বুধবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

জলাবদ্ধতা, যানজট

শ্রাবণের মাঝামাঝি ভারি বর্ষণে রাজধানী ঢাকা কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। একদিকে ভয়াবহ জলাবদ্ধতা, অন্যদিকে অসহনীয় যানজট জনজীবনকে প্রায় স্থবির করে দিয়েছে। সঠিক তথ্য-পরিসংখ্যান না থাকলেও এ কথা বলা যায় যে, রাজধানীর প্রায় তিন-চতুর্থাংশ জলমগ্ন হয়েছে তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে। ঢাকার চারপাশের নিম্নাঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হওয়ায় প্রায় অব্যাহত ঝরে পড়া বৃষ্টির পানি অপসারিত হতে পারে না। অন্যদিকে যত্রতত্র রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি, বছরের পর বছর ধরে উড়াল সড়ক নির্মাণ, কাটাকাটি, নতুন নতুন বহুতল ভবন নির্মাণ, অপর্যাপ্ত পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, উন্নয়ন প্রকল্পে ধীরগতি ও সমন্বয়হীনতা, সর্বোপরি মৌসুমী বৃষ্টিপাত জনজীবনের এই প্রলম্বিত দুর্ভোগের জন্য প্রধানত দায়ী। বেদখল হয়ে যাওয়া ৫৩টি খালও এই জলাবদ্ধতার জন্য অনেকাংশে দায়ী। অন্যদিকে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালুনদীও মুমূর্ষুপ্রায়। এসব নিয়ে প্রতিবছর ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, রাজউক, নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, ঢাকা ওয়াসার চাপানউতোর খেলাসহ সভা-সেমিনারে সুপারিশ প্রণয়ন করা হলেও বাস্তবে আদৌ কোন অগ্রগতি নেই বললেই চলে।

এর পাশাপাশি বন্দর ও বাণিজ্যনগরী চট্টগ্রামের অবস্থাও শোচনীয়। সেখানের পরিস্থিতি অনেকাংশে রাজধানীর অনুরূপ হলেও বাড়তি উপদ্রব কর্ণফুলী ও বঙ্গোপসাগরের জোয়ারের পানি। চট্টগ্রামে ভাটার সময় কোমর পানিতে কোন রকমে চলাচল করা সম্ভব হলেও প্রবল জোয়ারে প্রায় তলিয়ে যায় সমগ্র শহর। বৃষ্টির প্রাবল্য তো আছেই। ফলে সেখানে বন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধসহ খাতুনগঞ্জের ব্যবসা-বাণিজ্য প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম। চলতি বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টিপাতের দাপট না কমলে সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতির সম্ভাবনা কম। চট্টগ্রামের দুঃখ চাক্তাই খাল সংস্কারসহ ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন নগরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি হলেও বরাবরই তা থেকে গেছে উপেক্ষিত। নির্বাচিত সংসদ সদস্যবৃন্দ এবং নির্বাচিত মেয়রসহ চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ নগরবাসীর এই চাওয়া-পাওয়া পূরণে ব্যর্থ হয়েছেন পুরোপুরি।

এর পাশাপাশি রাজধানী ঢাকার অবস্থাই কী আদৌ ভাল বলা যাবে? তিনদিনের প্রবল বর্ষণে রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে পানি জমে সৃষ্ট হয়েছে ভয়াবহ পরিস্থিতি। হাটবাজার, সুপার মার্কেটও বাদ যায়নি জলাবদ্ধতা থেকে। দীর্ঘ সময়ব্যাপী যানবাহন সঙ্কটের পাশাপাশি অসহনীয় যানজটে রীতিমতো নাকাল হতে হয়েছে নারী, শিশু, বৃদ্ধসহ সর্বস্তরের মানুষকে। সরকার আসে, সরকার যায়। তবে বাস্তবে মানুষের দুর্ভোগ কমে না আদৌ, বরং আরও বেড়ে যায়। অথচ বর্তমান জ্ঞান-বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির যুগে এমনটি হওয়ার কথা নয়।

ঢাকা ও চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে বিভিন্ন সরকারের আমলে নেয়া হয়েছে নানা পরিকল্পনা, মিলেছে নানা প্রতিশ্রুতি। বলা হয়েছে, ড্রেনেজ ব্যবস্থার আমূল সংস্কারসহ উন্নয়নে নেয়া হবে নানা পদক্ষেপ। বলা হয়েছে, বুড়িগঙ্গাসহ রাজধানীর খালগুলো এবং চট্টগ্রামের চাক্তাই ও অন্যান্য নালা পুনরুদ্ধার এবং নাব্য রক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। বাস্তবে কিছুটা অগ্রগতি সাধিত হলেও জনজীবন একটু হলেও সান্ত¡না পেত। কিন্তু হা হতোস্মি! মানুষকে এখনও পানিতে ডুবে অথবা পাহাড় চাপায় অসহায়ভাবে মরতে হয় যৎসামান্য প্রাকৃতিক বিড়ম্বনায়? প্রশ্ন হলো, যে দেশটিতে পদ্মা সেতুর মতো সুবিশাল কর্মযজ্ঞ সম্পাদিত হচ্ছে প্রায় স্বউদ্যোগে, সেখানে কী প্রতিরোধ করা যায় না জলাবদ্ধতা, পাহাড় ধস?

শীর্ষ সংবাদ:
‘পর্যাপ্ত সবুজ ও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা রেখেই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে’         প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা : ফাঁসির আসামি গ্রেফতার         বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে দু’টি সমঝোতা স্মারক সই         লক্ষ্য সাশ্রয়ী মূলে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত ও জ্বালানি সরবরাহ ॥ নসরুল হামিদ         জাতীয় সংসদের জন্য ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন         দিনাজপুরে ঘুষের ৮০ হাজার টাকাসহ কর্মকর্তা আটক         দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ফায়ার সার্ভিসের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক         আপনারা যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে নির্বাচনে অংশ নেবেন না ॥ জাফর ইকবাল         মাঙ্গিপক্স ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানো সম্ভব ॥ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা         দেশের অন্তত: ৩০ শতাংশ মানুষ ভুগছে থাইরয়েডে         ইউক্রেনে নিহত হাদিসুরের পরিবার পাচ্ছে ৫ লাখ ডলার         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু নেই         টাকা আত্মসাতের দায়ে সোনালী ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ৯ জনের কারাদণ্ড         পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপির বুকে বড় জ্বালা ॥ কাদের         কামরাঙ্গীরচরে দুই যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু         সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাত করেন চক্রটি         শাহরাস্তিতে ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে, নিহত ১         নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কিন্তু আমার আয় বাড়েনি         সংযুক্ত আরব আমিরাতেও প্রথম মাঙ্কিপক্স আক্রান্ত রোগী শনাক্ত