে প্রত্যেক ভাতাভোগীর কাছ থেকে আদায় করছেন ২০ টাকা করে। আর তার সঙ্গে জোর করে দুইটি লটারির টিকেটও ধরিয়ে দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে ওই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মনিরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বদলি হয়ে গেছেন। তার অফিস সহকারী কামরুল ইসলাম ভাতাভোগীদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, সমাজসেবা অফিসার বদলি হয়ে গেছেন। নতুন কর্মকর্তা যোগদান করার পর তাকে নিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

শীর্ষ সংবাদ:
হাজি সেলিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ আদালতের         সরকার পরিবর্তনের একমাত্র উপায় নির্বাচন ॥ কাদের         পরিবেশ রক্ষায় যত্রতত্র অবকাঠামো করা যাবে না ॥ প্রধানমন্ত্রী         পেছাচ্ছে না ৪৪তম বিসিএস প্রিলি         কোভিড-১৯ : ভারত-ইন্দোনেশিয়াসহ ১৬ দেশের হজযাত্রীদের দুঃসংবাদ         অর্থনীতি সমিতির ২০ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকার বিকল্প বাজেট পেশ         ‘বিশ্বজুড়ে আরও মাঙ্কিপক্স শনাক্তের আশঙ্কা’         ২০২৩ সালের জুনেই ঢাকা-কক্সবাজার ট্রেন যাবে         রাজধানীর গুলশানে দারিদ্র্য কম, বেশি কুড়িগ্রামের চর রাজিবপুরে         জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন, গ্রেফতার ২         পতনে নাকাল শেয়ারবাজার, দিশেহারা বিনিয়োগকারীরা         হাইকোর্টে নর্থ সাউথের ট্রাস্টি বেনজীরের অগোচরে আদালত চত্তর ছাড়ার চেস্টা         সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা বেতন চান সরকারি কর্মচারীরা         নরসিংদীর বেলাবতে মা ও দুই সন্তানের লাশ উদ্ধার ॥ আটক ৩         খুলনায় বিস্ফোরক মামলায় ২ জঙ্গীর ২০ বছরের কারাদণ্ড         চার মাসে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ৬ লাখ ৭৭ হাজার         সৌদিতে প্রথমবার নারী ক্রু নিয়ে আকাশে উড়ল প্লেন         ‘৬০ শতাংশ পুরুষ নারীর নির্যাতনের শিকার’         বাজেটের আগেই বেড়ে গেলো সিগারেটের দাম         পাম্পে তেল না পেয়ে মালিকের বাড়িতে আগুন