ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২০ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বরিশালে চালু হয় প্রথম সচিবালয়

বঙ্গবন্ধুর ভাষণে উত্তাল মার্চ

খোকন আহম্মেদ হীরা

প্রকাশিত: ০১:০১, ৮ মার্চ ২০২৪

বঙ্গবন্ধুর ভাষণে উত্তাল মার্চ

বঙ্গবন্ধুর ভাষণের পর উত্তাল হয়ে ওঠে দেশবাসী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের পর পরই উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা বরিশাল। সংগঠিত হতে শুরু করেন এতদঞ্চলের মুক্তিপাগল মানুষ। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বরিশালে চালু হয় ‘স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয়’। যা একমাস কার্যকর ছিল। সেখান থেকেই মুক্তিযুদ্ধে বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালিত হতো। যুদ্ধও পরিচালিত হয়েছে স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয় থেকে। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সামরিক সরঞ্জাম, খাদ্য-অর্থ সংগ্রহ ও সরবরাহ করা হতো ওই সচিবালয়ের মাধ্যমে।
সে সময় বরিশালে পত্রিকা আসতো একদিন পর। তাই বঙ্গবন্ধু কি বলেছেন, ঢাকার খবর কি? এসব জানতে স্থানীয় নেতাদের বাড়িতে গভীর রাত পর্যন্ত ভিড় করতেন মুক্তিপাগল মানুষ। বিশেষ করে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক ও এমএলএ নুরুল ইসলাম মঞ্জুরের বাসা হয়ে উঠেছিল মুক্তিপাগল মানুষের সমাবেশস্থল। শহরের পেশকার বাড়ির আঙ্গিনায় মানুষের ঠাঁই দেওয়া একসময় অসম্ভব হয়ে পড়ে।

পেশকার বাড়ির অপরপ্রান্ত হেমায়েত মঞ্জিলের সামনে এবং কৃষি অফিস চত্বরে মানুষ অবস্থান করতো মধ্যরাত পর্যন্ত। প্রচ- উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে পরবর্তী নির্দেশ পাওয়ার জন্য অস্থির ছিলেন বরিশালের মুক্তিকামী মানুষ। বরিশাল শহরে স্থায়ী মঞ্চ করে প্রতিদিন চলতে থাকে প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও গণসংগীত। 
বরিশাল অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও তৎকালীন এমএলএ নুরুল ইসলাম মঞ্জুরের আত্মজীবনীমূলক বইয়ে স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এটি স্থাপন করা হয়েছিল বর্তমান বরিশাল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। সেখানে পরে স্থাপন করা হয়েছে ‘স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয় এর একটি স্মারক।
ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের তৎকালীন অন্যতম সদস্য ও বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রদীপ কুমার পুতুল বলেন, আমি তখন বরিশাল ল’ কলেজে আইনের ছাত্র ছিলাম। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চ ভাষণের পর আমাদের কাছে (ছাত্রসমাজ) এটাই মনে হলো, পাকিস্তানিদের সঙ্গে যুদ্ধ অনিবার্য। এটা আর রোধ করা সম্ভব নয়। আর সে সময় আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল ইসলাম মঞ্জুরের বাসা ছিল আমাদের কন্ট্রোল রুম। সেখান থেকেই আমাদের সকল কর্মকা- পরিচালিত হতো। রাত-দিন ২৪ ঘণ্টাই ছিল তার বাড়িতে আমাদের অবস্থান।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু বঙ্গবন্ধু ‘যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা করতে’ বলেছেন। তাই বরিশালেও প্রত্যেকে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রাথমিক প্রস্তুতি শুরু করে। যদিও যুদ্ধ সম্পর্কে আমাদের তখন কোনো ধারণা ছিল না। শুধু দেশপ্রেম ও বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের নির্দেশে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে আমরা কাজ শুরু করে দেই। প্রায় প্রতিদিনই মিটিং মিছিলসহ নানা কর্মসূচি পালন করি।
এতদঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক ও যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সৈয়দ মনিরুল ইসলাম বুলেট ছিন্টু জনকণ্ঠকে বলেন, ৭ মার্চের ভাষণের পর অগ্নিঝরা মার্চ মাসেই বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বরিশালেও স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রাথমিক প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করা হয়। প্রত্যেক পাড়া-মহল্লায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মুক্তি সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়েছিল। যার যা কিছু আছে তাই নিয়েই যুদ্ধের প্রস্তুতি চলে।

পরবর্তীতে ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুুর স্বাধীনতার ঘোষণার মধ্য দিয়ে চূড়ান্তরূপে শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু করা হয়। আবালবৃদ্ধবনিতা যোগ দেয় মহান মুক্তিযুদ্ধে। তিনি আরও বলেন, ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণের পর থেকে সাধারণ মানুষকে আন্দোলনের মধ্যে রাখার জন্য সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে প্রতিটি পাড়ায়, মহল্লায় অনুষ্ঠিত হতো সভা, সমাবেশ, গণসঙ্গীত, আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এসব অনুষ্ঠানে মুক্তিকামী মানুষের ঢল নামতো।

