রবিবার ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৯ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

তিন মাসে খেলাপী ঋণ কমেছে ১৬৭৭ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ করোনার কারণে ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব বিবেচনায় ঋণগ্রহীতাদের নানা ছাড় দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত কোন গ্রাহক কিস্তি না দিলেও তাকে খেলাপী করা যাবে না। এই ছাড়ে খেলাপী ঋণ গত তিন মাসে এক হাজার ৬৭৭ কোটি টাকা কমে গত সেপ্টেম্বর শেষে ৯৪ হাজার ৪৪০ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। মোট ঋণের যা ৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ। আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে ২১ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকা। সংশ্লিষ্টরা জানান, নতুন করে কাউকে খেলাপী না করার পাশাপাশি করোনার ক্ষতি পোষাতে ব্যবসায়ী, কৃষকসহ বিভিন্ন খাতে ভর্তুকি সুদে প্রায় ৯০ হাজার কোটি টাকা বিতরণ করছে ব্যাংকগুলো। আবার লকডাউনের সময় তথা এপ্রিল ও মে মাসে সব ধরনের ঋণের সুদে ব্যাংকগুলোকে ২ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়েছে সরকার। এর আগে গত বছর মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে ১০ বছরের জন্য খেলাপী ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এই সুযোগ নিয়ে গত বছর রেকর্ড ৫২ হাজার ৭৬৭ কোটি টাকার খেলাপী ঋণ পুনঃতফসিল হয়।

তিন মাস আগে জুন শেষে ব্যাংকগুলোর খেলাপী ঋণের পরিমাণ ছিল ৯৬ হাজার ১১৭ কোটি টাকা। ওই সময় পর্যন্ত বিতরণ করা ১০ লাখ ৪৯ হাজার ৭২৪ কোটি টাকা ঋণের যা ছিল ৯ দশমিক ১৬ শতাংশ। গত বছরের সেপ্টেম্বর শেষে খেলাপী ঋণের পরিমাণ ছিল এক লাখ ১৬ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা। ওই সময় পর্যন্ত বিতরণ করা ঋণের যা ১১ দশমিক ৯৯ শতাংশ। মূলত করোনার আগ থেকেই বিশেষ উপায়ে পুনঃতফসিল, পুনর্গঠনসহ নানা ছাড় দিয়ে খেলাপী ঋণ কমাতে চাইছিল সরকার। আগের অভিজ্ঞতা থেকে ব্যাংকাররা আশঙ্কা করছিলেন, বিশেষ সুবিধায় নিয়মিত করা ঋণের বেশিরভাগই আবার খেলাপী হবে। তবে করোনার এ সময়ে কিস্তি না দিলেও খেলাপী না করার সুযোগে তা হয়নি। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত সেপ্টেম্বর শেষে রাষ্ট্রীয় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর খেলাপী ঋণ সামান্য কমে ৪২ হাজার ৮৩৫ কোটি টাকা হয়েছে। মোট ঋণের যা ২২ দশমিক ৪৬ শতাংশ। আগের প্রান্তিক শেষে এসব ব্যাংকের খেলাপী ঋণ ছিল ৪২ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা। বিশেষায়িত দুই ব্যাংকের খেলাপী ঋণের পরিমাণ ৪ হাজার ৫২০ কোটি টাকা। বেসরকারী খাতের ব্যাংকগুলোর খেলাপী ঋণের পরিমাণ আগের প্রান্তিকের ৪৬ হাজার ৫৯২ কোটি টাকা থেকে কমে ৪৫ হাজার ৩৭ কোটি টাকায় নেমেছে। বিদেশী ব্যাংকের খেলাপী ঋণ ১৫ কোটি টাকা কমে ২ হাজার ৪৯ কোটি টাকা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জুন শেষে ব্যাংক খাতের ঋণস্থিতি দাঁড়িয়েছে ১০ লাখ ৬৩ হাজার ৬২৬ কোটি টাকা। তিন মাস আগে জুন শেষে ছিল ১০ লাখ ৪৯ হাজার ৩০১ কোটি টাকা। এর মানে তিন মাসে ঋণস্থিতি বেড়েছে মাত্র ১৪ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। তিন মাস আগে বেড়েছিল ২৪ হাজার ৮০৩ কোটি টাকা। বিদ্যমান খেলাপী ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর ৬৩ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা প্রভিশন সংরক্ষণের কথা। তবে কয়েকটি ব্যাংকের কারণে পুরো খাতে ২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকার প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে।

শীর্ষ সংবাদ:
কলকাতা থেকে খুলনার পথে বন্ধন এক্সপ্রেস         ঢাকা থেকে ১৬৫ যাত্রী নিয়ে কলকাতার উদ্দেশ্য মৈত্রী এক্সপ্রেস         বরিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ১০ জন নিহত         দাম কমানোর টার্গেট ॥ সংসদে বাজেট পেশ ৯ জুন         ৫৭ বছর পর ঢাকা থেকে ‘মিতালি এক্সপ্রেস’ যাবে ভারতে         রাজনীতির মাঠ গরম করতে চায় বিএনপি         মাঙ্কিপক্সে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে তরুণরা         দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হবে ॥ রিফাত         পাহাড়ে বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা দিন দিন বাড়ছে         ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি ঢাকায় আসছে ৮ জুন         আজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস ॥ নানা আয়োজন         উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় কমিউনিটি রেডিও শক্তিশালী মাধ্যম         অবৈধ ক্লিনিক বন্ধে দেশজুড়ে অভিযান         ইয়াবা ও মানব পাচারে কমিশন পায় রোহিঙ্গা নারীরা         চলচ্চিত্র ব্যবসায় আশার আলো মিনি সিনেপ্লেক্স         সিলেটে ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগ বাড়ছে         বিএনপি খোমেনি স্টাইলে বিপ্লব করার দুঃস্বপ্ন দেখছে ॥ কাদের         শান্তিরক্ষীগণ পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন : প্রধানমন্ত্রী         প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সময়োপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির         বাংলাদেশ আজ শান্তি ও সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত : রাষ্ট্রপতি