১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ফেসবুকে মা দিবস সুসান জি কোমেনের প্রতি ভালবাসা


ইতিহাস থেকে জানতে পারি, মে মাসের দ্বিতীয় রবিবারকে ‘মা দিবস’ হিসেবে উদ্যাপনের ঘোষণা দেয়া হয় ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেসে। আর তখন থেকেই এই দিনে সারা বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে মা দিবস। বিশ্বের প্রায় ৪৬টি দেশে প্রতিবছর দিবসটি পালিত হয়। মা আমাদের গর্ভধারণ, জন্মদান তথা সন্তানকে বড় করে তোলেন। তিনিই অভিভাবকের ভূমিকা পালনে সক্ষম ও মা হিসেবে সর্বত্র পরিচিত। গর্ভধারণের ন্যায় জটিল এবং মায়ের সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয় অবস্থানে থেকে বিশ্বজনীন গৃহীত হয়েছে।

বিশ্ব মা দিবস, ফেসবুকে স্ট্যাটাস, প্রোফাইল পিকচারে ‘আই লাভ মম’ আসলে এর কোনটাই মা বোঝে না। মা সবচেয়ে ভাল বোঝে তার সন্তানের মুখের মা ডাক, সেটা সামনে থেকেই হোক আর দূর প্রবাস থেকে মোবাইলে যদি বলি ‘মা ভালো আছো’?

তবে সোশ্যাল নেটওয়ার্কের যুগে বিশ্বের মানুষ চায় ভিন্ন ভাবনায় বসবাস করতে। চায় ভালবাসাটাকে সহজে আর অল্প সময়ে সবার মাঝে বিতরণ করতে। আর মায়ের প্রতি ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ যদি সোশ্যাল নেটওয়ার্কে হয় তাহলে তো কথাই নেই। নানা প্রান্তের মানুষের সঙ্গে সহজ যোগাযোগের মাধ্যম হলো ফেসবুক।

‘যখনি আমাদের নিকট মা দিবস উপস্থিত হয়, তখন আমরা মাকে আমাদের জীবনে বিশেষভাবে উদ্যাপন করতে চাই। আমি শুধুই আমার প্রোফাইল পিকচার আপডেট করেছি বিশ্বের প্রত্যেক মায়ের প্রতি সমর্থন জানানোর জন্যে। তাই সুসান জি কোমেন মা দিবসের ফ্রেমে আপনিও প্রোফাইল পিকচার আপডেট করুন আর এটি অনেক সহজ!’– মা দিবস উপলক্ষে এমন প্রচারণা খুঁজে পাওয়া যায় যুক্তরাষ্ট্রের সর্ববৃহৎ ব্রেস্ট ক্যান্সার এ্যাডভোকেসি গ্রুপ সুসান জি কোমেন ফর দ্য কিওর বা সুসান জি কোমেনের ফেসবুক এ্যাকাউন্টে। আর বলবেই বা না কেন? এটাতো তাকে বলা মানায়! পরিষ্কার করে বুঝিয়ে বলি। বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় সোশ্যাল সাইট ফেসবুক বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে ‘আই লাভ ইউ মম’ নামে প্রোফাইল ছবি আপডেট অপশনটি উৎসর্গ করেছে সুসান জি কোমেনকে ঘিরে।

সুসান জি কোমেন ব্রেস্ট ক্যান্সার ফাউন্ডেশন। যুক্তরাষ্ট্রের সর্ববৃহৎ এবং সর্বোত্তম ব্রেস্ট ক্যান্সার সংস্থা। ১৯৮২ সালের দিকে যুক্তরাষ্ট্রে কোমেন প্রায় ১.৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে শুধু ব্রেস্ট ক্যান্সার শিক্ষা, গবেষণা, এ্যাডভোকেসি, স্বাস্থ্যবিষয়ক সেবা আর সামাজিক সচেতনতার জন্যে এবং আনুমানিক ৫০টির বেশি দেশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক বৃদ্ধি করে। এখন বিশ্বব্যাপী ১২৪টি দেশে কাজের ক্ষেত্রে সুসম্পর্ক বৃদ্ধির জন্যে কোমেনের রয়েছে ১ লাখের বেশি স্বেচ্ছাসেবী।