মন্ত্রমুগ্ধের মতো শ্রোতারা শ্রবণ করতেন রক্তে আগুন জ্বালা সেসব গান ও কবিতা। স্বাধীনতায় উজ্জীবিত করা সেসব গণসঙ্গীতে উদ্বেলিত হতো সাধারণ মানুষ। সেসব গানের মধ্যে গণসঙ্গীত শিল্পী আবু আল সাঈদ নান্টুর ‘জয় স্বাধীন বাংলা’ গানটি সব সভার অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে ওঠে। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এবং পরবর্তীতে স্বাধীনতার ঘোষণায় সর্বস্তরের জনতার কাছে স্পষ্ট হয়ে যায় করণীয়। 
বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম মঞ্জু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সরকারের একজন মন্ত্রী ছিলেন। তার প্রকাশিত ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে দক্ষিণাঞ্চল’ বইয়ে তিনি উল্লেখ করেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের শেষদিকে যা বলেছেন তার নিরপেক্ষ বিচার-বিশ্লেষণ করলে স্পষ্ট করেই বোঝা যাবে ওইদিনই বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। ফলশ্রুতিতে ৭ মার্চের ভাষণের পর পরই বরিশালে শুরু হয়ে যায় যুদ্ধ প্রস্তুতি।
নুরুল ইসলাম মঞ্জু তার বইয়ে উল্লেখ করেছেন, ২৪ মার্চ বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করে মেজর জলিলের দেওয়া পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্রস্তুতিমূলক কিছু তথ্য জানিয়ে ওইদিনই আবার বরিশালের উদ্দেশে ফিরে আসি। ওইদিন বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে বসে মঞ্জুর সঙ্গে দেখা হয়েছিল কর্নেল ওসমানী ও ফ্লাইট সার্জেন্ট ফজলুল হকের। বরিশাল ফিরে ২৫ মার্চ দিনভর আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে প্রস্তুতি সভা করা হয়।
২৫ মার্চ রাত ১১টার দিকে আকস্মিকভাবে ট্রাঙ্কলযোগে ছাত্রলীগ নেতা খালেদ মোহাম্মদ আলী তাকে (মঞ্জু) জানান, ঢাকায় হানাদার বাহিনী হিংস্র হায়নার মতো রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স, পিলখানা ইপিআরের হেড কোয়ার্টারসহ নিরস্ত্র বাঙালিদের নির্বিচারে হত্যা করতে শুরু করেছে।

তাৎক্ষণিক মঞ্জুরের বাসভবনে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও নির্বাচিত জাতীয় প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যদের মধ্যে আবদুর রব সেরনিয়াবাত (শহীদ), মহিউদ্দিন আহম্মেদ, আমির হোসেন আমু (সাবেক শিল্পমন্ত্রী) এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মালেক খানসহ নেতা-কর্মীদের নিয়ে জরুরি সভা করা হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাৎক্ষণিক অ্যাডভোকেট সরদার জালাল উদ্দিনকে (শহীদ) নির্দেশ দেওয়া হলো- রাজধানীতে পাকিস্তানি বাহিনীর পৈশাচিক ঘটনা মাইকিং করে শহরে প্রচারের জন্য।

পাশাপাশি বরিশাল শহরবাসীকে পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ এবং যাদের লাইসেন্সভুক্ত অস্ত্র আছে তাদের অস্ত্র আমার (মঞ্জু) বাড়িতে অবস্থিত কন্ট্রোল রুমে জমা দেওয়ার জন্য। 
মঞ্জু তার বইতে আরও উল্লেখ করেছেন, ওইদিনই (২৫ মার্চ) ভোররাতে বরিশালের একদল সাহসী মুক্তিকামী তরুণকে নিয়ে ছুটে যাই বরিশাল পুলিশ লাইনে। তৎকালীন জেলা প্রশাসক আইয়ুবুর রহমান, পুলিশ সুপার ফখরুদ্দিন আহম্মেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজী আজিজুল ইসলাম, ডিএসবির এসআই বাদশা মিয়া, হাবিলদার আকবরসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্যর সহযোগিতায় আমরা পুলিশ বাহিনীর অস্ত্রাগারে রক্ষিত সব অস্ত্র বের করে নিয়ে শহরের বগুড়া রোডের পেশকার বাড়ি এলাকার আমার বাড়িতে আসি।

ওই বাড়িতেই গড়ে তুলি মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্রাগার। পেশকার বাড়ির পুকুরে ওজু করে আসার পর মুক্তিযোদ্ধাদের আমি শপথবাক্য পাঠ করাই। এরপর ২৬ মার্চ সকালে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে অস্ত্র বিতরণ করি।
তিনি আরও উল্লেখ করেন, দ্রুত বরিশাল শহরে এসে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ শুরু করতে মেজর জলিলের কাছে খবর পাঠাই। একইদিন বাড়ির সামনে সদর গার্লস স্কুলে প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয়’। গঠন করা হয় একটি শক্তিশালী বিপ্লবী পরিচালনা পরিষদ। ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত ওই পরিষদের মাধ্যমেই দক্ষিণাঞ্চলের সবকিছু পরিচালিত হতো।

১৭ এপ্রিল পাক হানাদার বাহিনী প্রথম বরিশালে আক্রমণ করে এবং ২৬ এপ্রিল বরিশাল শহরের দখল নেয়। ফলে সদর গার্লস স্কুলে স্থাপিত স্বাধীন বাংলার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রথম সচিবালয়ের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ, হাজার-হাজার প্রাণ ও মা-বোনের সম্ভ্রম হারানোর বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর পাকহানাদারের কবল থেকে দখলমুক্ত হয় বরিশাল।

খোকন আহম্মেদ হীরা, বরিশাল

×