সোমবার ৪ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

বিতর্কিত মেয়র আব্বাসকে জেলা আওয়ামী লীগ থেকে অব্যাহতি

বিতর্কিত মেয়র আব্বাসকে জেলা আওয়ামী লীগ থেকে অব্যাহতি
  • প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিলে কেন্দ্রে সুপারিশ

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার বিতর্কিত মেয়র আব্বাস আলীকে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনিবাহী সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আওয়ামী লীগের প্রাথমিক পদ থেকেও স্থায়ী বহিস্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে রাজশাহী নগরীরর অলোকার মোডে অবস্থিত জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনিবাহী কমিটির জরুরী সভায় মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় বলা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুর্যাল স্থাপন নিয়ে আব্বাস আলী যে ভাষায় কটুক্তি করেছে তা অপরাধ।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও বাগমারা উপজেলা উপজেলা চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারের সভাভতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবদুল ওয়াদুদ দারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে আব্বাসের কটুক্তি অবমাননাকর মন্তব্যে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ চরমভাবে মর্মাহত। তার ধৃষ্টতাপূর্ণ অশালিন মক্তব্যের প্রক্ষিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রাজশাহী জেলা তাকে সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রাথমিক পদ থেকে স্থায়ী বহিস্কারের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রে পাঠানো হবে। সভায় মেয়র আব্বাসের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিও দাবি করেন তারা।

এদিকে বিতর্কিত মেয়র আব্বাস হঠাৎ করেই শুক্রবার বিকেলে অজ্ঞাত স্থান থেকে ফেসবুক লাইভে এসে তার অপরাধের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করলে পাপ হবে-এমন কথা তিনি এক মাদ্রাসার হুজুরের কাছে শুনে সেখানেই বলেছিলেন উল্লেখ করে বলেন, কাটাখালি মাদ্রাসার বড় হুজুরের আপত্তি কারণে তিনি রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কের কাটাখালি পৌরসভা গেট নির্মাণস্থলে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণ থেকে সরে আসেন। তবে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল সেখানে নির্মাণ করা কথা তিনি আগেই ফেসবুকে প্রচার করেছিলেন বলেও জানান।

লাইভে এসে আব্বাস বলেন, আমি একজন মুসলমান একজন আল্লাহওয়ালা লোকের কথা শুনে আমি আমার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছি এটা আমার যদি ভুল হয়ে থাকে, তবে এর জন্য আমাকে নানা ধরনের শাস্তি দেয়া হচ্ছে। যে শাস্তি আমি সহ্য করতে পারছি না।

মেয়র আব্বাস অভিযোগ করে বলেন, এ ঘটনার পর থেকে আমার পরিবারকে ফাঁসানোর জন্য ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। ছোট একটি ভুলের কারণে আমার বিরুদ্ধে এত ষড়যন্ত্র কেন করা হচ্ছে তা আমি আগামীতে গুরুত্বপূর্ণ কারণ তুলে ধরবো ফেসবুক লাইভে।

প্রসঙ্গত, রাজশাহীর কাটাখালি পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী সম্প্রতি একটি ঘরোয়া বৈঠকে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কের পৌরসভার অংশের উন্নয়নকাজ নিয়ে কথা বলার সময় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করেন। এ সময় বঙ্গবন্ধুর মুর্যাল নির্মাণ প্রতিহতের ঘোষণা দেন নৌকা প্রতীকে দুইবারের নির্বাচিত মেয়র আব্বাস আলী। এ ঘটনার পর থেকে তার বিচার ও শান্তির দাবিতে সোচ্চার হয়ে উঠে রাজশাহী আওয়ামী লীগ।

শীর্ষ সংবাদ: