বৃহস্পতিবার ৬ মাঘ ১৪২৮, ২০ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চাঁপাইয়ে শিশু মোবারক হত্যার নেপথ্যে পরকীয়া?

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ॥ নাচোল উপজেলার শিংরইল গ্রামের ১১ বছরের শিশু মোবারক হোসেন হত্যা মামলা নিয়ে বাণিজ্য শুরু হয়েছে। চাঞ্চল্যকর এই শিশু হত্যার এক বছর পেরিয়ে যাওয়ার পরও পুলিশ চার্জশীট দেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে পরিবারের পক্ষ থেকে। মামলা তদন্ত করছে সিআইডি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিআইডি পরিদর্শক ফাইজুল ইসলাম জানান, তারা ইতোমধ্যে তদন্ত শেষে চার্জশীট অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রে (ঢাকা) পাঠিয়েছে। অনুমোদনে দীর্ঘসূত্রিতার কারণ তিনি বলতে পারবেন না বলে জানান। অনুমোদন হয়ে এলে চার্জশীটের বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। জানা গেছে, শিংরইল গ্রামের টিউবওয়েল মিস্ত্রি মুক্তার আলীর শিশুপুত্র মোবারকের মৃতদেহ পার্শ্ববর্তী পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয় হত্যার সপ্তাহখানেক পর। পিতা মুক্তার বাদী হয়ে নাচোল থানায় মামলা করেন। একই গ্রামের মহিউদ্দীন, অপু, জনি, জিয়া, রাজু ও টাপুকে আসামি করা হয়। পুলিশ তদন্তের একপর্যায়ে পড়শী আবু বাক্কারকে গ্রেফতার করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে পড়ে। জিজ্ঞাসাবাদে বাক্কার স্বীকার করে মোবারককে হত্যার ব্যাপারে মুখ্য ভূমিকা পালন করে তার ছেলে ও স্ত্রী।

তিনি হত্যার দৃশ্য প্রত্যক্ষ করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নজরুল ইসলামের দেয়া তথ্য থেকে এ চিত্র উঠে আসে। পরে মামলাটি স্থানান্তর করা হয় অপরাধ তদন্ত বিভাগ বা সিআইডির কাছে। খুনের পরপরই পুলিশ যে পাঁচজনকে আটক করেছিল তাদের সবাই এখন উচ্চ আদালতের জামিন পেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। বাদী মুক্তার আলী জানান, জামিনে মুক্ত হয়ে আসামিরা মামলা উঠিয়ে নেয়ার জন্য নানাভাবে চাপ দিচ্ছে। নতুবা তাদেরও একই পরিণতির মধ্যে পড়তে হবে বলে হুমকি দিচ্ছে। প্রশ্ন উঠেছেÑ একটি শিশুকে এমন নির্মমভাবে হত্যা করা হলো কেন? উত্তর খুঁজতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে আসল রহস্য। এর পেছনে একটি পরকীয় প্রেমের কাহিনী বেরিয়ে এসেছে। বাদী মোক্তারের ভাতিজা মিলন দুবাইপ্রবাসী মোমিনের বউ ফরিদার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়া প্রেম চালিয়ে আসছিল।

পাল্টা প্রতিশোধ নিতেই আবু বাক্কারের স্ত্রী ও ছেলে দুবাইপ্রবাসী মোমিন শিশু মোবারককে নির্মমভাবে হত্যা করে। এক কথায় প্রকৃত অপরাধী বা পরকীয়ার মূলনায়ক মিলনকে ছেড়ে তার চাচাত ভাই শিশু মোবারককে হত্যা করে। এখন মূল আসামি আবু বাক্কারসহ তিনজনকে বাঁচাতে কাজ করছে এএসপি পদমর্যাদার জনৈক কর্মকর্তা। সেই এএসপির ভাতিজার মেয়ের সঙ্গে বিয়ে হয়েছে মূল আসামি আবু বাক্কারের এক ছেলের। ঘটনাস্থলের পাশের গ্রাম শিয়ালাতে সেই এএসপির বাড়ি। সে এখন সিআইডি কর্মকর্তা হিসেবে নওগাঁ জেলায় অবস্থান করছেন। মোবাইলে কথা বললে তিনি জানান, এ ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

শীর্ষ সংবাদ:
বিধিনিষেধে তোয়াক্কা নেই ॥ করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে         অগ্রযাত্রা কেউ থামিয়ে দিতে পারবে না         চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা         ঢাকা, রাঙ্গামাটির পর ঝুঁকিপূর্ণ আরও ১০ জেলা         বিএনপি-জামায়াতের লবিস্ট নিয়োগ তদন্তে গোয়েন্দারা         লাভজনক থেকে রুগ্ন ॥ গাজী ওয়্যারসের আধুনিকায়ন প্রকল্পে ২০ কোটি টাকা লোপাট         বিএনপি জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে ॥ কাদের         ওমক্রিন প্রতেিরাধে ডসিদিরে র্সবােচ্চ সর্তক থাকার নর্দিশে         শিমুকে সরিয়ে দেয়ার সুযোগ খুঁজতে থাকে ঘাতক স্বামী         দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনশন চলবে         কেটে গেছে শৈত্যপ্রবাহ তিনদিনের মধ্যে বৃষ্টি হতে পারে         অস্ট্রেলিয়ায় চাকরির নামে বিপুল অর্থ আত্মসাত         খাস জমির অর্ধেক উদ্ধার করে ১০ লাখ ভূমিহীনকে আশ্রয় দেয়া সম্ভব         ‘বাংলাদেশের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না’         একদিনে করোনায় ১২ মৃত্যু, শনাক্ত ৯৫০০         ‘মাসুদ রানা’খ্যাত কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই         গ্যাসের দাম বাড়ানোর বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীরা         বাংলাদেশ ব্যাংকের ৪ কর্মকর্তাকে দুদকে তলব         ই-কমার্সে আস্থা ফেরাতে ফেব্রুয়ারিতে চালু হচ্ছে নিবন্ধন : পলক         করোনার সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে ১২ জেলা