গত সেপ্টেম্বরে হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে চিকিৎসক, ক্যান্সার রোগের প্রতিরোধ প্রবক্তা ও যারা স্তন ক্যান্সার থেকে রক্ষা পেয়েছেন তাদের এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এর উদ্যোক্তা যুক্তরাষ্ট্রের সর্ববৃহৎ? ব্রেস্ট ক্যান্সার এ্যাডভোকেসি গ্রুপ সুসান জি কোমেন ফর দ্য কিওর? ৩০টি দেশের প্রতিনিধি এ সম্মেলনে স্তন ক্যান্সারের ভীতিপ্রদ কাহিনী শোনান? এ স্তন ক্যান্সারের চিকিৎসায় যুক্তরাষ্ট্রে বছরে ৮১০ কোটি ডলার খরচ হয়। এ দেশে রয়েছে বহু স্তন ক্যান্সার ক্লিনিক, নানা ধরনের স্তন ক্যান্সার নির্ধারক যন্ত্রের বিপুল সমাবেশ? পাশাপাশি, ভারতের পুনে ৩৫ লাখ নারীর জন্য রয়েছে একটি মাত্র সর্বাঙ্গীন স্তন ক্যান্সার সেবাকেন্দ্র। দক্ষিণ আফ্রিকায় মাত্র শতকরা ৫টি স্তন ক্যান্সার কেস ধরা পড়ে প্রাথমিক অবস্থায়। অথচ যুক্তরাষ্ট্রের বেলায় এই হার ৫০ শতাংশ। ইউরোপের ঠিক পাশে ইউক্রেনের মতো দেশেও স্তন-ক্যান্সার সন্দেহভাজনদের দু’দিকের মনোগ্রাফি ছবি নেয়ার মতো যথেষ্ট ফিল্ম থাকে না। তবু এসব মন্দ খবরের মাঝেও আছে কিছু সুসংবাদ। উন্নততর শৌচ পরিচ্ছন্নতা, আরও বেশি খাবার, উন্নততর জনস্বাস্থ্য, বর্ধিত গড় আয়ু, স্বল্প আয় ও মাঝারি আয়ের দেশগুলোতে বেড়েছে। ১৯৬৫তে এসব দেশের মানুষের গড় আয়ু ছিল ৫০, ২০০৫-এ এসে তা বেড়েছে ৬৫ বছরে। নারীর বয়সও বেড়েছে এমন পর্যায়ে যখন তাদের স্তন ক্যান্সার হবার ঝুঁকি গড়ে সবচেয়ে বেশি। সেইসঙ্গে এসব উন্নয়নশীল দেশের জীবনযাত্রা পাশ্চাত্যের ছোঁয়াই অভিশাপ হয়ে দেখা দিয়েছে।

মা দিবসে মায়েদের শুভেচ্ছা ও ভালবাসা জানানোর জন্য ফেসবুকের এই অভিনব ব্যবস্থা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। মা দিবস উপলক্ষে সুসানকে উৎসর্গ করা ‘আই লাভ ইউ মম’ ছাড়াও ফেসবুকের চ্যাটিং এ্যাপ্লিকেশন মেসেঞ্জারে যোগ করা হয়েছে রংবেরঙের ফুল ও শুভেচ্ছাবার্তা। যার মাধ্যমে মাকে শুভেচ্ছা জানানো হয়, জানানো হয় ভালবাসার কথা।

তবে এই ফিচারটি চালু মাত্র তিন দিনের জন্য। ৭ মে থেকে ৯ মে পর্যন্ত। ফেসবুকের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, স্বল্প সময়ের জন্য ৭ মে থেকে ৯ মে ব্যবহারকারীরা মেসেঞ্জারে বেগুনী রঙের ফুলের আইকন দেখতে পারবেন। আপনার মেসেজে ফুলের তোড়া পাঠাতে চাইলে ফুলের আইকনে ট্যাপ করতে হবে। আমরা আশা করছি, মায়েদের শুভেচ্ছা জানাতে আপনারা এই ফিচারটি ব্যবহার করবেন। ভার্চুয়াল জগতে শুভেচ্ছা ও ভালবাসা জানাতে এই ফিচারটি সবার পছন্দ হবে। এর বাইরেও শুধু মা দিবস উপলক্ষে বেশকিছু নতুন স্টিকার যোগ করে ফেসবুক। বিশ্বের ৮২টি দেশের ব্যবহারকারীরা এসব ফিচার ব্যবহার করে। মা দিবস উপলক্ষে ফেসবুকে আরও যোগ হয় কাস্টমাইজড ই-কার্ড, স্টিকারহ আরও বেশকিছু ফিচার। তবে এসব কিছুই মাত্র ওই তিন দিনের জন্য কাজে লাগাতে পারে ব্যবহারকারীরা।