বুধবার ১৩ আশ্বিন ১৪২৮, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সঙ্কেত আরও অশনি ॥ রোহিঙ্গার বোঝা নিয়ে দেশ

  • বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাব জেনে চলেছিল উল্লাস, আবার না বলাতে গোপন বৈঠক, ভাংচুর

মোয়াজ্জেমুল হক/এইচএম এরশাদ ॥ রোহিঙ্গাদের হত্যা ধর্ষণ বাড়িঘর জ্বালিয়ে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে বাস্তুচ্যুত করে বিতাড়নের নেপথ্যে যে নীলনক্সা প্রণীত হয়েছিল তা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার অনুসন্ধান তদন্ত, স্যাটেলাইটে চিত্র ধারণের মাধ্যমে উদ্ঘাটিত হয়েছে বহু আগে। জাতিগোষ্ঠী হিসেবে মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা যে শ্রেণীরই হোক না কেন- এরা সেদেশের নাগরিক। অথচ জাতিসত্তার সেই নাগরিকত্ব মিয়ানমার সরকার কেড়ে নিয়েছে। এ কাজে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছে সেদেশের সামরিক বাহিনী, সীমান্তরক্ষী বিজিপি (বর্ডার গার্ড পুলিশ) এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষার সঙ্গে জড়িতদের বেআইনী ও বর্বরোচিত নানামুখী অবৈধ কর্মকান্ড।

বিশ্বব্যাংক আকস্মিকভাবে বিবৃতি দিয়ে জানাল বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের এদেশের জনগোষ্ঠীর সঙ্গে একীভূত করার প্রস্তাব। এই প্রস্তাবের পর আশ্রিত রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে হয়েছে উল্লাস। আর কক্সবাজারসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামে এই প্রস্তাবের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ মনোভাবের বহিঃর্প্রকাশ। বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে বিষয়টি উঠে আসার পর বিশ্বব্যাংক ৩ আগস্ট তাদের ওয়েবসাইটে এক বিবৃতিতে জানান দিয়েছে এ ধরনের সুপারিশ বাংলাদেশের প্রতি তারা করেনি। করেছে ইউএনএইচসিআর (ইউনাইটেড হাইকমিশন ফর রিফিউজি)। ফলে বিশ্বব্যাংকের পক্ষে এ বিষয়টি নিয়ে পিছু হটার বিষয়টি প্রতিভাত।

