ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১

ব্যবসায়ীদের জন্য সুখবর, কাগজপত্র ছাড়াই পাচ্ছেন লোন 

প্রকাশিত: ১৯:১১, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ব্যবসায়ীদের জন্য সুখবর, কাগজপত্র ছাড়াই পাচ্ছেন লোন 

প্রান্তিক গোষ্ঠী মূল গ্রাহক হওয়ায়, বড় কোনো ঋণের দেওয়া হবে না।

শহর ও প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী স্বল্প ঋণ প্রত্যাশী এমন গ্রাহক কম নয়। কিন্তু তারা নিয়মের বেড়াজাল পেরিয়ে নিতে পারছে না ব্যাংক ঋণ। কাগজপত্র না থাকায় ব্যাংক তাদেরকে ঋণ দিতে অসম্মতি জানায়। তবে এবার সেসব প্রান্তিক ব্যবসায়ীর জন্য সুখবর নিয়ে এসেছে সরকারের ডিজিটাল ব্যাংকিং ব্যবস্থা।

চলতি জাতীয় বাজেট প্রস্তাবনায় প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল ব্যাংকিং চালুর ঘোষণা দেয় সরকার। নতুন এ পদ্ধতিতে থাকবে না কোনো অফিস, শাখা ও আলাদা অবকাঠামো। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মতোই ডিজিটাল ব্যাংকের প্রতিনিধি এলাকাভিত্তিক লেনদেনে নিযুক্ত থাকবেন। 

জাতীয় পরিচয়পত্রসহ নিজস্ব তথ্য আপলোড করেই অ্যাকাউন্ট খোলা ও ঋণের আবেদন করতে পারবেন গ্রাহকরা। এরই মধ্যে ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেছে ১০টি ব্যাংকসহ ৫২টি প্রতিষ্ঠান।

নতুন এ ব্যাংকিংয়ে আমানত গ্রহণ, ঋণ দেয়া সবই হবে প্রযুক্তির মাধ্যমে। সেক্ষেত্রে গ্রাহক স্বার্থ সংরক্ষণে লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা।

তবে আর্থিক নিরাপত্তার বিষয়টিতে গুরুত্ব দেয়ার পরামর্শ দিয়ে অর্থনীতিবিদ তৌফিকুল ইসলাম খান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মানুষের যে আমানত আছে, সেটির একটি গ্যারান্টি কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংককে দিতে হবে। সেটি যদি তারা না দিতে পারে এবং একটি ব্যাংক যদি ব্যর্থ হয়, তখন কিন্তু লক্ষাধিক মানুষের আমানতের প্রশ্ন আসবে।’

এদিকে নিরাপত্তার বিষয়টি আশ্বস্ত করে বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, এ পদ্ধতিতে প্রতিযোগিতা বাড়বে আর্থিক কার্যক্রমে। যাচাই-বাছাইয়ের পরই অনুমোদন দেয়ার কথা জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. মেসবাউল হক গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ‘আমাদের যে নির্ধারিত সুদের হার আছে, সেটার আওতায়ই তাদের আসতে হবে। আবার আমানত সংগ্রহের ক্ষেত্রেও বাজারে যে সুদের হার চলমান থাকবে সেটাই মানতে হবে। এ প্রতিষ্ঠানগুলোও কিন্ত ব্যাংক। তারা আমানত নিতে পারবে আবার ঋণও দিতে পারবে। প্রান্তিক গোষ্ঠী আমাদের মূল গ্রাহক হওায় বড় কোনো ঋণের অনুমতি দেব না।’

 

এম হাসান

×