ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম

‘বাংলাদেশ অবশ্যই ভাল খেলবে’

প্রকাশিত: ০৫:৫৮, ২০ অক্টোবর ২০১৬

‘বাংলাদেশ অবশ্যই ভাল খেলবে’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দীর্ঘ ১৪ মাস পর আবার টেস্ট খেলতে নামছে বাংলাদেশ দল। প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ইংল্যান্ড। তাতে কি। ক্রিকেটাররা যদি ভাল খেলতে পারেন, তাহলে ‘বাংলাদেশ দল অবশ্যই ভাল করবে’ বলেই বিশ্বাস টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের। বুধবার এমনটিই জানালেন। টেস্ট সিরিজপূর্ব সংবাদ সম্মেলনের সারসংক্ষেপ এখানে তুলে ধরা হলো। * অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম ॥ অনেকদিন পর শুনলাম যে কেউ ক্যাপ্টেন বলল। ভালই লাগল আলহামদুলিল্লাহ। * কন্ডিশন মুশফিক ॥ আবহাওয়া অবশ্যই অনেক বড় প্রভাব ফেলবে। টানা পাঁচদিন মনোযোগ ধরে ধারাবাহিকভাবে খেলা অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং হবে। তবে আমাদের চেয়ে ওদের জন্য আরও কঠিন হবে। যেহেতু ওরা এই ধরনের আবহাওয়ায় অভ্যস্ত নয়। অবশ্য ওরা এখানে প্রায় ২০ দিন ধরে আছে। তো চেষ্টা করব সুবিধা যতটুকু আছে আমাদের, কাজে লাগাতে। * দীর্ঘদিন টেস্ট না খেলা মুশফিক ॥ আসলে এগুলো নিয়ে চিন্তা করলে আমাদের একটু ব্যাকফুটে রাখবে। কারণ, এখন সময় খেলার। আমরা সেদিকেই মনোযোগ দিচ্ছি। পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে আপনি যদি বলেন যে ১৫ মাস আমরা খেলি না, তাহলে আমাদের দোষও কিন্তু খুব বেশি নয়। এই ফরম্যাটে আমাদের খেলা ছিল না বলে খেলিনি। আমাদের জন্য অবশ্যই এটা বড় চ্যালেঞ্জ হবে। তবে গত দেড় বছর আমরা যেভাবে টানা ওয়ানডে ও টি২০ খেলেছি, সেটাও বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। কারণ, আগে আমরা এতটা টানা খেলিনি। সেটা আমরা খুব ভালভাবে পেরেছি। আমার মনে হয় অসম্ভব কিছু না। কারণ মানসিক ও শারীরিকভাবে হয়তো গত ১০-১১ বছরে যা করেছি, সেটার চেয়ে বেশি করতে হবে। সেটা আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ নেয়ার জন্য আমাদের সিনিয়র ক্রিকেটাররা প্রস্তুত, জুনিয়র যারা স্কোয়াডে আছে, সুযোগ পেলে তারাও নিজেদের উজাড় করে দেয়ার জন্য প্রস্তুত। চেষ্টা করব পাঁচটা দিন সেশন বাই সেশন ধারাবাহিক ক্রিকেট যেন খেলতে পারি। ওয়ানডেতেও আমরা একসময় ভাল খেলছিলাম না, কিন্তু গত ২ বছরে অনেক ভাল করেছি। আশাকরি, আগামীকাল (আজ) থেকে টেস্টেও ধারাবাহিকভাবে ভাল খেলার শুরু হবে। * একাদশ মুশফিক ॥ স্কোয়াডে পেসার আছেই তো দু’জন। আমরা চেষ্টা করব সেরা কম্বিনেশন গড়তে। আবহাওয়ার ব্যাপার আছে। শেষ মুহূর্তে আমরা যদি দেখি আবহাওয়ার কারণে উইকেট বদলে যেতে পারে। তো এসব আমাদের মাথায় আছে। আমাদের স্কোয়াডে যথেষ্ট স্পিনারও আছে। আমরা যে পরিকল্পনাটা করেছি, আশাকরি আমাদের সেরা কম্বিনেশন যেটা হবে, সেই অভিষিক্ত ক্রিকেটারই হোক বা অন্য কেউ, সবার ওপরই আস্থা আছে। সবাই যদি নিজেদের সেরাটা দিতে পারে, তাহলে বাংলাদেশ দল অবশ্যই ভাল করবে। * মিডিয়া থেকে দূরে থাকা মুশফিক ॥ এটা আসলে মনোযোগ একটা সুনির্দিষ্ট জায়গায় রাখার জন্য। আমি ভাবছিলাম অন্যান্য দিকে মনোযোগ না দিয়ে যদি নিজের কাজগুলো ভালভাবে করতে পারি, অন্তত বেশি সময় দিতে পারি অন এ্যান্ড অব দ্য ফিল্ড আমার খেলা নিয়ে এই একটা কারণেই। এর বাইরে তেমন কোন কারণ নেই। আর শেষ ১৫ মাসে হয়ত বা কোন খেলা হয়নি, তাই দেখা হয় না। হয়তো খেলা হলে নিয়মিত দেখা হতো। * ফেবারিট মুশফিক ॥ অবশ্যই, ইংল্যান্ড দল গত কয়েক বছরে দেশের মাটিতে ও বাইরে যেভাবে খেলছে, ওরা টেস্ট সিরিজে পরিষ্কার ফেবারিট। তবে এটাই শেষ কথা নয়। ওয়ানডে সিরিজেও আমরা ফেবারিট ছিলাম, কিন্তু হেরেছি। গুরুত্বপূর্ণ হলো একটা দল সেশন বাই সেশন কতটা ধারাবাহিকভাবে ভাল খেলতে পারে। সেটাই আমাদের মূল লক্ষ্য। প্রথম ইনিংস হবে গুরুত্বপূর্ণ। যে লিড পাবে বা শুরুতে লাগাম নিতে পারবে, তারাই পুরো নিয়ন্ত্রণ করবে। আমরা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে মুখিয়ে আছি। আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। আশাকরি আমরা কঠিন লড়াই করতে পারব। * এ্যালিস্টার কুক মুশফিক ॥ কুক তো অবশ্যই যে কোন তরুণ ক্রিকেটারের জন্য রোলমডেল। যেভাবে গত ১০-১২ বছর ধরে খেলছে। আমার পরে অভিষেক ওর, তারপরও ১৩৪ টেস্ট খেলে ফেলছে। আমি খেলেছি ৪৮ টেস্ট। এতেই বোঝা যাচ্ছে কতটা টেস্ট সে খেলেছে এবং অর্জন করেছে অনেক কিছু। আমাদের জন্য সে হবে গুরুত্বপূর্ণ একজন, যাকে আমরা দ্রুত ফেরাতে চাইব। আশাকরি আমরা ওকে নিয়ে যা পরিকল্পনা করব, সেটা মাঠে কাজে লাগাতে পারব। * আচরণ মুশফিক ॥ ওয়ানডেতে কিছু সমস্যা হয়েছিল। এরপর আবার সব বন্ধুত্বপূর্ণ হয়ে গেছে। আশাকরি মাঠে দু’দল সেটাই বজায় রাখবে, কেউ রুড (খারাপ) আচরণ করবে না। সেসবের পুনরাবৃত্তি হবে না। * ২০ উইকেট নেয়া কঠিন মুশফিক ॥ আমার পারসোন্যাল ব্যাপার না। সাকিবের সঙ্গে আমি একমত যে ফ্ল্যাট উইকেটে ২০ উইকেট নেয়া কঠিন। সেদিক থেকে বলব আমরা এবারের পরিকল্পনা করেছি অন্যরকম। আমাদের যেটা মূল শক্তি, উইকেট যদি আমাদের স্পিনারদের সাহায্য করে, আমাদের শক্তি আছে, কোয়ালিটি বোলার আছে যে ২০টি উইকেট নিতে পারে। পাশাপাশি যে সুযোগগুলো আমাদের আসবে, সেসব নিতে হবে। পারলে ভাল কিছুই হবে। * ব্যাটিং মুশফিক ॥ আপনি যদি খেয়াল করেন, বাংলাদেশ দলে ব্যাটিংয়ে ৫-৬ জন তিনটা ফরমেটেই খেলে। সেদিক থেকে বলব যে এটা একটা লাক্সারি আছে। সবাই ফর্মে আছে। ইমরুল বলেন, সাকিব বলেন, তামিম বা রিয়াদ ভাই, মুমিনুল সবাই ফর্মে আছে। অবশ্যই তাদের দিকে তাকিয়ে আছি। আশাকরি ওরা ভাল খেলবে। টপ ফোরে কেউ যদি বড় ইনিংস খেলতে পারে, প্রথম ইনিংসে যদি আমরা তিন শ’র বেশি রান করতে পারি, এটা আমাদের জন্য হবে বিগ প্লাস। * জয় হলে বোনাস মুশফিক ॥ ফলাফল দিনশেষে একটা হবেই। ইংল্যান্ডের সাথে জিতে গেলেই আমরা বিশ্বের সেরা টেস্ট দল হয়ে গেলাম না। আমাদের মূল ফোকাস থাকবে ধারাবাহিক খেলা। গত ২ বছরে আমরা ওয়ানডেতে অনেক ধারাবাহিক ছিলাম। তার মানে এই না যে সব ম্যাচই জিতেছি। কিছু হেরেছিও। তবে গ্রাফটা উন্নতির দিকে ছিল। আমরা এটাই চাই যে টেস্টেও যেন এরকম একটা দল হতে পারি। যেন প্রতিটি টেস্টে আগের চেয়ে ভাল খেলতে পারি। এভাবে যদি একটা ভাল অবস্থানে থাকতে পারি পাঁচটা দিনে, তাহলে হয়তো জয়ের কাছাকাছি থাকতে পারি। সেদিক থেকেও হয়তো কোচ বলেছে যে জয়টা বোনাস হবে। আর যদি নাও হয়, অন্তত আমরা যেন পাঁচটা দিন লড়াই করে ভালভাবে বোঝাতে পারি যে, আগের চেয়ে আমদের লড়াই করার মানসিকতা আছে। সেটা প্রমাণ করার জন্যই আমার মনে হয় কোচ এই কথাটি বলেছেন।