বর্তমানে মিয়ানমারে, বাংলাদেশ এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশ মিলে রোহিঙ্গাদের জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ৪০ লাখের বেশি রয়েছে বিভিন্ন সংস্থার পরিসংখ্যান রয়েছে। সেই হিসাবে এর অর্ধেকই বাংলাদেশে আশ্রিত অবস্থায় রয়েছে। সরকার পক্ষে প্রতিবেশী রাষ্ট্রে এই জনগোষ্ঠী সদস্যদের আশ্রয়দানের এমন মানবিকতার বিপরীতে আন্তর্জাতিক কিছু সংস্থা, এদেশের উন্নয়ন সহযোগী কিছু সংস্থা, দেশী-বিদেশী এনজিও সংস্থা এমনকি উগ্রবাদ, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও বিচ্ছিন্নতাবাদে বিশ্বাসী এমন রোহিঙ্গারা এখন এদেশের জনগোষ্ঠীর সঙ্গে মিশে যাওয়ার স্বপ্নে বিভোর হয়ে আছে বলে বিশেষজ্ঞ মহলে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত নাগরিক। ওরা এদেশে আশ্রিত। ওরা রিফিউজি নয়। এটাই সরকারীভাবে স্বীকৃত। অথচ এদেশেরই কিছু মহল এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আশ্রিত এসব রোহিঙ্গাকে ‘শরণার্থী’ নামে অভিহিত করার প্রবণতা লক্ষণীয়। যা কখনও কাম্য হতে পারে না। কেননা ‘শরণার্থী’ আর ‘আশ্রিত’ এ দুটি শব্দ প্রয়োগের ক্ষেত্রে বিস্তর তফাৎ রয়েছে। লক্ষণীয় ব্যাপার রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী মিয়ানমারের একসময় রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃত ছিল। কিন্তু সেদেশের এনএলডি (ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি) নেত্রী আউং সান সুচি সরকার এবং বর্তমান সামরিক জান্তা সরকার সেদেশে এবং এর পাশাপাশি বিশ্ব ফোরামে এমনকি রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের নেতারা এদেশে এসেও কখনও ‘রোহিঙ্গা’ নামটি উচ্চারণ করেনি। যা রোহিঙ্গাদের জন্য বড়ই দুঃখজনক। এর মূল কারণ অনুসন্ধানে জানা যায় মিয়ানমার প্রমাণ করতে চায় ওরা মূলত বাঙালী। এদেশ থেকে ওরা মিয়ানমারে গিয়ে বসতি গেড়েছে। হোক না তা শত বছরেরও বেশি সময় আগে থেকে। এটাও তাদের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার উচ্ছিষ্ট একটি অংশ। তারা বিষয়টি বিশ্বমহলে যে কোনভাবে গিলাতে চায়। আবার ইতোমধ্যে আশ্রিতদের ক্ষুদ্র একটি অংশকে মিয়ানমার থেকে এদেশে এসেছে বলে স্বীকার করেছে। তাহলে প্রশ্ন ওঠে এ ক্ষুদ্র অংশের সঙ্গে অপর বৃহৎ অংশটি কি মিয়ানমার থেকে আসেনি?

মূলত এরা সকলেই সেদেশেরই নাগরিক এবং সেদেশের সংসদেও রোহিঙ্গাদের প্রতিনিধিত্ব ছিল। সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন ওঠে নাগরিকত্ব না থাকলে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিরা নির্বাচন করে নির্বাচিত হয়ে সংসদে প্রতিনিধিত্ব করেছে কিভাবে? বর্তমান পরিস্থিতিতে মিয়ানমার রোহিঙ্গা নামটি উচ্চারণ করতে নারাজ। কারণ এ নাম তাদের মুখে উচ্চারিত হলে থলের বেড়াল বেরিয়ে যায়। নিজেদের পাতা জালে নিজেরাই ধরা পড়ে যায়।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘসহ বিশ্বের বিভিন্ন শক্তিশালী বহু দেশ সোচ্চার। সাহায্য ও সেবামূলক সংস্থাগুলোও তৎপর। রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বর নির্যাতন, গণহারে হত্যা, ধর্ষণ, বাড়িঘর জ্বালাও-পোড়াও ইত্যাদি ঘটনাবলি নিয়ে মিয়ানমারের ওপর চাপ এখনও সর্বোচ্চভাবে না হলেও একেবারে কম হয়েছে তাও বলা যাবে না। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্বব্যাপী ধিকৃত হয়েছেন আউং সান সুচি। সেদেশের বহু সেনা কর্মকর্তার ওপর যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশ নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘটনাও রয়েছে। এছাড়া পশ্চিম আফ্রিকার ক্ষুদ্র একটি দেশ গাম্বিয়া রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা বন্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলাও দায়ের করেছে। আদালত প্রাথমিকভাবে গণহত্যার বন্ধের নির্দেশনা প্রদান করেছে। এ ঘটনা নিয়ে তদন্ত চলমান। চূড়ান্ত রায় অপেক্ষাধীন।

