ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১

সকালে দুধ নাকি লিকার চা

প্রকাশিত: ১৮:১৪, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

সকালে দুধ নাকি লিকার চা

দুধ ও লিকার চা

আপনি জানেন কি, সকালে লিকার চা না দুধ চা খেলে শরীরকে সুস্থ রাখতে পারবেন? সেই বিষয়েই মুখ খুললেন বিশিষ্ট পুষ্টিবিদ। এছাড়াও চায়ের গুণাগুণ, দিনে কত কাপ চা খাওয়া উচিত থেকে শুরু করে নানা বিষয়ে আলোচনা হল এই প্রতিবেদনে। তাই এক পলকে এই নিবন্ধটি পড়ে ফেলতে ভুলবেন না যেন!

বাঙালির চা প্রীতি প্রশ্নাতীত। তাই তো আমাদের মধ্যে বেশিরভাগই রোজ সকালে উঠে এক কাপ ধূমায়ীত চায়ের কাপে ঠোঁট ছুঁইয়েই দিন শুরু করেন। এটাই তাঁদের বরাবরের অভ্যাস।

তবে এহেন ভালোবাসার চা’কে নিয়েও কিন্তু বিতর্ক কম নেই। তাই আমাদের মধ্যে একদল সকালে উঠে দুধ চা খাওয়ার পক্ষপাতী তো, অপরদল আবার দিনের শুরুতে লিকার চায়ের উপরই ভরসা রাখেন।

তাই তো মনে প্রশ্ন আসতে বাধ্য যে, সকালে উঠে দুধ চা না লিকার চা, কোনটা খেলে সুস্থ থাকবে শরীর? আর এই বিষয়টি সম্পর্কে বিশদে জানতেই আমরা যোগাযোগ করেছিলাম কলকাতা শহরের বিশিষ্ট পুষ্টিবিদ শর্মিষ্ঠা রায় দত্তের সঙ্গে। আসুন এই বিষয়ে তাঁর মতামত জেনে নেওয়া যাক।

আমাদের অতি প্রিয় চায়ে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভাণ্ডার। আর এই উপাদান দেহের প্রদাহ প্রশমিত করার কাজে সিদ্ধহস্ত। শুধু তাই নয়, এই পানীয়ের গুণে বশে থাকে সুগার। এমনকী এড়িয়ে চলা যায় হার্টের অসুখের ফাঁদ। এর পাশাপাশি অন্ত্রের স্বাস্থ্যের হাল ফেরানোর কাজেও এই পানীয়ের জুড়ি মেলা ভার। তাই বেহাল শরীরের হাল ফেরাতে চাইলে রোজ চায়ের কাপে চুমুক দেওয়াটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

শর্মিষ্ঠা রায় দত্তের কথায়, সকালে ঘুম থেকে উঠে দুধ চায়ের বদলে লিকার চা খেলেই সুস্থ থাকবে শরীর। কারণ সকালে খালিপেটে দুধ চা খেলে অ্যাসিডিটির ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা বাড়ে। শুধু তাই নয়, চায়ে দুধ মেশালে এতে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও নষ্ট হয়ে যায়। ফলে চা খেয়ে কোনও উপকারই মেলে না। তাই শুধু সকাল কেন, দিনের যে কোনও সময়ই দুধ চা না খেয়ে লিকার চায়ের কাপে চুমুক দিন। তাতেই উপকার পাবেন হাতেনাতে।

দুধ চা খান বা লিকার চা, তাতে চিনি মেশালেই কিন্তু তার ক্যালোরি ভ্যালু বাড়বে। আর সেই কারণেই ঊর্ধ্বমুখী হবে ওজন। এমনকী নিয়মিত চিনি মেশানো চা খেলে সুগার, কোলেস্টেরলকেও বশে রাখতে পারবেন। তাই আজ থেকেই চায়ে চিনি মিশিয়ে খাওয়ার অভ্যাসটা ছাড়ুন। তার পরিবর্তে পুষ্টিবিদ এবং চিকিৎসকের পরামর্শ মতো রোজ মধু খেতে পারেন। এই নিয়মটা মেনে চললেই আপনার সুস্থ থাকার পথ প্রশস্থ হবে।

 

এস

×