শুক্রবার ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২০ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

শিশু নির্যাতন বন্ধে...

  • রুমান হাফিজ

শিশুরা নিষ্পাপ, ফুলের মতো পবিত্র। তাদের প্রতি ভালবাসা ও স্নেহ মমতা মানুষের স্বভাবজাত প্রকৃতি আর তাদের প্রতি নিষ্ঠুরতা ও পাশবিক আচরণ বিকৃত মানসিকতার পরিচায়ক। আজ যারা শিশু তারাই আগামী দিনে দেশ ও জাতির কর্ণধার। শিশুর সুস্থ ও স্বাভাবিক বিকাশের ওপর একটি জাতির ভবিষ্যত সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি নির্ভরশীল। অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, এই শিশুদের অনেকের ওপরই এখন চলছে অমানবিক নির্যাতন। যা কেবল জাহিলিয়াতের যুগকে মনে করিয়ে দেয়। কেননা এটি আধুনিক সভ্য জগতের সঙ্গে পুরোপুরি বেমানান। আজ একের পর এক নির্মমভাবে খুন হচ্ছে অবুঝ শিশু। স্কুল-কলেজ, রাস্তাঘাট কিংবা খেলার মাঠ থেকে হঠাৎ উধাও! পরবর্তীকালে মোবাইল ফোনে স্বজনদের কাছে মোটা অঙ্কের মুক্তিপণ দাবি। অতঃপর রাস্তাঘাটে ক্ষত-বিক্ষত লাশ উদ্ধার। অনেক শিশুকে খুন করার পর টুকরো টুকরো করে লাশ বস্তাবন্দী করে নদী, খাল কিংবা ডোবায় ফেলে দিচ্ছে অপহরণকারীরা। শিশু হত্যার ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় চরম আতঙ্কে অভিভাবকরা। ঘরে বাইরে কোথাও আর নিরাপদ থাকছে না কোমলমতি শিশুরা।

মুক্তিপণ আদায়ের জন্য কোমলমতি শিশুদের টার্গেট করছে অপরাধীরা। এমনকি মুক্তিপণ দিয়েও বাঁচানো যাচ্ছে না শিশুদের। অতি সম্প্রতি কেরানীগঞ্জে মুক্তিপণ দুই লাখ টাকা দেয়ার পরও হত্যা করা হয় ১১ বছরের শিশু আবদুল্লাহকে। অপহরণের পাঁচদিন পর প্রতিবেশীর তিনতলা বাসার ছাদে একটি প্লাস্টিকের ড্রাম থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এভাবে আবদুল্লার মতো কোমলমতি শিশুদের অপহরণ, বলাৎকার ও হত্যার ঘটনা বেড়েই চলছে।

বেসরকারী পর্যায়ে শিশুদের নিয়ে কাজ করা ‘শিশু অধিকার ফোরাম’ (বিএসএএফ) তথ্য বলছে- ২০১৪ সালে সারাদেশে ২০৯ জন শিশু অপহরণের শিকার হয়। আর ২০১৫ সালে এ সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪৩ জনে। ২০১৫ সালে অপহরণের পর হত্যা করা হয় ৪০ জন শিশুকে। এলিট ফোর্স র‌্যাবের পরিসংখ্যান মতে, ২০১৫ সালে মোট ১৫৪ জন অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শিশু রয়েছে। একই সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে ৩০১ জন অপহরণকারীকে।

বিশ্বজুড়ে শিশু অধিকার রক্ষায় জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ প্রণয়ন করে। এ সনদের সমর্থনকারী বিশ্বের ২২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশও অন্যতম। বাংলাদেশ সরকার ১৯৯৪ সালে জাতীয় শিশুনীতি প্রণয়ন করে। কিন্তু তিক্ত বাস্তবতা হলো, এসব নীতি বা সনদের কোনটাই আজ শিশুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারছে না। আজ যে বা যারা আমাদের নিষ্পাপ কোমলমতি শিশুদের জীবন প্রদীপ অকালেই নিভিয়ে দিতে চায় অথবা দিচ্ছেÑ আমরা কি পারি না কঠোর হাতে তাদের দমন করতে?

আমাদের সরকার কি পারে না, তাদের বিরুদ্ধে আরও কঠোর আইন পাস করতে? কিংবা বিদ্যমান আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন ঘটাতে? আসুন, আমরা সবাই মিলে নিষ্পাপ কোমলমতি শিশুদের নির্যাতনমুক্ত ও আনন্দঘন জীবন উপহার দিতে সচেষ্ট হই। তাদের জন্য নিশ্চিত করি শঙ্কাহীন শৈশব।

ইসলামপুর (মেজরটিলা), সিলেট থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
যে অপরাধ করবে তাকেই শাস্তি পেতে হবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ একটি মাইলফলক : সেতুমন্ত্রী         ইভিএম পদ্ধতির ভুল প্রমান করতে পারলে পুরস্কৃত করা হবে ॥ ইসি আহসান হাবিব         অভিবাসীদের জীবন বাঁচাতে প্রচেষ্টা বাড়াতে হবে         অস্ত্র মামলায় ছাত্রলীগ নেতা সাঈদী রিমান্ডে ॥ জোবায়েরের জামিন         ইসলাম বিদ্বেষ, নারী বিদ্বেষকে ঘুষি মেরে বক্সিং-এ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জারিন         স্ত্রীর কবরের পাশে চিরশায়িত হবেন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী         শিগগিরই সব দলের সঙ্গে সংলাপ : সিইসি         চাঁদপুরে ট্রাক-অটোরিকশা মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের দুই পরীক্ষার্থী নিহত         তীব্র জ্বালানি সংকটে শ্রীলঙ্কায় স্কুল ও অফিস বন্ধ         মঠবাড়িয়ায় যাত্রীবাহী বাস চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত, আহত ২         নগর ভবনে দরপত্র জমা দেওয়ার চেষ্টা         রাজধানীর বাজারে প্রায় সব পণ্যের দাম বৃদ্ধি         শনিবার গ্যাস থাকবে না রাজধানীর যেসব এলাকায়         আজ ২০ সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে ‘পাপ-পুণ্য’         সারাদেশে চলছে ভোটার তালিকার হালনাগাদ         দৌলতখানে বাবা-ছেলে চেয়ারম্যান প্রার্থী         হাইকোর্টের নির্দেশে ভারতে অবৈধ ভাবে নেওয়া চাকরি হারালেন মন্ত্রী কন্যা         আফগানিস্তানে নারী উপস্থাপকদের অবশ্যই মুখ ঢাকতে হবে, নির্দেশ তালিবানের         শাহজালালে ৯৩ লাখ টাকার স্বর্ণসহ যাত্রী আটক