২০১৭ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে একটি অধিবেশনে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের তাতমাদো’র (সেনাবাহিনী) পরিচালিত বর্বরোচিত ঘটনাবলিকে ‘সীমস এ্যা টেক্সট বুক এক্সামশন অফ এথনিক ক্লিনজিং’ নামে অভিহিত করে। আর ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক আদালতে গাম্বিয়ার পক্ষে যে মামলাটি হয়েছে তার বিষয়বস্তু হচ্ছে ‘এ্যাপ্লিকেশন অফ দ্য কনভেনশন অন দ্য প্রিভেনশন এ্যান্ড পানিশম্যান্ট অফ দ্য ক্রাইম অফ জেনোসাইড (দ্য গাম্বিয়া ভার্সেস মিয়ানমার)’। ২০২০ সালে এ মামলার প্রাথমিক শুনানি শেষে ৪টি অন্তর্বর্তীকালীন আদেশও হয়। যদিও ওসব আদেশের রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ইস্যু নিয়ে সুস্পষ্ট কিছু বলা হয়নি। তবে রোহিঙ্গারা যে মিয়ানমারের জাতিগোষ্ঠী সেটা স্পষ্ট হয়েছে।

এদিকে চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি সুচি সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করেছে সেদেশের সেনাবাহিনী। দখল করেছে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা। একে সামরিক জান্তা বাহিনীর ক্ষমতার অপব্যবহার আরও মজবুত হয়েছে। অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধবাদীদের পাখির মতো গুলিতে হত্যা করার ঘটনাও ঘটেছে। সুচিসহ তার সরকারের একাধিক মন্ত্রী ও দলীয় নেতাদের কারাগারে নিক্ষেপ করা হয়েছে। এসবের নেপথ্যে রয়েছে মিয়ানমারের সঙ্গে ভূরাজনৈতিক সম্পর্কে জড়িত শক্তিশালী কয়েক রাষ্ট্রের সহযোগিতা।

এমনিতর পরিস্থিতিতে এদেশের উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা বিশ্বব্যাংক প্রস্তাব দিয়ে বসলো, রোহিঙ্গাদের জন্য কক্সবাজারের মূল স্রোতের সঙ্গে একীভূত করে নেয়া হয়। বিষয়টি শুধু বাংলাদেশ নিয়ে নয় রিফিউজি সমস্যায় সংশ্লিষ্ট ১৬ দেশ নিয়ে এমন প্রস্তাবটি জাতিসংঘের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইউএনএইচসিআরের। এমন প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন গতিশীল সরকারের পক্ষে সুস্পষ্ট ও কঠোরভাবে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। বিষয়টি গত ২ আগস্ট পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের অবহিত করেছেন। এর ফলে রোহিঙ্গা ভারে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা কক্সবাজার এবং সন্নিহিত গোটা বৃহত্তর চট্টগ্রামের মানুষ উল্লসিত হয়েছে। অভিনন্দন পেয়েছে সরকার। ৩ আগস্ট বিশ্বব্যাংক তাদের ওয়েবসাইটে নতুন তথ্য প্রকাশ করল। বলা হলো রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে রাখার ব্যাপারে কোন সুপারিশ তারা করেনি। প্রস্তাবটি ইউএনএইচসিআরের। এতে স্পষ্ট হলো বিশ্বব্যাংক তাদের পূর্বের বক্তব্য থেকে সরে গেল অর্থাৎ পিছু হটলো।

কিন্তু এইএনএইচসিআরের পক্ষে এ বিষয়টি নিয়ে প্রকাশে কোন বক্তব্য এখনও আসেনি। এই সংস্থাটি রোহিঙ্গা ইস্যুতে দীর্ঘ সময় ধরে সংশ্লিষ্ট রয়েছে। গোটা কক্সবাজারজুড়ে এদের কার্যক্রম বিস্তৃত। বিশ্বব্যাংকের বক্তব্য অনুযায়ী ইউএনএইচসিআর বাংলাদেশসহ ১৬টি দেশ নিয়ে রিফিউজি ইস্যুতে যে প্রস্তাব রেখেছে তা বাংলাদেশের জন্য যে হতে পারে না তা পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্পষ্টভাবে প্রকাশ্যে জানান দিয়েছেন।

