শুক্রবার ৩০ বৈশাখ ১৪২৮, ১৪ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনা ভীতি উপেক্ষা ঈদের কেনাকাটায় মার্কেটে মানুষের ঢল

করোনা ভীতি উপেক্ষা ঈদের কেনাকাটায় মার্কেটে মানুষের ঢল
  • সড়কে সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে
  • রিকশা-সিএনজির অতিরিক্ত ভাড়ায় অতিষ্ট নগরবাসী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ করোনা ভীতি উপেক্ষা করে ঈদের কেনাকাটার জন্য নগরবাসী ছুটে যাচ্ছেন মার্কেট শপিংমল ও বিপণি বিতানে। দুপুরের পর রাজধানীর বেশিরভাগ মার্কেটে মানুষের ঢল নামছে। সবার চাই নতুন পোশাক, প্রসাধন ও গহনা সামগ্রী।

এ কারণে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকিকে সম্পূর্ণ তুচ্ছ জ্ঞান করে কেনাকাটার জন্য ক্রেতারা এক মার্কেট থেকে আরেক মার্কেটে দৌঁড়ঝাপ করছে পছন্দেও প্রিয় জিনিসটি কিনতে। গত এক সপ্তাহ ধরে মার্কেটগুলোতে ভিড় লেগে আছে। সড়কে সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় রিকশা-সিএনজির অতিরিক্ত ভাড়ায় অতিষ্ট রাজধানীবাসী। প্রতিটি মার্কেটের দেখা যাচ্ছেন গাড়ির জট। ঈদ সামনে রেখে এই ভিড় আরও বাড়বে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। অনেক মার্কেটে ক্রেতা-বিক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানা করছে।

কিন্তু এরপর সজাগ হচ্ছে না সাধারণ মানুষ। মাস্ক ছাড়াই ক্রেতারা ঢুকে পড়ছে ভিড়ের মধ্যে। এ অবস্থায় করোনা সংক্রমণের বড় ঝুঁকি রয়েছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

ঢাকার মার্কেট শপিংমল বিপণিবিতান ও ফ্যাশন হাউজগুলো ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতারা দেদারছে ঈদের কেনাকাটা করছেন। দীর্ঘ একবছরেরও বেশি সময় পড়ে বেচাবিক্রি বাড়ায় খুশি দোকানদার ও মার্কেট ব্যবসায়ীরা। তাদের আশা, এভাবে ঈদ পর্যন্ত বেচাবিক্রি থাকলে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবেন তারা। তবে মার্কেটগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি নিয়ে কিছুটা উদ্বেগ রয়েছে ব্যবসায়ীদের।

কারণ যেভাবে মার্কেটে ক্রেতা সমাগম বাড়ছে তাতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি ইতোমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে। মঙ্গলবার রাজধানীর বেশিরভাগ মার্কেটে বেলা দশটার পর থেকে ভিড় বাড়তে থাকে। শেষ বিকেলে গাউছিয়া, চাঁদনী চক, ইসলামইল ম্যানশন, ধানমন্ডি হকার্স এবং নিউ মার্কেট ঠাসা ছিল মানুষে। ঈদ শপিংয়ের ব্যাগ ছিল সবার হাতে হাতে। এ প্রসঙ্গে গাউছিয়া মার্কেটের জ্যোতি শাড়ির এক কর্মকর্তা জানান, ঈদ সামনে রেখে তাদের ভাল বেচাকেনা হচ্ছে। জমে উঠেছে ঈদের মার্কেট।

তিনি বলেন, করোনা সংক্রমনরোধে তারা পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছেন। তবে কোন ক্রেতা মাস্ক ব্যবহার না করলে তাদের দ্রুত মাস্ক ব্যবহারের জন্য বলা হচ্ছে। এছাড়া পর্যাপ্ত স্যানিটাইজারও হ্যান্ডওয়াশের ব্যবস্থা করেছে মার্কেট কর্তৃপক্ষ।

চাঁদনী চক মার্কেটে জুয়েলারী সামগ্রী কিনছিলেন ধানমন্ডির বাসিন্দা ফারজানা খান। ঈদের কেনাকাটার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, কেনাকাটার জন্যই ত মার্কেটে আসা হয়েছে। পরিবারের সবার জন্য এবার ঈদের কেনাকাটা করা হবে।

এ কারণে শুধু এক মার্কেট নয়, বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমল ঘুরে ঘুরে তাঁকে কেনাকাটা করতে হচ্ছে। করোনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটার ভয় একটু আছে। কিন্তু এই ভয়ে বসে থাকলেও তো আর ঈদের কেনাকাটা করা যাবে না। এ কারণে মার্কেটে আসতে হয়েছে।

এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলে দেয়া হয়েছে শপিং মলগুলো। বসুন্ধরা ও যমুনা ফিউচার পার্কের মতো বড় বড় শপিংমলগুলোতে কেনাকাটা বেড়েছে। সরেজমিনে বসুন্ধরা শপিং মলে গিয়ে দেখা গেছে, ক্রেতাসাধারণের সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি মানার লম্বা লাইন ধরেছেন।

কিন্তু ভিড়ের কারণে তা পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মানা যাচ্ছে না। মুখে মাস্ক, হাতে স্যানিটাইজার দিয়ে নিরাপত্তাকর্মীরা এই শপিং মলে প্রবেশের সময় নিশ্চিত করার জন্য নিরাপত্তাকর্মীরা চেষ্টা করলেও তা সম্ভব হচ্ছে না। হুমড়ি খেয়ে ক্রেতারা ঢুকে পড়ছেন মলটিতে। শপিং মলটির ভেতরে বিভিন্ন লেভেলে গিয়ে দেখা গেছে, মূলত পোশাক এবং জুতার দোকানে ক্রেতাদের সবচেয়ে বেশি ভিড়। তুলনামূলক কম ভিড় দেখা গেছে মোবাইল ফোনের দোকানগুলোয়।

অলংকার ব্যবসায়ীরা জানান, গত চার-পাঁচ দিন ধরে তাঁদের বিক্রি ছিল ভাল হচ্ছে। অন্যদিকে, রাজধানীর আরেক শপিং মল যমুনা ফিউচার পার্কে গিয়েও দেখা গেছে নানা বয়সী মানুষের ব্যাপক ভিড়। মধ্যবিত্ত থেকে শুরু করে সব শ্রেণির মানুষের আনাগোনা ছিল এই শপিং মলে। জনপ্রিয় পোশাকের ব্র্যান্ডগুলোর শোরুমে পা ফেলার জায়গা ছিল না।

দেশীয় ব্র্যান্ড আড়ংয়ে লম্বা লাইন ধরে ক্রেতাদের প্রবেশ করতে দেখা গেছে। ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে রাখা হয়েছে বাই ওয়ান গেট ওয়ান, ২০-৬০% ডিস্কাউন্ট অফার। জনপ্রিয় ব্র্যান্ডের বাইরে অন্য দোকানগুলোতেও নানা ছাড় দিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা চলছে।

রাজধানীর নিউ মার্কেটে একজনের সঙ্গে আরেকজনের গা ঘেঁষে ঘেঁষে চলতে দেখা গেছে। অভিভাবকদের সঙ্গে ঈদ শপিংয়ে মার্কেটে আসা শিশুদেরকেও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। বিক্রেতারা বলছেন, সরকারী ছুটির দিনে ক্রেতাদের ভিড় অনেক বেশি বাড়ে। ঈদ সামনে রেখে প্রতিটি মার্কেটে বিক্রিও হচ্ছে সন্তোষজনক। ঈদ শপিংয়ে উপচেপড়া ভিড়ের কারণে রাজধানীর কিছু কিছু সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে। মঙ্গলবার ঢাকার বেশির ভাগ সড়কে যানজট তৈরি হয়।

ঈদের কেনাকাটার জন্য নগরবাসী বাইরে বের হওয়ার কারণে সিএনজি রিকশা, অটো রিকশা এবং রিকশাও পাওয়া যাচ্ছে না। দুএকটি মিললেও তাতে দ্বিগুন ভাড়া দিতে হচ্ছে। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় রিকশা-সিএনজি ভাড়া গুণতে মানুষের পকেট ফাঁকা হযে যাচ্ছে।

শীর্ষ সংবাদ:
স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপন করার আহবান প্রধানমন্ত্রীর         কাল পবিত্র ঈদ-উল ফিতর         দেশবাসীকে রাষ্ট্রপতির ঈদ শুভেচ্ছা         ঈদ জামাত কখন কোথায়         ২৩ মে পর্যন্ত বিধিনিষেধ বাড়ছে, ১৬ মে প্রজ্ঞাপন জারি : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় ৩১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১২৯০         হালকা বৃষ্টি থাকবে ঈদের দিন, তাপমাত্রাও হবে সহনীয়         পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক         ফেরিতে ৫ মৃত্যু ॥ এককোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে নোটিশ         সংকটে ব্লেম গেম থেকে বিরত থাকুন ॥ কাদের         ফাঁকা ঢাকা         চালুর পর বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ের রেকর্ড         ঈদের দিনেও চলছে হামলা ॥ নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৯         আল-আকসায় ঈদ জামাতে মুসল্লিদের ঢল         ভারতে করোনা ভাইরাসে আরও ৪১২০ জনের মৃত্যু         সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর         রাত পোহালেই ঈদ ॥ শিমুলিয়ায় ঈদযাত্রার শেষ দিনে চলছে ১৬ ফেরী         গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫         ইসরাইলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বাহিনী তৈরি করতে চান এরদোগান