ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

জাতীয়

খুলে দেয়ার প্রস্তুতি

পদ্মা সেতুর কার্পেটিং শেষ

প্রকাশিত: ২৩:১৮, ২৪ মে ২০২২

পদ্মা সেতুর কার্পেটিং শেষ

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ভায়াডাক্টের কার্পেটিং শেষ হয়েছে। সোমবার বিকেলে জাজিরা প্রান্তে সাউথ ভায়াডাক্টে কার্পেটিং স¤পন্ন হওয়ার মধ্য দিয়ে সেতুর সড়কপথ পেয়েছে পূর্ণাঙ্গতা। যান চলাচলে আর কোন বাধা থাকছে না। এর আগে মূল সেতুর কার্পেটিং শেষ হয় ২৯ এপ্রিল। জুনেই সেতু খুলে দিতে রাতদিন চলছে ফিনিশিংয়ের কাজ। পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, সেতুতে কার্পেটিং শুরু হয়েছিল গেল বছরের ১০ নবেম্বর। আর মূল সেতুর কার্পেটিং শেষ হয় ২৯ এপ্রিল। আর সোমবার ২৩ মে ভায়াডাক্টের কার্পেটিং শেষ হলো। খুঁটিনাটি কাজ শেষ করে সেতু খুলে দেয়ার জন্য আগামী মাসের শেষ সপ্তাহেই পুরোপুরি প্রস্তুত হয়ে যাবে। রবিবার সেতুর জাজিরা প্রান্তে ভায়াডাক্টের কার্পেটিং শেষ করার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি। এদিন সেতুর ভায়াডাক্টের কার্পেটিং বাকি মাত্র ৬৪ মিটার। কেয়টখালী অ্যাসফল্ট প্ল্যান্টে সমস্যার কারণে রবিবার কার্পেটিং শুরু হয় সকালের পরিবর্তে বেলা ২টায়, চলে রাত ৯টা পর্যন্ত। তাই কেয়টখালী অ্যাসফল্ট প্ল্যান্টে বিটুমিন-পাথর মিশ্রণ দিয়ে কার্পেটিং করার কথা থাকলেও তা আর হয়নি। সেতুর শেষ অংশের কার্পেটিংয়ের জন্য ফরিদপুরের ভাঙ্গা অ্যাসফল্ট প্ল্যান্ট থেকে আসা মিশ্রণ দিয়েই কার্পেটিং হয়। আর জাজিরা প্রান্তের সাউথ ভয়াডাক্টে বাকি থাকা ১৯৭ মিটার পথের কার্পেটিংও রবিবার সম্পন্ন করার টর্গেট থাকলে তা শেষ করা যায়নি। তবে সোমবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সেতুর বাকি থাকা ৬৪ মিটার কার্পেটিং সম্পন্ন হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন। এদিকে রবিবার পদ্মা সেতুতে রেলিং বসানো শুরু হয়েছে। মূল সেতুর এক নম্বর মডিউলের ২ নম্বর খুঁটি থেকে রেলিং পোস্ট এবং কিছু স্থানে রেলিং বসানো হয়। সেতুর উজানপ্রান্ত থেকে রেলিং লাগানো হচ্ছে। এর আগে বিমানে আসা ২০৪ মিটার রেলিং ট্রায়াল দেয়া হয়। পরবর্তীতে বিমানে করে রেলিং পোস্টের আরেকটি চালান আসে। এই রেলিং ও রেলিং পোস্টই স্থাপন করা হচ্ছে। নাট-বল্ট সিস্টেমের রেলিং স্থাপনের সঙ্গে জড়িতরা জানান, নতুন রেলিং পৌঁছানোর দুই সপ্তাহের মধ্যেই রেলিং স্থাপন করা সম্ভব হবে। মূল পদ্মা সেতুর কাজের অগ্রগতি ছাড়িয়েছে ৯৮ শতাংশ। সার্বিক অগ্রগতি সাড়ে ৯৩ শতাংশের বেশি। পদ্মা সেতুর রেলিং চট্টগ্রামে ॥ পদ্মা সেতুর রেলিং রবিবার বিকেলে চট্টগ্রামে পৌঁছেছে। চারটি কন্টেনারে ভর্তি এই রেলিং ও রেলিং পোস্ট খালাস করে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকল্প এলাকায় নিয়ে আসার প্রক্রিয়া চলছে। রেলিংগুলো যুক্তরাজ্য থেকে এবং রেলিং পোস্ট দুবাই থেকে সমুদ্রপথে আনা হয়। রোড মার্কিং ॥ পদ্মা সেতুর রোড মার্কিং হয়েছে রবিবার চার নম্বর মডিউলে। সোমবার সকাল থেকেই আবার রোড মার্কিং শুরুর কথা রয়েছে। ৪ নম্বর মডিউলের বাকি অংশের রোড মার্কিং শেষ করে ৫ নম্বর মডিউলে মার্কিং শুরুর কথা রয়েছে। বুধবার রোড মার্কিং শুরু হয় সেতুর ২ নম্বর মডিউল থেকে। বৃহস্পতিবার মূল সেতুর দুই নম্বর মডিউলের বেশিরভাগ কাজ সম্পন্ন করা হয়। অস্থায়ী সাব-স্টেশনে বিদ্যুত সংযোগ প্রক্রিয়া ॥ পদ্মা সেতুর শেষ পর্যায়ের কর্মযজ্ঞের তালিকায় ২২ টি কাজের ৯টি গুরুত্বপূর্ণ কাজই সম্পন্ন হয়ে গেছে। এর বাইরে সোমবার সম্পন্ন হতে যাচ্ছে ভায়াডাক্টের কার্পেটিং। রবিবার পর্যন্ত ভায়াডাক্টের কার্পেটিংয়ের অগ্রগতি ছিল ৯৪.৫৯ শতাংশ। সেতু চালু করার জন্য দুপাড়ে দুটি অস্থায়ী বিদ্যুতের সাব-স্টেশনের কাজ হাতে নেয়া হয়। যার অগ্রগতি এখন ৮০ শতাংশ। দুটি সাব-স্টেশনই বিদ্যুত সংযোগ উপযোগী এখন। তাই সেতু কর্তৃপক্ষ মুন্সীগঞ্জ ও শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে। সেই প্রেক্ষিতে বিদ্যুত সংযোগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় বৈদ্যুতিক পুল স্থাপন করা হয়েছে।