বিশ্বব্যাংক তাদের বিবৃতিতে বলেছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে তারা বাংলাদেশকে ৫৯০ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে এর পুরোটাই অনুদান। শরণার্থী সংক্রান্ত রূপরেখার পর্যালোচনার ব্যাখ্যায় বিশ্বব্যাংক আরও বলেছে ইউএনএইচসিআরের আরপিআরএফ অনুসরণ করে প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হয়েছে। শরণার্থীদের আশ্রয়দাতা দেশের সমাজে অন্তর্ভুক্ত করতে ‘রিফিউজি পলিসি রিফ্রম ফ্রেমওয়ার্ক’ একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে বিশ্বব্যাংক। ব্যাংকের ঢাকা দফতর থেকে বাংলাদেশকে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে এ ব্যাপারে মতামত দিতে সময় দেয়া হয়। পরে এ সময় বাড়িয়েছে বিশ্বব্যাংক।

এখানে একটি বিষয় প্রণিধানযোগ্য, মানবিক সহায়তার কথা বললেও নিজেদের স্বার্থ ছাড়া কোন সাহায্য সংস্থা বা এনজিও এ জাতীয় ইস্যুতে সংশ্লিষ্ট যে হয় না তা প্রমাণের অপেক্ষা রাখে না। বিশেষ করে সহায়তার অর্থের অর্ধেকই খরচ করা হয় নিজেদের স্বার্থে। নিজেদের জন্য খরচ হবে এতে কোন বাধা নেই। তবে এর সীমারেখা কী তা কোনভাবেই জানা যায় না। অর্থাৎ যে যেভাবে ইচ্ছে করে তাই তারা সম্পন্ন করতে তৎপর থাকে। রোহিঙ্গাদের নিয়ে অর্থ সহায়তা সংক্রান্তে পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত ২ আগস্ট সাংবাদিকদের কাছে এটাও জানান দিলেন যে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে দাতারা সরাসরি কোন অর্থ সরকারকে দেয় না। তাদের নামে যে অর্থ আসে এর চেহারাও সরকার দেখে না। তারা অর্থ আনে, তারাই খরচ করে। কিভাবে খরচ করে তাও জানায় না। দেখভাল করার সুযোগও দেয়া হয় না। কি বিস্ময়কর ব্যাপার!

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোপন বৈঠক ॥ এপিবিএনের সাঁড়াশি অভিযান : এদিকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে বিশ্বব্যাংকের পিছু হটা এবং বিষয়টি ইউএনএইচসিআরের ওপর চাপিয়ে দেয়ার ঘটনা নিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো ছিল বিক্ষুব্ধ। বিশ্বব্যাংকের বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর মঙ্গলবার রাতে রোহিঙ্গা নেতারা সন্ত্রাসীদের নিয়ে উখিয়া কুতুপালং, বালুখালি ও জামতলীতে গোপন বৈঠক করেছে। এসব বৈঠকে ৩০ বছর আগের পুরনো রোহিঙ্গাদেরও অংশগ্রহণ ছিল। এ খবর পেয়ে এপিবিএন (আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন) সদস্যরা অভিযান চালায়। অভিযানের খবর পেয়ে গোপন বৈঠকে অংশগ্রহণকারীরা পাহাড়ী পথে পালিয়ে যায়। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয় বিভিন্ন সামগ্রী।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, এ জাতীয় বৈঠক আশ্রিত ভিনদেশীরা করতে পারে না। বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাবের বিপরীতে সরকার পক্ষে নাকচ বা প্রত্যাখ্যান করার ঘটনায় স্থানীয়রা উল্লসিত। স্থানীয় গোফর উদ্দিন চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের ভারে উখিয়া টেকনাফের জনপদ বিপদগ্রস্ত হয়ে আছে। এদের সকলকে উখিয়া টেকনাফ থেকে সরিয়ে অন্য স্থানে নেয়া সময়ের দাবি। কেননা মিয়ানমার সীমান্ত সংলগ্ন এলাকা উখিয়া টেকনাফে এদের অবস্থান সার্বিক পরিস্থিতিকে গোলাটে করে তুলছে। মিয়ানমার থেকে যেসব মাদক অস্ত্র গোলাবারুদ এমনকি স্বর্ণের চোরাচালান সবই রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে হয়ে থাকে। এদের অবস্থানের দূরত্ব ভাসানচরের বাড়ানো হলে অনেক সুফল বয়ে আসবে। এরা উখিয়া টেকনাফের ব্যাপক বনজ সম্পদ ধ্বংস করে দিয়েছে। পাহাড়ের পর পাহাড় কেটে বসতি গেড়েছে। বিদেশীদের প্রস্তাব অনুযায়ী কক্সবাজারের মূল স্রোতের সঙ্গে একীভূত করার ঘটনা কখনও মেনে নেয়া হবে না।

পলায়ন অব্যাহত ॥ বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের পলায়ন অব্যাহত রয়েছে। গত এক সপ্তাহে ক্যাম্প ত্যাগকারী ২৫০ রোহিঙ্গা ধরা পড়েছে। রামুর রশিদনগর এলাকায় ফের আটক হয়েছে ৩২ রোহিঙ্গা। মঙ্গলবার সকালে এদেরকে আটক করা হয়। রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয়ন চাকমা জনকণ্ঠকে জানান, এদের কাছ থেকে অর্থ ও মোবাইল সেট জব্দ করা হয়েছে। এর আগে গত ২৬ জুলাই জোয়ারিনালায় ধরা পড়ে ১৩৯ রোহিঙ্গা। ২৫ জুলাই ৭৮ এবং ২৪ জুলাই ৩০ রোহিঙ্গা ধরা পড়ে। অর্থাৎ রোহিঙ্গারা সুযোগ বুঝে ক্যাম্প ছেড়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যেতে তৎপর। উল্লেখ্য, উখিয়া টেকনাফে ৩৪ ক্যাম্পে এদের আশ্রয় দেয়া হয়। বর্তমানে একটি ক্যাম্প বন্ধ করে ৩৩ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৩২৩৫৭৯২৮
আক্রান্ত
১৫৫১৩৫১
সুস্থ
২০৮৯৭০৪৫৬
সুস্থ
১৫১১৪৭৯
শীর্ষ সংবাদ:
ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচে জন্মদিনের আনন্দ উচ্ছ¡াস         দেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় পৌঁছাতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই ॥ তথ্যমন্ত্রী         আন্তর্জাতিকভাবে দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ‘অপকর্মে জড়িতরা আওয়ামী লীগের টিকিট পাবেন না’         এ বছরও হচ্ছে না জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩১         ‘লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হলে কালও চলবে বিশেষ টিকা কর্মসূচি’         ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের নির্বাচন স্থগিত করল হাইকোর্ট         ‘পুলিশি হয়রানি’ বন্ধসহ ৬ দফা দাবি বাইকারদের         ডিএমপির ৫ এডিসির বদলি         হার্ট অ্যাটাকের পর হাসপাতালে স্থিতিশীল অবস্থায় ইনজামাম         সাগরে ফের লঘুচাপ, ভারি বর্ষণের সম্ভাবনা         গিনেস বুকে নাম লিখিয়েছে সাভারের ছোট গরু রানী         শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ৪ নির্দেশনা         পাঁচ মামলায় খালেদার জামিনের মেয়াদ বাড়ল         ডিবির হাতে আটক আলোচিত মুফতি ইব্রাহীম         ফৌজদারহাটে পণ্যবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত ॥ ট্রেনের একটি লাইন বন্ধ         প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে নীলফামারীতে করোনার গণটিকায় ব্যাপক সাড়া